ইপেপার । আজবৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাইসিকে ইরানে শেষ শ্রদ্ধা, দুর্ঘটনার তদন্ত চলছে

নিরাপত্তা পরিষদে এক মিনিটের নীরবতা, ‘লজ্জাকর’ বলেছে ইসরাইল

সমীকরণ প্রতিবেদন
  • আপলোড টাইম : ১১:৫৬:০২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪
  • / ১৩ বার পড়া হয়েছে

হেলিকপটার দুর্ঘটনায় নিহত ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীসহ আট জনকে শেষবারের মতো শ্রদ্ধা জানাচ্ছে দেশবাসী। গতকাল মঙ্গলবার তাবরিজ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর্ব শুরু হয়। আজ দ্বিতীয় জানাজা শেষে কাল বৃহস্পতিবার সবাইকে দাফন করা হবে। এদিকে প্রেসিডেন্ট রাইসির স্মরণে গতকাল জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। এই শ্রদ্ধা নিবেদনকে ইসরাইল ‘লজ্জাজনক’ বলে আখ্যা দিয়েছে। অন্যদিকে, ইরানের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুর একদিন পর অবশেষে শোক জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। সোমবার এক বিবৃতিতে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ম্যাথিউ মিলার নিহতদের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক শোক জানান।

শেষবারের মতো শ্রদ্ধা

গতকাল মঙ্গলবার সকালে প্রেসিডেন্ট রাইসিসহ আট জনের শ্রদ্ধা নিবেদন শুরু হয়। ইরানের পূর্ব আজারবাইজান প্রদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় শহর তাবরিজে শ্রদ্ধা নিবেদনের কাজ শুরু হয়। সোমবারই তাবরিজ শহরে সবার মরদেহ আনা হয়। তাবরিজ শহরে প্রিয় নেতা রাইসির জানাজায় অংশ নিতে জড়ো হন লাখো মানুষ। এমন মৃত্যু যেন কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না তার সমর্থকরা। প্রেসিডেন্ট রাইসিসহ অন্যদের কফিনগুলোতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান দেশবাসী। এ সময় অনেককে কাঁদতে দেখা যায়। সকালে শ্রদ্ধা নিবেদন ও প্রথম জানাজা শেষে সন্ধ্যায় পবিত্র শহর হিসেবে পরিচিত কুওমে নেওয়া হয়। সেখানে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে রাতে তেহরানের উদ্দেশ্যে মরদেহ নিয়ে একটি বিশেষ বিমান যাত্রা করে। আজ বুধবার সকালে তেহরান ইউনিভার্সিটির স্বাধীনতা চত্বরে প্রেসিডেন্ট রাইসিসহ সবার স্মরণে প্রার্থনার আয়োজন করা হবে। এতে নেতৃত্ব দেবেন দেশটির আধ্যাত্মিক গুরু আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি। আজ সন্ধ্যায় তেহরানে শহিদদের স্মরণে এক অনুষ্ঠানে বিদেশি কর্মকর্তা ও উচ্চপদস্থ প্রতিনিধিরা যোগ দেবেন। কাল বৃহস্পতিবার দুপুরে পবিত্র শহর মাশাহদে দাফন করা হবে প্রেসিডেন্ট রাইসিকে। শহরটিতে ইমান রেজার সমাধি রয়েছে। দেশটিতে গতকাল থেকে পাঁচ দিনের শোক শুরু হয়েছে।

এদিকে রাইসির হেলিকপটার বিধ্বস্ত হওয়া দুর্ঘটনা নাকি পরিকল্পিত, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছেই। এরই মধ্যে তদন্তও শুরু হয়েছে। দুর্ঘটনার তদন্তের জন্য উচ্চপদস্থ একটি প্রতিনিধিদলকে দায়িত্ব দিয়েছেন ইরানের সশস্ত্র বাহিনীর চিফ অব স্টাফ মেজর জেনারেল মোহাম্মদ বাঘেরি। একটি কমিটিও গঠন করা হয়েছে। ইতিমধ্যে দুর্ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্তও করেছে কমিটি।

ইরানের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানায়, স্থানীয় সময় রবিবার বিকালে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় জলফা পার্বত্য এলাকায় রাইসিকে বহনকারী হেলিকপটার দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। হেলিকপটারে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমির-আব্দোল্লাহিয়ানসহ আরো ছয় জন ছিলেন। তারা সবাই মৃত্যুবরণ করেন। ৬৩ বছর বয়সি রাইসিকে সর্বোচ্চ নেতার উত্তরসূরি হিসেবে ভাবতেন অনেকে। ২৮ জুন দেশটিতে নতুন রাষ্ট্রপতি নির্বাচন হবে বলে জানিয়েছে রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম। অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালনের জন্য ইতিমধ্যেই ভাইস-প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মোখবারকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। প্রেসিডেন্ট রাইসির মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়ার পর মোখবারের নাম অনুমোদন করেন সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি। এছাড়া, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আলি বাঘেরি কানিকে ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

নিরাপত্তা পরিষদে রাইসিকে স্মরণ

ইরানের প্রেসিডেন্ট রাইসিসহ তার সফরসঙ্গীদের স্মরণে সোমবার নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যরা দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন। যুক্তরাষ্ট্রও এতে যোগ দেয়। কিন্তু এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে জাতিসংঘে নিযুক্ত ইসরাইলের রাষ্ট্রদূত গিলাদ এরদান। তিনি এই পদক্ষেপকে ‘লজ্জাজনক ঘটনা’ হিসেবে উল্লেখ করে বলেছেন, ‘আপনারা ঠিকই দেখেছেন। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ ইরানের গণহত্যাকারী প্রেসিডেন্ট রাইসির স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করেছে। -তাসনিম নিউজ ও আলজাজিরা

