ইপেপার । আজ রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ঝিনাইদহ কোর্ট হাজত পুলিশ লাঞ্ছিত আদালতে মামলা

সমীকরণ প্রতিবেদন
  • আপলোড টাইম : ০১:২২:১৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৬
  • / ৩১২ বার পড়া হয়েছে

sfdererwrwঝিনাইদহ অফিস: ঝিনাইদহ চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের হাজত খানায় সোমবার পুলিশ লাঞ্চিত হওয়ার ঘটনায় আদালতে একটি মামলা হয়েছে (নং ঝিসিআর ৬৯৫/১৬)। মঙ্গলবার পুলিশের এটিএসআই মল্লিক মোস্তাব আলী বাদী হয়ে মামলাটি করেন। ঝিনাইদহ অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ফাহমিদা জাহাঙ্গীর অভিযোগটি আমলে নিয়ে একমাত্র আসামী শাহরিয়ার পারভেজ রাসেলের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করেন। আসামী রাসেল এখন হাজতেই আছেন। উল্লেখ্য সোমবার হাজতখানায় রাসেলকে খাবার দিতে আসার সময় পুলিশের সাথে বাকবিতন্ডা ও হাতাহাতিদর ঘটনা ঘটে। রাসেলের স্বজনদের অভিযোগ খাবার দিতে ৪০০ টাকা দাবী করে পুলিশ। এ নিয়ে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। ঘটনার দিন ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আজবাহার আলী শেখ সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন সেখানে তেমন কিছুই ঘটেনি। তবে মঙ্গলবার মামলা হওয়া ও আসামীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারীর পর বিষয়টি খোলসা হয়। এদিকে বিষয়টি নিয়ে কোর্ট ইন্সপেক্টর আব্দুল বারী জানান, দলবেধে লোকজন দেখা করতে আসছিলো। আমরা বাধা দেওয়ায় আমাদের সাথে আসামী দুব্যাবহার করেন এবং দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের লাঞ্চিত করা হয়।

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

ঝিনাইদহ কোর্ট হাজত পুলিশ লাঞ্ছিত আদালতে মামলা

আপলোড টাইম : ০১:২২:১৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৬

sfdererwrwঝিনাইদহ অফিস: ঝিনাইদহ চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের হাজত খানায় সোমবার পুলিশ লাঞ্চিত হওয়ার ঘটনায় আদালতে একটি মামলা হয়েছে (নং ঝিসিআর ৬৯৫/১৬)। মঙ্গলবার পুলিশের এটিএসআই মল্লিক মোস্তাব আলী বাদী হয়ে মামলাটি করেন। ঝিনাইদহ অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ফাহমিদা জাহাঙ্গীর অভিযোগটি আমলে নিয়ে একমাত্র আসামী শাহরিয়ার পারভেজ রাসেলের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করেন। আসামী রাসেল এখন হাজতেই আছেন। উল্লেখ্য সোমবার হাজতখানায় রাসেলকে খাবার দিতে আসার সময় পুলিশের সাথে বাকবিতন্ডা ও হাতাহাতিদর ঘটনা ঘটে। রাসেলের স্বজনদের অভিযোগ খাবার দিতে ৪০০ টাকা দাবী করে পুলিশ। এ নিয়ে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। ঘটনার দিন ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আজবাহার আলী শেখ সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন সেখানে তেমন কিছুই ঘটেনি। তবে মঙ্গলবার মামলা হওয়া ও আসামীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারীর পর বিষয়টি খোলসা হয়। এদিকে বিষয়টি নিয়ে কোর্ট ইন্সপেক্টর আব্দুল বারী জানান, দলবেধে লোকজন দেখা করতে আসছিলো। আমরা বাধা দেওয়ায় আমাদের সাথে আসামী দুব্যাবহার করেন এবং দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের লাঞ্চিত করা হয়।