ইপেপার । আজবৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ওয়েভ ফাউন্ডেশনের চার কর্মচারীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে

চুয়াডাঙ্গায় আইনজীবীদের কর্মবিরতি পালন

সমীকরণ প্রতিবেদক:
  • আপলোড টাইম : ০৩:৩৩:২৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০২৪
  • / ১২ বার পড়া হয়েছে

চুয়াডাঙ্গা জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্যরা কর্মবিরতি পালন করেছেন। গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় জেলা আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সাধারণ সভায় এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন আইনজীবীরা। সভায় গতকাল সোমবার এক দিনের জন্য আইনজীবীদের কর্মবিরতি পালন এবং আসামিদের বিরুদ্ধে  দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ব্যবস্থা গ্রহণে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাড. মহ. শামসুজ্জোহার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভা সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. তালিম হোসেন সঞ্চালনা করেন। সাধারণ সভায় অ্যাড. আকসিজুল ইসলাম রতন পবিত্র কুরআন থেকে তিলাওয়াত করেন। সভায় আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি সেলিম উদ্দিন খান ও এম এম শাহজাহান মুকুল, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম রফিউর রহমান, শামিম রেজা ডালিম, আবুল বাসার, সিনিয়র আইনজীবী ওয়াহেদুজ্জামান বুলা, শহিদুল হক, রফিকুল আলম রাণ্টু, নাজমুল হাসান লাভলু, মোসলেম উদ্দিন ও মানি খন্দকার বক্তব্য দেন।

এদিকে, চুয়াডাঙ্গা জেলা আইনজীবী সমিতির সাইকেল স্ট্যান্ডের কর্মচারী মো. আলাউদ্দীন গত ৯ জুন বিকেলে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় একটি মামলা করেছেন। মামলায় এনজিও ওয়েভ ফাউন্ডেশনের চার কর্মকর্তা-কর্মচারী দর্শনার গিরিশনগরের হানেফ আলী মন্ডলের ছেলে মুক্তার হোসাইন, দর্শনা দক্ষিণ চাঁদপুরের সামছুল হকের ছেলে মো. সোলায়মান, দামুড়হুদার কেশবপুরের রহিম বক্সের ছেলে হাসান আলী এবং ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু উপজেলার চিতলিপাড়ার শক্তিপদ শর্মার ছেলে সুব্রত কুমার শর্মাকে আসামি করা হয়েছে।

জানা গেছে, এনজিওর কিস্তির টাকা মো. আলাউদ্দীনের কাছে চাইতে সাইকেল স্ট্যান্ডে আসেন এনজিও কর্মীরা। টাকা চাইলে আলাউদ্দীন পরে দেব, এখন সম্ভব নয় বললে তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে তারা। এসময় তারা বলেন, তাদের আরও কাজ নাই? বারবার টাকা নিতে আসবো। এর একপর্যায়ে  গালিগালাজ করতে নিষেধ করলে কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই তাকে ঘুষি মারে।

এসময় জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. তালিম হোসেন সাইকেল স্ট্যান্ডে গিয়ে মারধরের কারণ জানতে চান। এসময় আসামিরা তার নাকে ঘুষি মারেন। এ ঘটনায় স্থানীয়রা তাদের ধরে পুলিশে দেয়। পরে আসামিদের নামে মামলা হলে তাদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।  এ ঘটনায় চুয়াডাঙ্গা জেলা আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় চুয়াডাঙ্গার আইনজীবীরা একদিনের জন্য কর্মবিরতি পালন এবং আসামিদের দৃষ্টান্ত শাস্তিমূলক শাস্তি দাবি করেন।

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

ওয়েভ ফাউন্ডেশনের চার কর্মচারীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে

চুয়াডাঙ্গায় আইনজীবীদের কর্মবিরতি পালন

আপলোড টাইম : ০৩:৩৩:২৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০২৪

চুয়াডাঙ্গা জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্যরা কর্মবিরতি পালন করেছেন। গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় জেলা আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সাধারণ সভায় এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন আইনজীবীরা। সভায় গতকাল সোমবার এক দিনের জন্য আইনজীবীদের কর্মবিরতি পালন এবং আসামিদের বিরুদ্ধে  দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ব্যবস্থা গ্রহণে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাড. মহ. শামসুজ্জোহার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভা সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. তালিম হোসেন সঞ্চালনা করেন। সাধারণ সভায় অ্যাড. আকসিজুল ইসলাম রতন পবিত্র কুরআন থেকে তিলাওয়াত করেন। সভায় আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি সেলিম উদ্দিন খান ও এম এম শাহজাহান মুকুল, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এস এম রফিউর রহমান, শামিম রেজা ডালিম, আবুল বাসার, সিনিয়র আইনজীবী ওয়াহেদুজ্জামান বুলা, শহিদুল হক, রফিকুল আলম রাণ্টু, নাজমুল হাসান লাভলু, মোসলেম উদ্দিন ও মানি খন্দকার বক্তব্য দেন।

এদিকে, চুয়াডাঙ্গা জেলা আইনজীবী সমিতির সাইকেল স্ট্যান্ডের কর্মচারী মো. আলাউদ্দীন গত ৯ জুন বিকেলে চুয়াডাঙ্গা সদর থানায় একটি মামলা করেছেন। মামলায় এনজিও ওয়েভ ফাউন্ডেশনের চার কর্মকর্তা-কর্মচারী দর্শনার গিরিশনগরের হানেফ আলী মন্ডলের ছেলে মুক্তার হোসাইন, দর্শনা দক্ষিণ চাঁদপুরের সামছুল হকের ছেলে মো. সোলায়মান, দামুড়হুদার কেশবপুরের রহিম বক্সের ছেলে হাসান আলী এবং ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু উপজেলার চিতলিপাড়ার শক্তিপদ শর্মার ছেলে সুব্রত কুমার শর্মাকে আসামি করা হয়েছে।

জানা গেছে, এনজিওর কিস্তির টাকা মো. আলাউদ্দীনের কাছে চাইতে সাইকেল স্ট্যান্ডে আসেন এনজিও কর্মীরা। টাকা চাইলে আলাউদ্দীন পরে দেব, এখন সম্ভব নয় বললে তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে তারা। এসময় তারা বলেন, তাদের আরও কাজ নাই? বারবার টাকা নিতে আসবো। এর একপর্যায়ে  গালিগালাজ করতে নিষেধ করলে কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই তাকে ঘুষি মারে।

এসময় জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. তালিম হোসেন সাইকেল স্ট্যান্ডে গিয়ে মারধরের কারণ জানতে চান। এসময় আসামিরা তার নাকে ঘুষি মারেন। এ ঘটনায় স্থানীয়রা তাদের ধরে পুলিশে দেয়। পরে আসামিদের নামে মামলা হলে তাদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।  এ ঘটনায় চুয়াডাঙ্গা জেলা আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় চুয়াডাঙ্গার আইনজীবীরা একদিনের জন্য কর্মবিরতি পালন এবং আসামিদের দৃষ্টান্ত শাস্তিমূলক শাস্তি দাবি করেন।