চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ২৬ আগস্ট ২০১৭

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মহাসড়ক

সমীকরণ প্রতিবেদন
আগস্ট ২৬, ২০১৭ ৮:০৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

বন্যা ও টানা বৃষ্টির কারণে দেশের প্রধান প্রধান সড়ক-মহাসড়ক ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় ঈদযাত্রায় চরম ভোগান্তির আশঙ্কা করছে মানুষ। আগামী ২ সেপ্টেম্বর পবিত্র ঈদুল আজহা সামনে রেখে শিগগিরই মানুষের ঘরমুখী ঈদযাত্রা শুরু হবে। এজন্য সড়ক, রেল, নৌ ও আকাশপথ- সব মাধ্যমেই চাপ বাড়বে। তবে দেশে সড়কপথেই সবচেয়ে বেশি মানুষ যাতায়াত করে থাকে। ঈদযাত্রায়ও সড়কের ওপর চাপ পড়বে সবচেয়ে বেশি। জানা যায়, এবারের বন্যায় দেশে ৩৯ জেলার ১ হাজার ১৭৭ কিলোমিটার সড়ক-মহাসড়ক ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অনেক কালভার্ট ও সেতুও। ¯্রােতের তোড়ে ১৮টি সড়ক পয়েন্ট ভেঙে ভেসে গেছে। আরও ২৩টি পয়েন্টে সড়কের ওপর পানি প্রবাহিত হচ্ছে। সড়কের অনেক স্থানে পিচঢালাই উঠে গেছে। কোথাও কোথাও বড় আকারের গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এসব কারণে দুর্ঘটনাও বেড়েছে। এ অবস্থায় ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক দ্রুত মেরামত করে ঘরমুখী মানুষের ঈদযাত্রা নির্বিঘœ করা সরকারের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ সন্দেহ নেই।
ঈদযাত্রায় ঘুরমুখো মানুষকে প্রতি বছরই কমবেশি দুর্ভোগ পোহাতে হয়। তবে সে দুর্ভোগের কারণ মূলত মহাসড়কে বাড়তি যানবাহনের কারণে সৃষ্ট যানজট। এবার ক্ষতিগ্রস্ত সড়কের কারণে সেই জট হয়তো আরও তীব্র হবে। তবে আমরা আশা করব, প্রকৃতির প্রত্যাশিত বদান্যতা এবং সরকারের কর্মতৎপরতায় ঘরমুখী মানুষের দুর্ভোগ থাকবে সহনীয় পর্যায়ে। অভিজ্ঞতা বলে, তড়িঘড়ি করে সাময়িকভাবে সড়ক মেরামতের কাজের মান বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ভালো হয় না। মেরামতের ক’দিন পরই পরিস্থিতি আগের অবস্থায় ফিরে যায়। এতে অর্থের অপচয় হয়। তাই আমরা বলব, ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক দ্রুত মেরামতের উদ্যোগ নেয়া হলেও এর কাজের মান যেন ভালো হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখা প্রয়োজন। এজন্য মেরামত কাজ চলাকালে সংশ্লিষ্ট দায়িত্বপ্রাপ্তদের দ্বারা সার্বক্ষণিক মনিটরিংয়ের ব্যবস্থা করতে হবে।
তবে ঈদযাত্রা কতটা নির্বিঘœ হবে তা অনেকাংশে নির্ভর করছে প্রকৃতির ওপর। বৃষ্টি না হলে সড়কগুলো হয়তো ব্যবহার উপযোগী করা সম্ভব হবে; কিন্তু বৃষ্টি হলে সড়কে বিটুমিনের কাজ করা যাবে না। সেক্ষেত্রে দুর্ভোগ মাথায় নিয়েই ঈদযাত্রা করতে হবে মানুষকে।
এটি নিশ্চিত, শত প্রতিকূলতা মাথায় নিয়েই নিজ নিজ বাড়ির উদ্দেশে রওনা দেবে মানুষ। দেশে বছরের দুই ঈদে শেকড়ের টানে বাড়ি যাওয়া অনেকদিনের প্রথা। প্রিয়জনের সঙ্গে আনন্দঘন পরিবেশে ঈদ উদযাপন করাই সবার উদ্দেশ্য। প্রকৃতির ওপর মানুষের সরাসরি নিয়ন্ত্রণ নেই। আমরা শুধু আশা করতে পারি, মানুষের ঈদযাত্রা শুরু হওয়ার আগে দেশে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হবে। বন্ধ হবে টানা বৃষ্টিপাত। ক্ষতিগ্রস্ত সড়ক-মহাসড়ক ও রেললাইন যথাসম্ভব দ্রুত মেরামত করা সম্ভবপর হয়ে উঠবে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।