ইপেপার । আজরবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঝিনাইদহে মিণ্টু আটকের পক্ষে-বিপক্ষে আ.লীগের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি

৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম, উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ

ঝিনাইদহ অফিস:
  • আপলোড টাইম : ০৮:২৬:৪৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪
  • / ২৬ বার পড়া হয়েছে

ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুল করিম মিণ্টু আটক হওয়ার পর আওয়ামী লীগে পাল্টাপাল্টি বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। মিণ্টু অনুসারীরা গতকাল বুধবার দুপুরে ঝিনাইদহ শহরের পায়রা চত্বরে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন। এসময় মিণ্টুকে মুক্তির ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছেন তারা। অন্যদিকে সাইদুল করিম মিণ্টু আটক হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করে কালীগঞ্জ শহরে মিছিল ও সমাবেশ করেছে এমপি আনারের অনুসারীরা। হত্যার মাস্টারমাইন্ড আক্তারুজ্জামান শাহীন নয়, বরং সাইদুল করিম মিণ্টুই হত্যার মূল ষড়যন্ত্রকারী বলে দাবি করেছেন তারা। এদিকে, মিণ্টু আটকের পর আওয়ামী লীগের পক্ষে-বিপক্ষে পাল্টাপাল্টি কর্মসূচিতে উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ করছে জেলাজুড়ে।

‘জনতার নেতা মিণ্টু ভাইকে জনতার নিকট ফিরিয়ে দেওয়ার দাবিতে’ গতকাল বুধবার দুপুর ১২টার দিকে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ সংগঠনের কয়েকশ নেতা-কর্মী। পায়রা চত্বর থেকে ঝিনাইদহ কেসি কলেজ পর্যন্ত বিস্তৃত মানববন্ধন কর্মসূচিতে জেলা আওয়ামী লীগের নেতা মাসুদ আহম্মেদ সনজু, আনিছুর রহমান খোকা, আব্দুল মালেক মিনা, রাসেল, রানা হামিদ, উজ্জল ও আল ইমরান বক্তব্য দেন।

মানববন্ধন শেষে এক বিক্ষোভ সমাবেশে ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ বলেন, সাইদুল করিম মিণ্টু ঝিনাইদহের গণমানুষের নেতা। তাকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে জনতার মাঝে ফিরিয়ে দেওয়া না হলে কঠোর কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে। এর আগে মঙ্গলবার মধ্যরাতে দলের নেতা-কর্মীরা মিণ্টু আটকের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেন।

এদিকে মিণ্টু আটক হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করে গত মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে কালীগঞ্জ শহরের শহরের ভূষণ স্কুল সড়কের দলীয় কার্যালয় থেকে মিছিলটি বের করেন এমপি আনার অনুসারীরা। মিছিলটি কালীগঞ্জ শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে আবার একই স্থানে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শিবলী নোমানী, পৌরসভার মেয়র আশরাফুল আলম, ভাইস চেয়ারম্যান শফিকুজ্জামান রাসেল ও ইউপি চেয়ারম্যান নাসির চৌধুরী বক্তব্য দেন।

সমাবেশে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শিবলী নোমানী বলেন, ‘জনপ্রিয় এমপি আনারকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। এই হত্যার নেপথ্যে কারা সেটা আমরা পেয়েছি। জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক কাজী কামাল আহমেদ বাবু ওরফে গ্যাস বাবুকে আটক করা হয়েছে। তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুল করিম মিণ্টুকেও আটক করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, হত্যার মাস্টারমাইন্ড আক্তারুজ্জামান শাহীন নয়, এই সাইদুল করিম মিণ্টুই হত্যার মূল ষড়যন্ত্রকারী।

সমাবেশে কালীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আশরাফুল আলম বলেন, এমপি আনার হত্যার মোটিভ ভিন্নখাতে নেওয়ার যে অপচেষ্টা করা হচ্ছিল, সাইদুল করিম মিণ্টু আটকের মধ্যদিয়ে তা পরিষ্কার হয়ে গেছে। কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের কেউ যদি এই হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত হয়, তাদেরও দ্রুত গ্রেপ্তার করতে হবে।

