ইপেপার । আজ মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কঠোর অধ্যবসায়ের পর স্বপ্নপূরণ, উচ্ছ্বসিত চান্সপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীসহ পরিবার-পরিজন

মেডিকেল ভর্তিযুদ্ধে চুয়াডাঙ্গার শিক্ষার্থীদের জয়জয়কার

সমীকরণ প্রতিবেদন
  • আপলোড টাইম : ১০:৪২:২৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ২ বার পড়া হয়েছে

মেডিকেল ভর্তিযুদ্ধে চুয়াডাঙ্গার শিক্ষার্থীদের জয়জয়কার

নিজস্ব প্রতিবেদক:

চলতি বছর মেডিকেল ভর্তিযুদ্ধে ভালো করেছেন চুয়াডাঙ্গার শিক্ষার্থীরা। সর্বোচ্চ চেষ্টায় স্বপ্নকে জয় করতে উদ্যোমী মেধাবী শিক্ষার্থীদের পরিশ্রমের ফল পেয়েছেন তারা। এ বছর চুয়াডাঙ্গায় মেডিকেলে চান্সপ্রাপ্তের সংখ্যা বেড়েছে। চলতি বছরের মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ হয় গতকাল রোববার। এর মধ্যে অনেকেই দেশের বিভিন্ন মেডিকেল কলেজে চান্স পেয়েছেন। মেডিকেল পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পর দেখা গেছে, চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজ ও আলমডাঙ্গা সরকারি কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চুয়াডাঙ্গার কৃতী শিক্ষার্থীরা মেডিকেল ভর্তিযুদ্ধে নিজের স্থান করে নিয়েছেন।

দর্শনা পুরাতন বাজারের আনছার আলী ও শিরিন শাহারিয়ার পারভীনের পুত্র তাসনিম লাবিব ঢাকা মেডিকেল কলেজে চান্স পেয়েছেন। মেধা তালিকায় তাঁর স্থান ৯০তম, স্কোর ৮৪.৭৫। চুয়াডাঙ্গা শহরের জ্বিনতলা মল্লিক পাড়ার আরিফুল হক ও সেলিনা আক্তার দম্পতির কন্যা নিশাত নাবিয়াহ্ আশফী কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজে চান্স পেয়েছেন। মেধা তালিকায় তার স্থান ৬ হাজার ৫১১ তম ও স্কোর ৭০.২৫।  চুয়াডাঙ্গা সিঅ্যান্ডবি পাড়ার আনোয়ার হোসেন ও রুবিনা তাসমিন রেুমির পুত্র মাসরুফ হোসেন রাদ স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন। মেধা তালিকায় তাঁর স্থান ৩০৮তম ও স্কোর ২৮১। আলমডাঙ্গার খন্দকার হাবিবুর রায়হান ও নাছিমা পারভীন দম্পতির কন্যা আফরিন খন্দকার মেঘা শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ জামালপুরে। তাঁর মেধা তালিকা ৪ হাজার ৭২১ ও স্কোর ৬৭.৭৫। আলমডাঙ্গার পাঁচকমলাপুর গ্রামের রফিকুল ইসলাম ও সেলিনা পারভীন দম্পতির পুত্র ইবনে বাসার রনি মাগুরা মেডিকেল কলেজে। মেধা তালিকায় তাঁর স্থান ৫ হাজার ২১৮ ও স্কোর ২৬৭। চুয়াডাঙ্গা শহরের দক্ষিণ হাসপাতাল পাড়ার আশিতুর রহমান ও শিরিনা আক্তারের পুত্র আরাফাত রহমান রাজশাহী মেডিকেল কলেজে। মেধা তালিকায় তাঁর স্থান ১ হাজার ৮১৭, স্কোর ৭৩.৫।

