ইপেপার । আজরবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গাংনীর বামন্দীতে ক্লিনিকে অবহেলায় নবজাতকের মৃত্যু

ক্লিনিক মালিকের এক বছরের জেল-জরিমানা

প্রতিবেদক, গাংনী:
  • আপলোড টাইম : ১০:০৪:৩২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪
  • / ৩৪ বার পড়া হয়েছে

মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার বামন্দী করবি ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নবজাতকের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনার পর ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ওই ক্লিনিকের মালিক জাহিদুল ইসলাম বিদ্যুৎকে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ক্লিনিকে বিভিন্ন ত্রুটি থাকাই ক্লিনিক মালিককে জেল ও জরিমানা করা হয়। গতকাল মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা আদায় ও কারাদণ্ড প্রদান করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাদির হোসেন শামীম।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে, গাংনী উপজেলার কল্যাপুর গ্রামের কালিতলা পাড়ার পিংকুর স্ত্রী রিভা খাতুনের (২২) প্রসব বেদনা শুরু হলে গতকাল ভোরে পরিবারের সদস্যরা তাকে বামন্দী করবি ক্লিনিকে ভর্তি করেন। এসময় ওই ক্লিনিকে কোনো চিকিৎসক ছিল না। ডাক্তার আসছে, আসবে, চলে এসেছে বলে আশ্বাস দিয়ে ওই রোগীকে প্রায় ছয় ঘণ্টা ভর্তি রাখেন ক্লিনিক মালিক কর্তৃপক্ষ। পরে বেলা দেড়টার দিকে সিজারিয়ান অপারেশন করেন গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার বিডি দাস। অপারেশনের পর পরিবারের সদস্যরা জানতে পারেন নবজাতকের মৃত্যু হয়েছে। নবজাতকের মৃত্যুর পর ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের স্বত্ত্বাধিকারী জাহিদুল ইসলাম বিদ্যুৎ তড়িঘড়ি করে রোগী ও নবজাতককে ক্লিনিক থেকে বের করে দেওয়ার চেষ্টা করলে রোগীর স্বজনরা জোরপূর্বক অবস্থান নেন।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছান গাংনী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাদির হোসেন শামীম ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সু-প্রভা রানী। এ বিষয়ে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সু-প্রভা রানী জানান, ডাক্তার আসার অজুহাতে সিজারিয়ান রোগীকে প্রায় ছয় ঘণ্টা হাসপাতালে রাখার অভিযোগের সত্যতা পেয়েছি। হাসপাতালের বৈধ কাগজপত্র না থাকার সত্যতাও স্বীকার করেন তিনি।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক গাংনী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাদির হোসেন শামীম জানান, ৬ ঘণ্টা রোগীকে আটকে রেখে তারপর সিজারিয়ান অপারেশনে নবজাতকের মৃত্যুর ঘটনায় অভিযোগের ভিত্তিতে ওই ক্লিনিকে অভিযান চালানো হয়। এসময় ভ্রাম্যমাণ আদালতে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ২০০৯ এর ৫২ ধারায় বামন্দী করবি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের স্বত্ত্বাধিকারী জাহিদুল ইসলাম বিদ্যুতকে নগদ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ও এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

গাংনীর বামন্দীতে ক্লিনিকে অবহেলায় নবজাতকের মৃত্যু

ক্লিনিক মালিকের এক বছরের জেল-জরিমানা

আপলোড টাইম : ১০:০৪:৩২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১২ জুন ২০২৪

মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার বামন্দী করবি ক্লিনিক অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে নবজাতকের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনার পর ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ওই ক্লিনিকের মালিক জাহিদুল ইসলাম বিদ্যুৎকে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ক্লিনিকে বিভিন্ন ত্রুটি থাকাই ক্লিনিক মালিককে জেল ও জরিমানা করা হয়। গতকাল মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা আদায় ও কারাদণ্ড প্রদান করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাদির হোসেন শামীম।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে, গাংনী উপজেলার কল্যাপুর গ্রামের কালিতলা পাড়ার পিংকুর স্ত্রী রিভা খাতুনের (২২) প্রসব বেদনা শুরু হলে গতকাল ভোরে পরিবারের সদস্যরা তাকে বামন্দী করবি ক্লিনিকে ভর্তি করেন। এসময় ওই ক্লিনিকে কোনো চিকিৎসক ছিল না। ডাক্তার আসছে, আসবে, চলে এসেছে বলে আশ্বাস দিয়ে ওই রোগীকে প্রায় ছয় ঘণ্টা ভর্তি রাখেন ক্লিনিক মালিক কর্তৃপক্ষ। পরে বেলা দেড়টার দিকে সিজারিয়ান অপারেশন করেন গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার বিডি দাস। অপারেশনের পর পরিবারের সদস্যরা জানতে পারেন নবজাতকের মৃত্যু হয়েছে। নবজাতকের মৃত্যুর পর ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের স্বত্ত্বাধিকারী জাহিদুল ইসলাম বিদ্যুৎ তড়িঘড়ি করে রোগী ও নবজাতককে ক্লিনিক থেকে বের করে দেওয়ার চেষ্টা করলে রোগীর স্বজনরা জোরপূর্বক অবস্থান নেন।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছান গাংনী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাদির হোসেন শামীম ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সু-প্রভা রানী। এ বিষয়ে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সু-প্রভা রানী জানান, ডাক্তার আসার অজুহাতে সিজারিয়ান রোগীকে প্রায় ছয় ঘণ্টা হাসপাতালে রাখার অভিযোগের সত্যতা পেয়েছি। হাসপাতালের বৈধ কাগজপত্র না থাকার সত্যতাও স্বীকার করেন তিনি।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক গাংনী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নাদির হোসেন শামীম জানান, ৬ ঘণ্টা রোগীকে আটকে রেখে তারপর সিজারিয়ান অপারেশনে নবজাতকের মৃত্যুর ঘটনায় অভিযোগের ভিত্তিতে ওই ক্লিনিকে অভিযান চালানো হয়। এসময় ভ্রাম্যমাণ আদালতে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ২০০৯ এর ৫২ ধারায় বামন্দী করবি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের স্বত্ত্বাধিকারী জাহিদুল ইসলাম বিদ্যুতকে নগদ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ও এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।