ইপেপার । আজবৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ ও ভারত সম্পর্ক আরও দৃঢ় করার অঙ্গীকার

সমীকরণ প্রতিবেদন
  • আপলোড টাইম : ০৩:৩৪:৩০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০২৪
  • / ৪ বার পড়া হয়েছে

বাংলাদেশ ও ভারতের বিদ্যমান সম্পর্ক আরও দৃঢ় করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। তিনি বলেছেন, ‘দুই নেতা আশা প্রকাশ করেছেন, বিদ্যমান দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আগামী দিনগুলোতে আরও গভীর হবে।’ টানা তিন মেয়াদে লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি নেতৃত্বাধীন জোট জয়ী হওয়ার পর নরেন্দ্র মোদি আবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন গত রোববার সন্ধ্যায়। ওই অনুষ্ঠানের পর দুই প্রধানমন্ত্রীর একান্ত বৈঠকে ওই প্রত্যাশা ব্যক্ত করা হয় বলে বাসস জানিয়েছে। গতকাল সোমবার সকালে নয়া দিল্লিতে এক ব্রিফিংয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদির দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, অত্যন্ত ‘উষ্ণ ও বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশে’ রাষ্ট্রপতি ভবনে দুই সরকার প্রধানের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। নরেন্দ্র মোদিকে সুবিধাজনক সময়ে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন শেখ হাসিনা।
পরে তারা রাষ্ট্রপতি ভবনে ভোজসভায় যোগ দেন জানিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, ভারতের রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মু আয়োজিত ওই ভোজসভায় ভারতের মন্ত্রিসভার সদস্যরা, বাংলাদেশের প্রতিনিধিদল ও আমন্ত্রিত সরকার প্রধানরা অংশ নেন। সেখানে তারা সংক্ষিপ্ত মতবিনিময় করেন। এক প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বহুমুখী সম্পর্ক রয়েছে। তিনি বলেন, ‘দুই দেশের মধ্যে অনেক বিষয় জড়িত। যেহেতু উভয় সরকার দেশ পরিচালনায় অব্যাহত রয়েছেন, সেহেতু একসঙ্গে কাজ করার কিছু সুবিধা আছে।’ হাছান মাহমুদ বলেন, দুই দেশের জনগণ বিভিন্ন দিক থেকে উপকৃত হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের বহুমাত্রিক সম্পর্ক ভবিষ্যতে আরও সম্প্রসারিত এবং আরও গভীর হবে।’ ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার মুস্তাফিজুর রহমান, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব নাঈমুল ইসলাম খান এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতির সঙ্গে শেখ হাসিনার সাক্ষাৎ:
এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতি রনিল বিক্রমাসিংহের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। গতকাল সোমবার নয়াদিল্লির আইটিসি মৌর্য হোটেলে এ সাক্ষাৎ অনুষ্ঠিত হয়। নয়াদিল্লিতে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ তথ্য জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাতে দ্বিপাক্ষিক বিভিন্ন বিষয়ে আলাপ হয়েছে। সে দেশের চরম অর্থনৈতিক ক্রান্তিকালে বাংলাদেশের সহায়তার জন্য রনিল বিক্রমাসিংহে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ দিয়েছেন। কৃষি খাতে বাংলাদেশের প্রযুক্তি এবং পর্যটন খাতে শ্রীলঙ্কার দক্ষতা ও বিনিয়োগগত সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা হয়। শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সুবিধাজনক সময়ে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান।
ভুটান থেকে বিদ্যুৎ কেনার আগ্রহ পুনর্ব্যক্ত:
এদিকে ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানির বিষয়ে বাংলাদেশের আগ্রহের কথা পুনর্ব্যক্ত করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দিল্লিতে ভুটানের প্রধানমন্ত্রী দাশো শেরিং তোবগের সঙ্গে সাক্ষাতে তিনি এ কথা পুনর্ব্যক্ত করেন। গতকাল সোমবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, ভুটানের প্রধানমন্ত্রী দাশো শেরিং তোবগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দিল্লিতে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাতে শেখ হাসিনা ভারতের মধ্যদিয়ে ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানির বিষয়ে বাংলাদেশের আগ্রহের কথা পুনর্ব্যক্ত করেন। এ জন্য প্রয়োজনীয় ত্রিপক্ষীয় চুক্তি নিয়ে ইতোমধ্যেই ভারতের সঙ্গে আলোচনার কথা জানান। ভুটানের প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে প্রস্তুত থাকার কথা জানিয়ে তার দেশে বার্ন ইউনিট নির্মাণ এবং এক বছরের জন্য প্রয়োজনীয় ওষুধ দেওয়ার জন্য বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দেন।
শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন সোনিয়া গান্ধী:
এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন ভারতের পার্লামেন্টের রাজ্যসভা সদস্য ও কংগ্রেস পার্লামেন্টারি পার্টির চেয়ারপারসন সোনিয়া গান্ধী। গততাল সোমবার দিল্লির আইটিসি মৌর্য হোটেলে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তিনি। এ সময় তার ছেলে ও লোকসভার বিরোধীদলীয় নেতা রাহুল গান্ধী এবং ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল কংগ্রেস পার্টির জেনারেল সেক্রেটারি প্রিয়াঙ্কা গান্ধীও সঙ্গে ছিলেন।