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার জাফরপুর গ্রামের নব কুমার হালদার ও কিউটি হালদারের পুত্র নিলয় কুমার হালদার কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে। মেধা তালিকায় তাঁর স্থান ২ হাজার ৭৭৯, স্কোর ২৭১.২৫। চুয়াডাঙ্গা কোর্ট পাড়ার জাহাঙ্গীর কবির ও সেলিনা আখতারের পুত্র আরাফ রহমান অর্ক মাগুরা মেডিকেল কলেজে। সদর উপজেলার বেগমপুর ডিহি কৃষ্ণপুর গ্রামের ফজলুর রহমান ও মোমেনা বেগমের পুত্র মো. মুন্না চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে। মেধা তালিকায় তাঁর স্থান ১৩১০তম ও স্কোর ৭৫.৫। চুয়াডাঙ্গা চক্ষু হাসপাতাল পাড়ার মাহবুবুর রহমান ও বিলকিস আরার পুত্র মাকসুদুর রহমান খুলনা মেডিকেল কলেজে। মেধা তালিকায় তাঁর স্থান ২ হাজার ৭৪২, স্কোর ৭১.২৫। চুয়াডাঙ্গা শান্তিপাড়ার আফিরুর রহমান ও আফসানা ফেরদৌস দম্পতির পুত্র আল আবিরুর রহমান নওঁগা মেডিকেল কলেজে। মেধা তালিকায় তাঁর স্থান ৫ হাজার ১৮০, স্কোর ২৬৭।

চুয়াডাঙ্গা দক্ষিণ হাসপাতাল পাড়ার শাফায়েতুল ইসলাম ও স্বপ্না ইসলাম দম্পতির পুত্র শাহারিয়ার আনিন সুনামগঞ্জ বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজে। মেধা তালিকায় তার স্থান ৪ হাজার ৯০৬, স্কোর ৬৭.৫। চুয়াডাঙ্গা থানা কাউন্সিল পাড়ার একেএম মাসুদুজ্জামান ও রিনা পারভীনের কন্যা মারিয়া জামান শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজে এবং চুয়াডাঙ্গার হামিদুর রহমান ও রোকসানা পারভীন দম্পতির পুত্র রাগিব মোহারাত বগুড়া মেডিকেল কলেজে চান্স পেয়েছেন।

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

কঠোর অধ্যবসায়ের পর স্বপ্নপূরণ, উচ্ছ্বসিত চান্সপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীসহ পরিবার-পরিজন

মেডিকেল ভর্তিযুদ্ধে চুয়াডাঙ্গার শিক্ষার্থীদের জয়জয়কার

আপলোড টাইম : ১০:৪২:২৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক:

চলতি বছর মেডিকেল ভর্তিযুদ্ধে ভালো করেছেন চুয়াডাঙ্গার শিক্ষার্থীরা। সর্বোচ্চ চেষ্টায় স্বপ্নকে জয় করতে উদ্যোমী মেধাবী শিক্ষার্থীদের পরিশ্রমের ফল পেয়েছেন তারা। এ বছর চুয়াডাঙ্গায় মেডিকেলে চান্সপ্রাপ্তের সংখ্যা বেড়েছে। চলতি বছরের মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ হয় গতকাল রোববার। এর মধ্যে অনেকেই দেশের বিভিন্ন মেডিকেল কলেজে চান্স পেয়েছেন। মেডিকেল পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পর দেখা গেছে, চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজ ও আলমডাঙ্গা সরকারি কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চুয়াডাঙ্গার কৃতী শিক্ষার্থীরা মেডিকেল ভর্তিযুদ্ধে নিজের স্থান করে নিয়েছেন।

