ইপেপার । আজবৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জাকাত না দেওয়ার ভয়াবহ শাস্তি

ধর্ম প্রতিবেদন:
  • আপলোড টাইম : ১০:২৯:৩১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২২ মার্চ ২০২৪
  • / ১০০ বার পড়া হয়েছে

জাকাত ইসলামের মৌলিক ইবাদতের একটি। জাকাত ধনী-গরিবের ভেদাভেদ দূর করে বৈষম্যহীন সমাজ প্রতিষ্ঠায় সাহায্য করে। ইসলামে জাকাতের গুরুত্ব অপরিসীম। পবিত্র কোরআনের বিভিন্ন জায়গায় সামর্থ্যবানদের জাকাত দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আল্লাহ তাআলা। তিনি বলেছেন, তোমরা সালাত আদায় করো এবং জাকাত প্রদান করো। (সুরা বাকারা: ১১০) তাই যারা নেসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক হবে, তারা অবশ্যই জাকাত দেবে। অন্যথায় আল্লাহ তাআলা কঠিন শাস্তি দেবেন। জাকাত দিতে যারা উদাসীনতা দেখায়, পবিত্র কোরআনে তাদের কঠিন শাস্তির হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে। আল্লাহ তাআলা বলেন, আর যারা সোনা-রুপা পুঞ্জীভূত করে রাখে এবং তা আল্লাহর রাস্তায় খরচ করে না, তুমি তাদের বেদনাদায়ক শাস্তির সুখবর দাও। সেদিন জাহান্নামের আগুনে তা (সোনা-রুপা) গরম করা হবে, এরপর তা দিয়ে তাদের কপালে, পাশে এবং পিঠে সেঁকা দেওয়া হবে। (আর বলা হবে) এটা সেই (সম্পদ), যা তোমরা নিজেদের জন্য পুঞ্জীভূত করেছিলে। সুতরাং তোমরা যা জমা করেছিলে, তার স্বাদ উপভোগ করো। (সুরা তাওবা: ৩৫-৩৬) হাদিসে এসেছে, রাসুল (সা.) বলেন, যাকে আল্লাহ তাআলা সম্পদ দান করেছেন, কিন্তু সে তার জাকাত আদায় করেনি, কিয়ামতের দিন তার সম্পদকে টেকো মাথাবিশিষ্ট বিষধর সাপের আকৃতি দান করে তার গলায় মালা পরিয়ে দেওয়া হবে, সাপটি তার মুখের দুই পাশে ছোবল দেবে এবং বলতে থাকবেআমিই তোমার সম্পদ, আমিই তোমার জমা করা সম্পদ। (বুখারি: ১৪০৩)

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

জাকাত না দেওয়ার ভয়াবহ শাস্তি

আপলোড টাইম : ১০:২৯:৩১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২২ মার্চ ২০২৪

জাকাত ইসলামের মৌলিক ইবাদতের একটি। জাকাত ধনী-গরিবের ভেদাভেদ দূর করে বৈষম্যহীন সমাজ প্রতিষ্ঠায় সাহায্য করে। ইসলামে জাকাতের গুরুত্ব অপরিসীম। পবিত্র কোরআনের বিভিন্ন জায়গায় সামর্থ্যবানদের জাকাত দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আল্লাহ তাআলা। তিনি বলেছেন, তোমরা সালাত আদায় করো এবং জাকাত প্রদান করো। (সুরা বাকারা: ১১০) তাই যারা নেসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক হবে, তারা অবশ্যই জাকাত দেবে। অন্যথায় আল্লাহ তাআলা কঠিন শাস্তি দেবেন। জাকাত দিতে যারা উদাসীনতা দেখায়, পবিত্র কোরআনে তাদের কঠিন শাস্তির হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে। আল্লাহ তাআলা বলেন, আর যারা সোনা-রুপা পুঞ্জীভূত করে রাখে এবং তা আল্লাহর রাস্তায় খরচ করে না, তুমি তাদের বেদনাদায়ক শাস্তির সুখবর দাও। সেদিন জাহান্নামের আগুনে তা (সোনা-রুপা) গরম করা হবে, এরপর তা দিয়ে তাদের কপালে, পাশে এবং পিঠে সেঁকা দেওয়া হবে। (আর বলা হবে) এটা সেই (সম্পদ), যা তোমরা নিজেদের জন্য পুঞ্জীভূত করেছিলে। সুতরাং তোমরা যা জমা করেছিলে, তার স্বাদ উপভোগ করো। (সুরা তাওবা: ৩৫-৩৬) হাদিসে এসেছে, রাসুল (সা.) বলেন, যাকে আল্লাহ তাআলা সম্পদ দান করেছেন, কিন্তু সে তার জাকাত আদায় করেনি, কিয়ামতের দিন তার সম্পদকে টেকো মাথাবিশিষ্ট বিষধর সাপের আকৃতি দান করে তার গলায় মালা পরিয়ে দেওয়া হবে, সাপটি তার মুখের দুই পাশে ছোবল দেবে এবং বলতে থাকবেআমিই তোমার সম্পদ, আমিই তোমার জমা করা সম্পদ। (বুখারি: ১৪০৩)