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

বাংলাদেশ ও ভারত সম্পর্ক আরও দৃঢ় করার অঙ্গীকার

আপলোড টাইম : ০৩:৩৪:৩০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০২৪

বাংলাদেশ ও ভারতের বিদ্যমান সম্পর্ক আরও দৃঢ় করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। তিনি বলেছেন, ‘দুই নেতা আশা প্রকাশ করেছেন, বিদ্যমান দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আগামী দিনগুলোতে আরও গভীর হবে।’ টানা তিন মেয়াদে লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি নেতৃত্বাধীন জোট জয়ী হওয়ার পর নরেন্দ্র মোদি আবার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন গত রোববার সন্ধ্যায়। ওই অনুষ্ঠানের পর দুই প্রধানমন্ত্রীর একান্ত বৈঠকে ওই প্রত্যাশা ব্যক্ত করা হয় বলে বাসস জানিয়েছে। গতকাল সোমবার সকালে নয়া দিল্লিতে এক ব্রিফিংয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদির দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, অত্যন্ত ‘উষ্ণ ও বন্ধুত্বপূর্ণ পরিবেশে’ রাষ্ট্রপতি ভবনে দুই সরকার প্রধানের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। নরেন্দ্র মোদিকে সুবিধাজনক সময়ে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন শেখ হাসিনা।
পরে তারা রাষ্ট্রপতি ভবনে ভোজসভায় যোগ দেন জানিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, ভারতের রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মু আয়োজিত ওই ভোজসভায় ভারতের মন্ত্রিসভার সদস্যরা, বাংলাদেশের প্রতিনিধিদল ও আমন্ত্রিত সরকার প্রধানরা অংশ নেন। সেখানে তারা সংক্ষিপ্ত মতবিনিময় করেন। এক প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বহুমুখী সম্পর্ক রয়েছে। তিনি বলেন, ‘দুই দেশের মধ্যে অনেক বিষয় জড়িত। যেহেতু উভয় সরকার দেশ পরিচালনায় অব্যাহত রয়েছেন, সেহেতু একসঙ্গে কাজ করার কিছু সুবিধা আছে।’ হাছান মাহমুদ বলেন, দুই দেশের জনগণ বিভিন্ন দিক থেকে উপকৃত হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের বহুমাত্রিক সম্পর্ক ভবিষ্যতে আরও সম্প্রসারিত এবং আরও গভীর হবে।’ ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার মুস্তাফিজুর রহমান, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব নাঈমুল ইসলাম খান এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতির সঙ্গে শেখ হাসিনার সাক্ষাৎ:
এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতি রনিল বিক্রমাসিংহের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। গতকাল সোমবার নয়াদিল্লির আইটিসি মৌর্য হোটেলে এ সাক্ষাৎ অনুষ্ঠিত হয়। নয়াদিল্লিতে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ তথ্য জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাতে দ্বিপাক্ষিক বিভিন্ন বিষয়ে আলাপ হয়েছে। সে দেশের চরম অর্থনৈতিক ক্রান্তিকালে বাংলাদেশের সহায়তার জন্য রনিল বিক্রমাসিংহে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ দিয়েছেন। কৃষি খাতে বাংলাদেশের প্রযুক্তি এবং পর্যটন খাতে শ্রীলঙ্কার দক্ষতা ও বিনিয়োগগত সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা হয়। শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সুবিধাজনক সময়ে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান।
ভুটান থেকে বিদ্যুৎ কেনার আগ্রহ পুনর্ব্যক্ত:
এদিকে ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানির বিষয়ে বাংলাদেশের আগ্রহের কথা পুনর্ব্যক্ত করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দিল্লিতে ভুটানের প্রধানমন্ত্রী দাশো শেরিং তোবগের সঙ্গে সাক্ষাতে তিনি এ কথা পুনর্ব্যক্ত করেন। গতকাল সোমবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, ভুটানের প্রধানমন্ত্রী দাশো শেরিং তোবগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দিল্লিতে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাতে শেখ হাসিনা ভারতের মধ্যদিয়ে ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানির বিষয়ে বাংলাদেশের আগ্রহের কথা পুনর্ব্যক্ত করেন। এ জন্য প্রয়োজনীয় ত্রিপক্ষীয় চুক্তি নিয়ে ইতোমধ্যেই ভারতের সঙ্গে আলোচনার কথা জানান। ভুটানের প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে প্রস্তুত থাকার কথা জানিয়ে তার দেশে বার্ন ইউনিট নির্মাণ এবং এক বছরের জন্য প্রয়োজনীয় ওষুধ দেওয়ার জন্য বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দেন।
শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন সোনিয়া গান্ধী:
এদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন ভারতের পার্লামেন্টের রাজ্যসভা সদস্য ও কংগ্রেস পার্লামেন্টারি পার্টির চেয়ারপারসন সোনিয়া গান্ধী। গততাল সোমবার দিল্লির আইটিসি মৌর্য হোটেলে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তিনি। এ সময় তার ছেলে ও লোকসভার বিরোধীদলীয় নেতা রাহুল গান্ধী এবং ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল কংগ্রেস পার্টির জেনারেল সেক্রেটারি প্রিয়াঙ্কা গান্ধীও সঙ্গে ছিলেন।