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

ঝিনাইদহে মিণ্টু আটকের পক্ষে-বিপক্ষে আ.লীগের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি

৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম, উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ

আপলোড টাইম : ০৮:২৬:৪৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪

ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুল করিম মিণ্টু আটক হওয়ার পর আওয়ামী লীগে পাল্টাপাল্টি বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। মিণ্টু অনুসারীরা গতকাল বুধবার দুপুরে ঝিনাইদহ শহরের পায়রা চত্বরে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন। এসময় মিণ্টুকে মুক্তির ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছেন তারা। অন্যদিকে সাইদুল করিম মিণ্টু আটক হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করে কালীগঞ্জ শহরে মিছিল ও সমাবেশ করেছে এমপি আনারের অনুসারীরা। হত্যার মাস্টারমাইন্ড আক্তারুজ্জামান শাহীন নয়, বরং সাইদুল করিম মিণ্টুই হত্যার মূল ষড়যন্ত্রকারী বলে দাবি করেছেন তারা। এদিকে, মিণ্টু আটকের পর আওয়ামী লীগের পক্ষে-বিপক্ষে পাল্টাপাল্টি কর্মসূচিতে উত্তপ্ত পরিস্থিতি বিরাজ করছে জেলাজুড়ে।

‘জনতার নেতা মিণ্টু ভাইকে জনতার নিকট ফিরিয়ে দেওয়ার দাবিতে’ গতকাল বুধবার দুপুর ১২টার দিকে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ সংগঠনের কয়েকশ নেতা-কর্মী। পায়রা চত্বর থেকে ঝিনাইদহ কেসি কলেজ পর্যন্ত বিস্তৃত মানববন্ধন কর্মসূচিতে জেলা আওয়ামী লীগের নেতা মাসুদ আহম্মেদ সনজু, আনিছুর রহমান খোকা, আব্দুল মালেক মিনা, রাসেল, রানা হামিদ, উজ্জল ও আল ইমরান বক্তব্য দেন।

মানববন্ধন শেষে এক বিক্ষোভ সমাবেশে ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ বলেন, সাইদুল করিম মিণ্টু ঝিনাইদহের গণমানুষের নেতা। তাকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে জনতার মাঝে ফিরিয়ে দেওয়া না হলে কঠোর কর্মসূচি গ্রহণ করা হবে। এর আগে মঙ্গলবার মধ্যরাতে দলের নেতা-কর্মীরা মিণ্টু আটকের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেন।

এদিকে মিণ্টু আটক হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করে গত মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে কালীগঞ্জ শহরের শহরের ভূষণ স্কুল সড়কের দলীয় কার্যালয় থেকে মিছিলটি বের করেন এমপি আনার অনুসারীরা। মিছিলটি কালীগঞ্জ শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে আবার একই স্থানে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শিবলী নোমানী, পৌরসভার মেয়র আশরাফুল আলম, ভাইস চেয়ারম্যান শফিকুজ্জামান রাসেল ও ইউপি চেয়ারম্যান নাসির চৌধুরী বক্তব্য দেন।

সমাবেশে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শিবলী নোমানী বলেন, ‘জনপ্রিয় এমপি আনারকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। এই হত্যার নেপথ্যে কারা সেটা আমরা পেয়েছি। জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক কাজী কামাল আহমেদ বাবু ওরফে গ্যাস বাবুকে আটক করা হয়েছে। তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুল করিম মিণ্টুকেও আটক করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, হত্যার মাস্টারমাইন্ড আক্তারুজ্জামান শাহীন নয়, এই সাইদুল করিম মিণ্টুই হত্যার মূল ষড়যন্ত্রকারী।

সমাবেশে কালীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আশরাফুল আলম বলেন, এমপি আনার হত্যার মোটিভ ভিন্নখাতে নেওয়ার যে অপচেষ্টা করা হচ্ছিল, সাইদুল করিম মিণ্টু আটকের মধ্যদিয়ে তা পরিষ্কার হয়ে গেছে। কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের কেউ যদি এই হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত হয়, তাদেরও দ্রুত গ্রেপ্তার করতে হবে।