ইপেপার । আজ মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কার্পাসডাঙ্গা কোমরপুরে জোরপূর্বক যাতায়াতের রাস্তায় বেড়া বাঁশের বেড়ায় অবরুদ্ধ ৩ পরিবার : প্রতিকার কামনা

সমীকরণ প্রতিবেদন
  • আপলোড টাইম : ১২:২৩:২২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬
  • / ৩৩১ বার পড়া হয়েছে

IMG_20160920_120128

কার্পাসডাঙ্গা অফিস: চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়নের কোমরপুর গ্রামের স্কুল পাড়ায় বসবাসরত মৃত ইসমাইল হোসেনর ৩ ছেলে রফিক,আহসান হাবীব,সাইফুল প্রধান সড়কে বের হবার একমাত্র রাস্তাটি নিজের জমি দাবী করে জোর পূর্বক ৫: দিন ধরে বাঁশ দিয়ে বেড়া দিয়েছে একই পাড়ার রবগুল মালিতার ছেলে মোহাম্মদ আলী মহিচ ও শওকত আলী এমনটি আমাদের এ প্রতিবেদক কে জানিয়েছেন রফিক ও তার ভাইয়েরা।চলাচলের রাস্তাটি বেড়া দিয়ে আটকানোর কারনে গৃহবন্দী হয়ে পড়েছে ৩ টি পরিবার।বর্তমানে চরম অসহায় অবস্থায় দিন যাপন করছে।এ বিষয়ে স্থানীয় ভাবে আপোষ মিমাংসার চেষ্টা চালিয়েও ব্যার্থ হয়েছে রফিক সহ তার ভাইয়েরা।এ বিষয়ে কার্পাসডাঙ্গা পুলিশ ফাঁড়িতে আপোষ মিমাংসার জন্য বসলে ক্যাম্প ইনচার্জ জিয়াউল হক বেড়াটি সড়িয়ে নেওয়ার নির্দেশ দিলেও মহাম্মদ আলী বেড়াটি সড়াবে না বলে সাফ জানিয়ে দেই।রাস্তাটি দিয়ে আগের মত চলাচলের জন্য প্রতিকার চেয়ে পাগলের ন্যায় রফিক আজ ৩ দিন ধরে সমাজপতিদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছে।বিষয়টি সুরহার জন্য চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার রশিদুল মহাদোয় হাসানের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছে ভুক্তভোগী পরিবার সহ সচেতন মহল।

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

কার্পাসডাঙ্গা কোমরপুরে জোরপূর্বক যাতায়াতের রাস্তায় বেড়া বাঁশের বেড়ায় অবরুদ্ধ ৩ পরিবার : প্রতিকার কামনা

আপলোড টাইম : ১২:২৩:২২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬

IMG_20160920_120128

কার্পাসডাঙ্গা অফিস: চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়নের কোমরপুর গ্রামের স্কুল পাড়ায় বসবাসরত মৃত ইসমাইল হোসেনর ৩ ছেলে রফিক,আহসান হাবীব,সাইফুল প্রধান সড়কে বের হবার একমাত্র রাস্তাটি নিজের জমি দাবী করে জোর পূর্বক ৫: দিন ধরে বাঁশ দিয়ে বেড়া দিয়েছে একই পাড়ার রবগুল মালিতার ছেলে মোহাম্মদ আলী মহিচ ও শওকত আলী এমনটি আমাদের এ প্রতিবেদক কে জানিয়েছেন রফিক ও তার ভাইয়েরা।চলাচলের রাস্তাটি বেড়া দিয়ে আটকানোর কারনে গৃহবন্দী হয়ে পড়েছে ৩ টি পরিবার।বর্তমানে চরম অসহায় অবস্থায় দিন যাপন করছে।এ বিষয়ে স্থানীয় ভাবে আপোষ মিমাংসার চেষ্টা চালিয়েও ব্যার্থ হয়েছে রফিক সহ তার ভাইয়েরা।এ বিষয়ে কার্পাসডাঙ্গা পুলিশ ফাঁড়িতে আপোষ মিমাংসার জন্য বসলে ক্যাম্প ইনচার্জ জিয়াউল হক বেড়াটি সড়িয়ে নেওয়ার নির্দেশ দিলেও মহাম্মদ আলী বেড়াটি সড়াবে না বলে সাফ জানিয়ে দেই।রাস্তাটি দিয়ে আগের মত চলাচলের জন্য প্রতিকার চেয়ে পাগলের ন্যায় রফিক আজ ৩ দিন ধরে সমাজপতিদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছে।বিষয়টি সুরহার জন্য চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার রশিদুল মহাদোয় হাসানের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছে ভুক্তভোগী পরিবার সহ সচেতন মহল।