চুয়াডাঙ্গা ০২:২৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ৯ আশ্বিন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
কালিদাসপুর স্টুডিও’র মধ্যে অনৈতিক কর্মকাণ্ডের অভিযোগে গণধোলাই নাগদাহ ও খাসকররা ইউনিয়ন আ.লীগের কর্মী সভায় এমপি ছেলুন জোয়ার্দ্দার কলেজিয়েট স্কুলের উপাধ্যক্ষ শামিম রেজার ৫২তম জন্মবার্ষিকী পালন বারাদী ইউনিয়নে গণসংযোগ, পথসভা ও লিফলেট বিতরণকালে দিলীপ কুমার আগরওয়ালা হাসপাতালের জরুরি বিভাগে স্বেচ্ছাসেবকদের বিরুদ্ধে রোগীর স্বজনের অভিযোগ আলমডাঙ্গায় পুত্রবধূর বটির কোপে শাশুড়ি জখম বাংলাদেশিদের ওপর মার্কিন ভিসা নিষেধাজ্ঞা নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া নিউজিল্যান্ডের কাছে বড় ব্যবধানে হারলো বাংলাদেশ মার্কিন ভিসানীতি নিয়ে পুলিশ-আমলা-বিচারাঙ্গন সবার মধ্যে আতঙ্ক আইনজীবী ফোরামের কেন্দ্রীয় কমিটি ঘোষণা

শৈলকুপায় মাছ ধরা জাল নিয়ে দ্বন্দ্বে আ.লীগের দুই গ্রুপের দেশীয় অস্ত্রের মহড়া

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৪:৪৫:৩৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ৭৪ বার পড়া হয়েছে
সময়ের সমীকরণ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ঝিনাইদহ অফিস:

ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার গোলকনগর গ্রামে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আবু সাঈদ বিশ্বাস (৪১) নামে এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। নিহত আবু সাঈদ বিশ^াস ওই গ্রামের ওমর আলী বিশ^াসের ছেলে। তিনি দিনমজুরের কাজ করে সংসার চালাতেন। এদিকে সাঈদ বিশ^াস নিহত হওয়ার পর স্থানীয় আওয়ামী লীগের মফিজ ও ফারুক গ্রুপের সমর্থকরা ঢাল, ভেলা, সড়কি ও রামদা নিয়ে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় লিপ্ত হয়। ভাঙচুর করা হয় ২০ থেকে ২৫টি বাড়ি। এতে আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন। স্থানীয়রা জানান, নিহত আবু সাঈদ বর্মমান চেয়ারম্যান ফারুক গ্রুপের সমর্থক ছিলেন।

শৈলকুপা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আমিরুজ্জামান জানান, মাঠে মাছ ধরা জাল হারানোকে কেন্দ্র করে গতকাল শুক্রবার বেলা আড়াইটার দিকে একই গ্রামের শাহিনের সঙ্গে আবু সাঈদের মধ্যে বাগবিতণ্ডা হয়। এরই এক পর্যায়ে শাহিন ও তার লেকজন ছুরিকাঘাত করে আবু সাঈদকে হত্যা করে। সাঈদ হত্যার পর বর্তমান চেয়ারম্যান ফারুক গ্রুপের সমর্থকরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে প্রতিপক্ষ মফিজ গ্রুপের সমর্থকদের বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট চালিয়েছে। এসময় গোলকনগর গ্রামের হজর আলীর স্ত্রী রুবিয়া খাতুনসহ অন্তত ১০ জন আহত হন। তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশের টিম অভিযান চালিয়ে শাহীন বিশ্বাস ও বকুল কাজী নামে দুইজনকে আটক করে। একটি ভিডিও ক্লিপে দেখা গেছে, ৫০-৬০ জন মানুষ পুলিশের সামনেই বড় বড় রাম দা, ঢাল, ভেলা ও টেঁটা নিয়ে প্রতিপক্ষের দিকে ছুটে যাচ্ছে। পুলিশ তাদের আটকানোর চেষ্টা করলেও তারা কোনো বাঁধাই মানেনি।

