চুয়াডাঙ্গা বৃহস্পতিবার , ২ ডিসেম্বর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় উত্তপ্ত আলমডাঙ্গা

ডাউকীতে স্বতন্ত্র প্রার্থী নাজমুল হুসাইনের ওপর দুর্বৃত্তদের হামলা, পাল্টাপাল্টি বিক্ষোভ, পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ
ভ্রাম্যমাণ প্রতিবেদক, আলমডাঙ্গা:
ডিসেম্বর ২, ২০২১ ১২:১৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বিক্ষুব্ধ সমর্থকদের হামলায় চার পুলিশ সদস্য আহত, গাড়ি ভাঙচুর, এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন

 

আলমডাঙ্গা উপজেলার ডাউকীতে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী নাজমুল হুসাইনের ওপর হামলা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। নাজমুল হুসাইন ডাউকী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক। গতকাল বুধবার রাত সাড়ে সাতটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। তিনি গত ২৮ নভেম্বর তৃতীয় ধাপে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী তরিকুল ইসলাম জয়লাভ করেন।
এদিকে, নাজমুল হুসাইনের ওপর নৃশংস হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে গতকাল রাত ৯টার দিকে আলমডাঙ্গা শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে স্বেচ্ছাসেবক লীগ। এ বিক্ষোভ সমাবেশের পাল্টা বিক্ষোভ করতে গেলে তরিকুল চেয়ারম্যানের লোকজনের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ বাঁধে। সংঘর্ষের সময় তরিকুলের বিক্ষুব্ধ সমর্থকরা পুলিশের উদ্দেশ্যে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে এবং পুলিশের দুটি ও সাধারণ মানুষের চারটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে। এ ঘটনায় আলমডাঙ্গা থানার পরিদর্শক শাহাবুল, এএসআই শরিফুল ইসলামসহ চার পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। এ ঘটনার পর থেকে আলমডাঙ্গা শহরে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

গ্রামসূত্রে জানা যায়, ডাউকী ইউনিয়নের পরাজিত স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী নাজমুল হুসাইন গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় নিজ গ্রাম ডাউকী স্কুলমাঠে বসেছিলেন। সে সময় নৌকা প্রতীকের বিজয়ী চেয়ারম্যান তরিকুল ইসলামের লোকজন আকস্মিক হামলা চালায়। লাঠির আঘাতে নাজমুল রক্তাক্ত জখম হন। তাঁকে উদ্ধার করে গ্রামবাসী প্রথমে হারদী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখানে তাঁর শারীরিক অবস্থার উন্নতি না হলে তাঁকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। রাতেই নাজমুল হুসাইনকে হারদী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়েছে।
এ বিষয়ে হারদী হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক মাসুক রহমান বলেন, ‘নাজমুল হুসাইন নামে একজন গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে আসলে আমরা তার প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করি ও অবস্থা গুরুতর হওয়াই তাঁকে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে।’
নাজমুল হুসাইনকে নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় মেরে রক্তাক্ত জখম করার ঘটনায় ক্ষোভে ফেটে পড়ে ডাউকী গ্রামবাসী। আহত নাজমুল হুসাইনের মাকে সামনে নিয়ে গ্রামবাসী এবং উপজেলা ও পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতারা আলমডাঙ্গা শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে। বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ থেকে বক্তারা নৌকা প্রতীকের বিজয়ী প্রার্থী তরিকুল ইসলামের দ্রুত গ্রেপ্তার করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান।
আলমডাঙ্গা উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক শরিফুল ইসলাম রিফাত প্রতিবাদ সভায় কঠোর হুশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘যদি নাজমুল হুসাইনের ওপর হামলাকারী ও হামলার নেতৃত্ব দানকারী চেয়ারম্যান তরিকুল ইসলামকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেপ্তার না করা হয়, তাহলে আলমডাঙ্গা ও চুয়াডাঙ্গায় কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।’
এদিকে, নাজমুল হুসাইনের সমর্থকদের বিক্ষোভ মিছিল করার সংবাদ পেয়ে তরিকুল ইসলামের লোকজন শহরে পাল্টা বিক্ষোভ করার প্রস্তুতি নেয়। তাঁরা হাউসপুর এলাকায় অবস্থান নেন। সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাদেরকে বিক্ষোভ মিছিল করতে বাঁধা দেয়। এ সময় পুলিশের সাথে তরিকুল চেয়ারম্যানের লোকজন সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। বিক্ষুব্ধ সমর্থকরা পুলিশের উদ্দেশ্যে করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে এবং পুলিশের দুটি ও সাধারণ মানুষের চারটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে। এ ঘটনায় আলমডাঙ্গা থানার পরিদর্শক শাহবুল, এএসআই শরিফুল ইসলামসহ চার পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।
এলাকাসূত্রে জানা গেছে, এ হামলা ঘটনার পূর্বে দুপুরে স্কুল ছুটির সময় ডাউকী গ্রামের সাজেদুর রহমান রকির বোনকে একই গ্রামের হাঁসান উত্যাক্ত করে। এ কথা শুনে হাসানকে কিল থাপ্পড় মারে রকি। মার খেয়ে হাসান তরিকুল ইসলামকে বলেন, নৌকার ভোট করে আমরা কেন মার খেলাম? এ মারের ঘটনার উপযুক্ত শাস্তি দাবি করছি। এ দাবির পরিপ্রেক্ষিতেই নাজমুল হুসাইনের ওপর হামলা চালানো হয় বলে অভিযোগ উঠেছে।
আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাইফুল ইসলাম বলেন, কর্তব্যরত পুলিশের ওপর তরিকুল চেয়ারম্যান পক্ষ হামলা চালায়। তারা পুলিশের দুটি মোটরসাইকেল ও চারটি পাবলিকের মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে। এছাড়া বিক্ষুব্ধ সমর্থকদের হামলায় চার পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি। এলাকায় বর্তমানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।