চুয়াডাঙ্গা মঙ্গলবার , ৭ ডিসেম্বর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

স্বজনরা জানেন ভ্যান চালায়, আসলে সে গাঁজা বিক্রেতা!

নিজস্ব প্রতিবেদক:
ডিসেম্বর ৭, ২০২১ ১০:০৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সারা দিন ভ্যান চালিয়ে পরিবারের সদস্যদের মুখে দু’মুঠো অন্নের যোগান দেন বিপ্লব হোসেন। ভ্যানচালকের আড়ালে গাঁজা বিক্রেতা বিপ্লব হোসেনের প্রতি তাঁর স্ত্রী-সন্তানদের ঠিক এমনই ধারণা ছিল। কিন্তু এবার চুয়াডাঙ্গা সদর থানা পুলিশ সেসব ধারণাকে পাল্টে দিয়ে গাঁজাসহ আটক করেছে বিপ্লব হোসেনকে। গতকাল সোমবার সকালে চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার তালতলা এলাকা থেকে তাঁকে গাঁজাসহ আটক করে পুলিশ। বিপ্লব হোসেন একই এলাকার তালতলা শশ্মানপাড়ার জলিল সর্দ্দারের ছেলে।

সদর থানা সূত্রে জানা যায়, বিপ্লব হোসেন নামেই একজন ভ্যানচালক, কিন্তু এর আড়ালে তিনি নিজেকে চতুর গাঁজা বিক্রেতায় পরিণত করেছে। তাঁর ভ্যানে ওঠেন সাধারণ যাত্রীদের পাশাপাশি গাঁজার সেবী ক্রেতারাও। এতে করে খুব সহজেই তিনি গাঁজা বেচাকেনা করতে পারতেন। তাঁর বিরুদ্ধে সদর থানাতেই আরও ১২টি মামলার রেকর্ড রয়েছে। এর পূর্বে এসকল মামলায় বহুবার জেলও খেটেছেন তিনি। জামিনে বাইরে বের হয়ে আবারও ভ্যান চালাতে শুরু করেন তিনি। কারণ ভ্যানচালকের আড়ালেই চতুরতার সঙ্গে তিনি নিয়মিত গাঁজা বিক্রি করে আসছিলেন।

এ বিষয়ে বিপ্লব হোসেনের পরিবারের সদস্যরা জানায়, ‘বিপ্লব হোসেন ভ্যান চালিয়ে যা রোজগার করে আনেন, তা দিয়েই তাদের সংসার চলে। অনেক অভাবে দিননিপাত করে তারা। বিপ্লব যে গাঁজা বিক্রি করে, সে সম্পর্কে তাদের কোনো ধারণা নেই। কখনও জানতেও পারেননি তিনি গাঁজা বিক্রির সঙ্গে জড়িত আছেন।’

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন বলেন, ভ্যানচালকের আড়ালে বিপ্লব হোসেন একজন চতুর গাঁজা বিক্রেতা। তাঁর গাঁজা বিক্রির বিষয়ে নিজ পরিবারকেও কিছুই বুঝতে দেননি। অথচ তার বিরুদ্ধে ১২টি মামলা রয়েছে। জেলেও গেছেন ১২ বার। তিনি মূলত গাঁজা বিক্রি করেন। তার ভ্যান আছে। সারাদিন ভ্যান চালান। ভ্যান চালানোর আড়ালেই ক্রেতাদের কাছে গাঁজা পৌঁছে দেন। আজ (গতকাল) চুয়াডাঙ্গা থানার বিশেষ অভিযানে চতুর বিল্লাল হোসেন এবং মাদক, জুয়া, চেক প্রতারণা মামলাসহ বিভিন্ন মামলার পরোয়ানাভুক্ত আরও ৯ জন আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।