ইপেপার । আজবৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

১ জুলাই থেকে সর্বাত্মক কর্মবিরতির ঘোষণা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের

সমীকরণ প্রতিবেদন
  • আপলোড টাইম : ১১:৫৮:৩০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৫ জুন ২০২৪
  • / ২১ বার পড়া হয়েছে

সর্বজনীন পেনশনের ‘প্রত্যয় স্কিম’ প্রত্যাহার করা না হলে ১ জুলাই থেকে সারা দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা ‘সর্বাত্মক কর্মবিরতিতে’ যাবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনের সামনে অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালন শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন সংগঠনটির নেতৃবৃন্দ। প্রত্যয় স্কিম প্রত্যাহার করে পূর্বের পেনশন স্কিম চালু রাখা, ‘সুপার গ্রেডে’ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের অন্তর্ভুক্তি এবং শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র বেতনস্কেল কার্যকরের দাবিও জানিয়েছেন তারা।
শিক্ষকদের সংগঠনটির ঘোষণা অনুযায়ী, আগামী ২৫, ২৬ ও ২৭ জুন তারা অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালন করবেন। ৩০ জুন পূর্ণদিবস কর্মবিরতি পালন করবেন। তবে পরীক্ষা কর্মবিরতির আওতামুক্ত থাকবে। এরপরও দাবি আদায় না হলে ১ জুলাই থেকে দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়সমূহে সর্বাত্মক কর্মবিরতি পালন করা হবে। ফেডারেশনের মহাসচিব অধ্যাপক মো. নিজামুল হক ভূঁইয়া বলেন, ‘বিবৃতি প্রদান, গণস্বাক্ষর সংগ্রহ, মানববন্ধন, স্মারকলিপি প্রদান এবং অবস্থান কর্মসূচির মতো শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করা হলেও এখন পর্যন্ত সরকারের তরফ থেকে কোনো ধরনের কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি। শিক্ষকদের সঙ্গে দায়িত্বশীল কোনো পক্ষ যোগাযোগও করেননি।
সর্বাত্মক কর্মসূচি ব্যাখ্যা করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জিনাত হুদা বলেন, ‘পহেলা জুলাই থেকে কোনো পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস হবে না। চেয়ারম্যানরা সকল বিভাগ বন্ধ করে দেবেন। কোনো পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে না। হলের হাউজ টিউটররা কোনো হলে যাবেন না। বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনো সেমিনার, সিম্পোজিয়াম, গবেষণা, ওয়ার্কশপ তারা করবেন না। বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্ট্রাল লাইব্রেরি ও সকল গবেষণাগার বন্ধ থাকবে। সকল একাডেমিক এবং প্রশাসনিক কার্যক্রম বন্ধ করা হবে।’

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

১ জুলাই থেকে সর্বাত্মক কর্মবিরতির ঘোষণা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের

আপলোড টাইম : ১১:৫৮:৩০ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৫ জুন ২০২৪

সর্বজনীন পেনশনের ‘প্রত্যয় স্কিম’ প্রত্যাহার করা না হলে ১ জুলাই থেকে সারা দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা ‘সর্বাত্মক কর্মবিরতিতে’ যাবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনের সামনে অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালন শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন সংগঠনটির নেতৃবৃন্দ। প্রত্যয় স্কিম প্রত্যাহার করে পূর্বের পেনশন স্কিম চালু রাখা, ‘সুপার গ্রেডে’ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের অন্তর্ভুক্তি এবং শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র বেতনস্কেল কার্যকরের দাবিও জানিয়েছেন তারা।
শিক্ষকদের সংগঠনটির ঘোষণা অনুযায়ী, আগামী ২৫, ২৬ ও ২৭ জুন তারা অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালন করবেন। ৩০ জুন পূর্ণদিবস কর্মবিরতি পালন করবেন। তবে পরীক্ষা কর্মবিরতির আওতামুক্ত থাকবে। এরপরও দাবি আদায় না হলে ১ জুলাই থেকে দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়সমূহে সর্বাত্মক কর্মবিরতি পালন করা হবে। ফেডারেশনের মহাসচিব অধ্যাপক মো. নিজামুল হক ভূঁইয়া বলেন, ‘বিবৃতি প্রদান, গণস্বাক্ষর সংগ্রহ, মানববন্ধন, স্মারকলিপি প্রদান এবং অবস্থান কর্মসূচির মতো শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করা হলেও এখন পর্যন্ত সরকারের তরফ থেকে কোনো ধরনের কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি। শিক্ষকদের সঙ্গে দায়িত্বশীল কোনো পক্ষ যোগাযোগও করেননি।
সর্বাত্মক কর্মসূচি ব্যাখ্যা করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জিনাত হুদা বলেন, ‘পহেলা জুলাই থেকে কোনো পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস হবে না। চেয়ারম্যানরা সকল বিভাগ বন্ধ করে দেবেন। কোনো পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে না। হলের হাউজ টিউটররা কোনো হলে যাবেন না। বিশ্ববিদ্যালয়ে কোনো সেমিনার, সিম্পোজিয়াম, গবেষণা, ওয়ার্কশপ তারা করবেন না। বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্ট্রাল লাইব্রেরি ও সকল গবেষণাগার বন্ধ থাকবে। সকল একাডেমিক এবং প্রশাসনিক কার্যক্রম বন্ধ করা হবে।’