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

রাইসিকে ইরানে শেষ শ্রদ্ধা, দুর্ঘটনার তদন্ত চলছে

নিরাপত্তা পরিষদে এক মিনিটের নীরবতা, ‘লজ্জাকর’ বলেছে ইসরাইল

আপলোড টাইম : ১১:৫৬:০২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪

হেলিকপটার দুর্ঘটনায় নিহত ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীসহ আট জনকে শেষবারের মতো শ্রদ্ধা জানাচ্ছে দেশবাসী। গতকাল মঙ্গলবার তাবরিজ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর্ব শুরু হয়। আজ দ্বিতীয় জানাজা শেষে কাল বৃহস্পতিবার সবাইকে দাফন করা হবে। এদিকে প্রেসিডেন্ট রাইসির স্মরণে গতকাল জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। এই শ্রদ্ধা নিবেদনকে ইসরাইল ‘লজ্জাজনক’ বলে আখ্যা দিয়েছে। অন্যদিকে, ইরানের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুর একদিন পর অবশেষে শোক জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। সোমবার এক বিবৃতিতে মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ম্যাথিউ মিলার নিহতদের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক শোক জানান।

শেষবারের মতো শ্রদ্ধা

গতকাল মঙ্গলবার সকালে প্রেসিডেন্ট রাইসিসহ আট জনের শ্রদ্ধা নিবেদন শুরু হয়। ইরানের পূর্ব আজারবাইজান প্রদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় শহর তাবরিজে শ্রদ্ধা নিবেদনের কাজ শুরু হয়। সোমবারই তাবরিজ শহরে সবার মরদেহ আনা হয়। তাবরিজ শহরে প্রিয় নেতা রাইসির জানাজায় অংশ নিতে জড়ো হন লাখো মানুষ। এমন মৃত্যু যেন কিছুতেই মেনে নিতে পারছেন না তার সমর্থকরা। প্রেসিডেন্ট রাইসিসহ অন্যদের কফিনগুলোতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান দেশবাসী। এ সময় অনেককে কাঁদতে দেখা যায়। সকালে শ্রদ্ধা নিবেদন ও প্রথম জানাজা শেষে সন্ধ্যায় পবিত্র শহর হিসেবে পরিচিত কুওমে নেওয়া হয়। সেখানে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে রাতে তেহরানের উদ্দেশ্যে মরদেহ নিয়ে একটি বিশেষ বিমান যাত্রা করে। আজ বুধবার সকালে তেহরান ইউনিভার্সিটির স্বাধীনতা চত্বরে প্রেসিডেন্ট রাইসিসহ সবার স্মরণে প্রার্থনার আয়োজন করা হবে। এতে নেতৃত্ব দেবেন দেশটির আধ্যাত্মিক গুরু আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি। আজ সন্ধ্যায় তেহরানে শহিদদের স্মরণে এক অনুষ্ঠানে বিদেশি কর্মকর্তা ও উচ্চপদস্থ প্রতিনিধিরা যোগ দেবেন। কাল বৃহস্পতিবার দুপুরে পবিত্র শহর মাশাহদে দাফন করা হবে প্রেসিডেন্ট রাইসিকে। শহরটিতে ইমান রেজার সমাধি রয়েছে। দেশটিতে গতকাল থেকে পাঁচ দিনের শোক শুরু হয়েছে।

এদিকে রাইসির হেলিকপটার বিধ্বস্ত হওয়া দুর্ঘটনা নাকি পরিকল্পিত, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছেই। এরই মধ্যে তদন্তও শুরু হয়েছে। দুর্ঘটনার তদন্তের জন্য উচ্চপদস্থ একটি প্রতিনিধিদলকে দায়িত্ব দিয়েছেন ইরানের সশস্ত্র বাহিনীর চিফ অব স্টাফ মেজর জেনারেল মোহাম্মদ বাঘেরি। একটি কমিটিও গঠন করা হয়েছে। ইতিমধ্যে দুর্ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্তও করেছে কমিটি।

ইরানের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমগুলো জানায়, স্থানীয় সময় রবিবার বিকালে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় জলফা পার্বত্য এলাকায় রাইসিকে বহনকারী হেলিকপটার দুর্ঘটনার কবলে পড়ে। হেলিকপটারে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমির-আব্দোল্লাহিয়ানসহ আরো ছয় জন ছিলেন। তারা সবাই মৃত্যুবরণ করেন। ৬৩ বছর বয়সি রাইসিকে সর্বোচ্চ নেতার উত্তরসূরি হিসেবে ভাবতেন অনেকে। ২৮ জুন দেশটিতে নতুন রাষ্ট্রপতি নির্বাচন হবে বলে জানিয়েছে রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম। অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালনের জন্য ইতিমধ্যেই ভাইস-প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মোখবারকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। প্রেসিডেন্ট রাইসির মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়ার পর মোখবারের নাম অনুমোদন করেন সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি। এছাড়া, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আলি বাঘেরি কানিকে ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

নিরাপত্তা পরিষদে রাইসিকে স্মরণ

ইরানের প্রেসিডেন্ট রাইসিসহ তার সফরসঙ্গীদের স্মরণে সোমবার নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যরা দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন। যুক্তরাষ্ট্রও এতে যোগ দেয়। কিন্তু এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে জাতিসংঘে নিযুক্ত ইসরাইলের রাষ্ট্রদূত গিলাদ এরদান। তিনি এই পদক্ষেপকে ‘লজ্জাজনক ঘটনা’ হিসেবে উল্লেখ করে বলেছেন, ‘আপনারা ঠিকই দেখেছেন। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ ইরানের গণহত্যাকারী প্রেসিডেন্ট রাইসির স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করেছে। -তাসনিম নিউজ ও আলজাজিরা