ইপেপার । আজরবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিয়ের আসরেই নববধূকে তালাক, নেপথ্যে যা ছিল

প্রতিবেদক, দামুড়হুদা:
  • আপলোড টাইম : ১০:০৯:৪২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪
  • / ৬৬ বার পড়া হয়েছে

চুয়াডাঙ্গার দর্শনায় বিয়ের আসরেই নববধূকে তালাক দিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছেন আসিফ রহমান (২২) নামে এক যুবক। গত রোববার ঈদুল আজহার আগের দিন সন্ধ্যায় দর্শনা ধানাধীন আকন্দবাড়িয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। তবে ক্ষতিপূরণ বাবদ নববধূকে ৭৫ হাজার টাকা দেনমোহরসহ মোট সাড়ে ৪ লাখ টাকা গচ্ছা দিতে হয়েছে বরকে। বর আসিফ রহমান জেলার জীবননগর উপজেলার সিংনগর গ্রামের শমসের আলীর ছেলে।

পুলিশ সূত্র জানায়, রোববার বিকেলে আসিফ রহমান পার্শ্ববর্তী আকন্দবাড়িয়া গ্রামের মৃত মিজানুর রহমানের মেয়েকে বিয়ে করার জন্য প্রায় অর্ধশত বরযাত্রীসহ আসেন। দুপুরের খাওয়া শেষে সন্ধ্যায় বিবাহ সম্পন্ন হয়। কিন্তু বিয়ে সম্পন্ন হওয়ার পরপরই নতুন বরের খালাতো বোন বিয়ের আসরে উপস্থিত হন। তিনি অভিযোগ করেন, তার সঙ্গে ৮ মাস আগে আসিফের বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। নতুন বরের পূর্বের বিয়ের ঘটনা জানার পরেই বিয়ের আসরেই ত্রিমুখী সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে বর, নববধূ, বরযাত্রী ও দাবি করা প্রথম স্ত্রীসহ অন্তত ৮ জন আহত হন।

খবর পেয়ে দর্শনা থানা পুলিশের একটি দল দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়। পরে গ্রাম্য সালিশ বৈঠকে বিয়ের আসরেই নববধূর মোহরানার ৭৫ হাজার টাকাসহ ক্ষতিপূরণ বাবদ সাড়ে ৪ লাখ টাকা বরকে পরিশোধ করার নির্দেশ দেন এবং বিবাহের কাজীর মাধ্যমেই নব বর-বধূর তালাক সম্পন্ন করানো হয়।

এ বিষয়ে দর্শনা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বিপ্লব কুমার সাহা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, থানার এসআই ফাহিম হোসেনের নেতৃত্বে একটি টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি শান্ত করে। এছাড়াও গত ৮ মাস আগে দামুড়হুদার জয়রামপুর গ্রামের বাসিন্দা বরের খালাতো বোনের সঙ্গে যে বিয়ে হয়েছিল, তার বৈধ প্রথম স্ত্রী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রথম স্ত্রীর বাবা আজ (গতকাল বুধবার) থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

বিয়ের আসরেই নববধূকে তালাক, নেপথ্যে যা ছিল

আপলোড টাইম : ১০:০৯:৪২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪

চুয়াডাঙ্গার দর্শনায় বিয়ের আসরেই নববধূকে তালাক দিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছেন আসিফ রহমান (২২) নামে এক যুবক। গত রোববার ঈদুল আজহার আগের দিন সন্ধ্যায় দর্শনা ধানাধীন আকন্দবাড়িয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। তবে ক্ষতিপূরণ বাবদ নববধূকে ৭৫ হাজার টাকা দেনমোহরসহ মোট সাড়ে ৪ লাখ টাকা গচ্ছা দিতে হয়েছে বরকে। বর আসিফ রহমান জেলার জীবননগর উপজেলার সিংনগর গ্রামের শমসের আলীর ছেলে।

পুলিশ সূত্র জানায়, রোববার বিকেলে আসিফ রহমান পার্শ্ববর্তী আকন্দবাড়িয়া গ্রামের মৃত মিজানুর রহমানের মেয়েকে বিয়ে করার জন্য প্রায় অর্ধশত বরযাত্রীসহ আসেন। দুপুরের খাওয়া শেষে সন্ধ্যায় বিবাহ সম্পন্ন হয়। কিন্তু বিয়ে সম্পন্ন হওয়ার পরপরই নতুন বরের খালাতো বোন বিয়ের আসরে উপস্থিত হন। তিনি অভিযোগ করেন, তার সঙ্গে ৮ মাস আগে আসিফের বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। নতুন বরের পূর্বের বিয়ের ঘটনা জানার পরেই বিয়ের আসরেই ত্রিমুখী সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে বর, নববধূ, বরযাত্রী ও দাবি করা প্রথম স্ত্রীসহ অন্তত ৮ জন আহত হন।

খবর পেয়ে দর্শনা থানা পুলিশের একটি দল দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়। পরে গ্রাম্য সালিশ বৈঠকে বিয়ের আসরেই নববধূর মোহরানার ৭৫ হাজার টাকাসহ ক্ষতিপূরণ বাবদ সাড়ে ৪ লাখ টাকা বরকে পরিশোধ করার নির্দেশ দেন এবং বিবাহের কাজীর মাধ্যমেই নব বর-বধূর তালাক সম্পন্ন করানো হয়।

এ বিষয়ে দর্শনা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বিপ্লব কুমার সাহা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, থানার এসআই ফাহিম হোসেনের নেতৃত্বে একটি টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি শান্ত করে। এছাড়াও গত ৮ মাস আগে দামুড়হুদার জয়রামপুর গ্রামের বাসিন্দা বরের খালাতো বোনের সঙ্গে যে বিয়ে হয়েছিল, তার বৈধ প্রথম স্ত্রী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রথম স্ত্রীর বাবা আজ (গতকাল বুধবার) থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।