ওই গ্রামের বাসিন্দা রুপচাঁদ মন্ডল জানান, নিত্যানন্দপুর ইউনিয়নে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বছরের পর বছর আওয়ামী লীগের সাবেক ও বর্তমান চেয়ারম্যানের সমর্থকদের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে একাধিক ব্যক্তি নিহতও হয়েছে। শৈলকুপা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আমিনুল ইসলাম বলেন, হত্যাকাণ্ডের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। পুলিশ দুই পক্ষকে ছত্রভঙ্গ করতে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করে। তিনি আরও বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর আগেই বেশ কিছু বাড়ি ভাঙচুর হয়েছে। এ ঘটনায় দুইজনকে আটকও করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

শৈলকুপায় মাছ ধরা জাল নিয়ে দ্বন্দ্বে আ.লীগের দুই গ্রুপের দেশীয় অস্ত্রের মহড়া

আপডেট সময় : ০৪:৪৫:৩৮ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২ সেপ্টেম্বর ২০২৩

ঝিনাইদহ অফিস:

ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার গোলকনগর গ্রামে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আবু সাঈদ বিশ্বাস (৪১) নামে এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। নিহত আবু সাঈদ বিশ^াস ওই গ্রামের ওমর আলী বিশ^াসের ছেলে। তিনি দিনমজুরের কাজ করে সংসার চালাতেন। এদিকে সাঈদ বিশ^াস নিহত হওয়ার পর স্থানীয় আওয়ামী লীগের মফিজ ও ফারুক গ্রুপের সমর্থকরা ঢাল, ভেলা, সড়কি ও রামদা নিয়ে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় লিপ্ত হয়। ভাঙচুর করা হয় ২০ থেকে ২৫টি বাড়ি। এতে আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন। স্থানীয়রা জানান, নিহত আবু সাঈদ বর্মমান চেয়ারম্যান ফারুক গ্রুপের সমর্থক ছিলেন।

শৈলকুপা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আমিরুজ্জামান জানান, মাঠে মাছ ধরা জাল হারানোকে কেন্দ্র করে গতকাল শুক্রবার বেলা আড়াইটার দিকে একই গ্রামের শাহিনের সঙ্গে আবু সাঈদের মধ্যে বাগবিতণ্ডা হয়। এরই এক পর্যায়ে শাহিন ও তার লেকজন ছুরিকাঘাত করে আবু সাঈদকে হত্যা করে। সাঈদ হত্যার পর বর্তমান চেয়ারম্যান ফারুক গ্রুপের সমর্থকরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে প্রতিপক্ষ মফিজ গ্রুপের সমর্থকদের বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট চালিয়েছে। এসময় গোলকনগর গ্রামের হজর আলীর স্ত্রী রুবিয়া খাতুনসহ অন্তত ১০ জন আহত হন। তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশের টিম অভিযান চালিয়ে শাহীন বিশ্বাস ও বকুল কাজী নামে দুইজনকে আটক করে। একটি ভিডিও ক্লিপে দেখা গেছে, ৫০-৬০ জন মানুষ পুলিশের সামনেই বড় বড় রাম দা, ঢাল, ভেলা ও টেঁটা নিয়ে প্রতিপক্ষের দিকে ছুটে যাচ্ছে। পুলিশ তাদের আটকানোর চেষ্টা করলেও তারা কোনো বাঁধাই মানেনি।

ওই গ্রামের বাসিন্দা রুপচাঁদ মন্ডল জানান, নিত্যানন্দপুর ইউনিয়নে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বছরের পর বছর আওয়ামী লীগের সাবেক ও বর্তমান চেয়ারম্যানের সমর্থকদের মধ্যে বিরোধ চলে আসছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে একাধিক ব্যক্তি নিহতও হয়েছে। শৈলকুপা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আমিনুল ইসলাম বলেন, হত্যাকাণ্ডের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। পুলিশ দুই পক্ষকে ছত্রভঙ্গ করতে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করে। তিনি আরও বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর আগেই বেশ কিছু বাড়ি ভাঙচুর হয়েছে। এ ঘটনায় দুইজনকে আটকও করা হয়েছে।