দর্শনা পুরাতন বাজারের আনছার আলী ও শিরিন শাহারিয়ার পারভীনের পুত্র তাসনিম লাবিব ঢাকা মেডিকেল কলেজে চান্স পেয়েছেন। মেধা তালিকায় তাঁর স্থান ৯০তম, স্কোর ৮৪.৭৫। চুয়াডাঙ্গা শহরের জ্বিনতলা মল্লিক পাড়ার আরিফুল হক ও সেলিনা আক্তার দম্পতির কন্যা নিশাত নাবিয়াহ্ আশফী কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজে চান্স পেয়েছেন। মেধা তালিকায় তার স্থান ৬ হাজার ৫১১ তম ও স্কোর ৭০.২৫।  চুয়াডাঙ্গা সিঅ্যান্ডবি পাড়ার আনোয়ার হোসেন ও রুবিনা তাসমিন রেুমির পুত্র মাসরুফ হোসেন রাদ স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়েছেন। মেধা তালিকায় তাঁর স্থান ৩০৮তম ও স্কোর ২৮১। আলমডাঙ্গার খন্দকার হাবিবুর রায়হান ও নাছিমা পারভীন দম্পতির কন্যা আফরিন খন্দকার মেঘা শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ জামালপুরে। তাঁর মেধা তালিকা ৪ হাজার ৭২১ ও স্কোর ৬৭.৭৫। আলমডাঙ্গার পাঁচকমলাপুর গ্রামের রফিকুল ইসলাম ও সেলিনা পারভীন দম্পতির পুত্র ইবনে বাসার রনি মাগুরা মেডিকেল কলেজে। মেধা তালিকায় তাঁর স্থান ৫ হাজার ২১৮ ও স্কোর ২৬৭। চুয়াডাঙ্গা শহরের দক্ষিণ হাসপাতাল পাড়ার আশিতুর রহমান ও শিরিনা আক্তারের পুত্র আরাফাত রহমান রাজশাহী মেডিকেল কলেজে। মেধা তালিকায় তাঁর স্থান ১ হাজার ৮১৭, স্কোর ৭৩.৫।

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার জাফরপুর গ্রামের নব কুমার হালদার ও কিউটি হালদারের পুত্র নিলয় কুমার হালদার কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে। মেধা তালিকায় তাঁর স্থান ২ হাজার ৭৭৯, স্কোর ২৭১.২৫। চুয়াডাঙ্গা কোর্ট পাড়ার জাহাঙ্গীর কবির ও সেলিনা আখতারের পুত্র আরাফ রহমান অর্ক মাগুরা মেডিকেল কলেজে। সদর উপজেলার বেগমপুর ডিহি কৃষ্ণপুর গ্রামের ফজলুর রহমান ও মোমেনা বেগমের পুত্র মো. মুন্না চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে। মেধা তালিকায় তাঁর স্থান ১৩১০তম ও স্কোর ৭৫.৫। চুয়াডাঙ্গা চক্ষু হাসপাতাল পাড়ার মাহবুবুর রহমান ও বিলকিস আরার পুত্র মাকসুদুর রহমান খুলনা মেডিকেল কলেজে। মেধা তালিকায় তাঁর স্থান ২ হাজার ৭৪২, স্কোর ৭১.২৫। চুয়াডাঙ্গা শান্তিপাড়ার আফিরুর রহমান ও আফসানা ফেরদৌস দম্পতির পুত্র আল আবিরুর রহমান নওঁগা মেডিকেল কলেজে। মেধা তালিকায় তাঁর স্থান ৫ হাজার ১৮০, স্কোর ২৬৭।

চুয়াডাঙ্গা দক্ষিণ হাসপাতাল পাড়ার শাফায়েতুল ইসলাম ও স্বপ্না ইসলাম দম্পতির পুত্র শাহারিয়ার আনিন সুনামগঞ্জ বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজে। মেধা তালিকায় তার স্থান ৪ হাজার ৯০৬, স্কোর ৬৭.৫। চুয়াডাঙ্গা থানা কাউন্সিল পাড়ার একেএম মাসুদুজ্জামান ও রিনা পারভীনের কন্যা মারিয়া জামান শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজে এবং চুয়াডাঙ্গার হামিদুর রহমান ও রোকসানা পারভীন দম্পতির পুত্র রাগিব মোহারাত বগুড়া মেডিকেল কলেজে চান্স পেয়েছেন।