ইপেপার । আজ রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

প্রচারণা শেষ হলেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভোট চাইছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী রাজ্জাক খান

আচরণবিধির লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলে প্রার্থিতা বাতিলের দাবি

সমীকরণ প্রতিবেদন
  • আপলোড টাইম : ১১:৪৬:১৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ৬ জানুয়ারী ২০২৪
  • / ২ বার পড়া হয়েছে

সমীকরণ প্রতিবেদন:
নির্বাচন কমিশনের নিয়মানুযায়ী প্রচার-প্রচারণা বন্ধ হয়েছে গত শুক্রবার (০৫ জানুয়ারি) সকাল ৮টায়। এরপর থেকে মাঠে-ময়দানে নেই প্রার্থী ও তাদের কর্মী-সমর্থকরা। তবে বিকল্প পন্থা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এখনো ভোটের প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী ফ্রিজ প্রতীকের এম এ রাজ্জাক খান। তিনি তাঁর ব্যক্তিগত ফেসবুক পেজ, ফেসবুক ও ইউটিউবে ফ্রিজ প্রতীকে ভোট চেয়ে প্রমোট করেছেন। যা চুয়াডাঙ্গা জেলার মানুষের সামনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ছে। বিষয়টি নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। জেলার সচেতন নাগরিকরা মনে করেন, এটি সুস্পষ্ট নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ঘেটে দেখা গেছে, বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচারণার সময় শেষ হলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী এম এ রাজ্জাক খান ফ্রিজ প্রতীকে ভোট চাইছেন। তাঁর ব্যক্তিগত ফেসবুক পেজ থেকেও ভিডিও চিত্র আপলোড করা হচ্ছে ভোট চেয়ে। শুধু প্রার্থীই নয়, তার সমর্থকরা একই কায়দায় প্রচারণা চালাচ্ছেন। নির্বাচন কমিশনের আচরণবিধিতে রঙিন পোস্টার, লিফলেট ছাপানো নিষিদ্ধ থাকলেও তা দৃশ্যমান ফেসবুকে। প্রার্থীর পক্ষের লোকজন এমন প্রচারণা চালিয়ে ভোটারদের আকৃষ্ট করতে চাইছেন। অথচ আজ বহুল প্রত্যাশিত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী দিলীপ কুমার আগরওয়ালা অভিযোগ করে বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনের নিয়মানুযায়ী শুক্রবার সকাল ৮টায় সকল প্রকার প্রচার-প্রচারণা শেষ হয়েছে। এরপরও ফ্রিজ প্রতীকের প্রার্থী রাজ্জাক খান সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণা অব্যাহত রেখেছেন। বিষয়টি নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন। এ প্রচারণার ফলে ভোটারদের মনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হচ্ছে। আমি এ বিষয়ে অভিযোগ জানিয়েছি।’ তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে নির্বাচন কমিশনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। নির্বাচনী আচরণবিধির তোয়াক্কা না করে ফেসবুকে প্রচারণা চালানোয় আমি তার প্রার্থিতা বাতিলের দাবি জানাচ্ছি।’

এ বিষয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী ফ্রিজ প্রতীকের এম এ রাজ্জাক খানের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নির্বাচনী প্রচারণা চালানোর বিষয়ে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা ড. কিসিঞ্জার চাকমা বলেন, আইন অনুযায়ী ভোট গ্রহণের ৪৮ ঘণ্টা পূর্বে থেকে কোনো প্রকার নির্বাচনী প্রচারণা চালানো যাবে না। যারা নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন, যে অভিযোগগুলো আসছে, অভিযোগগুলোর যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট যে ইলেক্টোরাল কমিটি আছে, সেখানে আমরা পাঠিয়ে দিচ্ছি।’

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

প্রচারণা শেষ হলেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভোট চাইছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী রাজ্জাক খান

আচরণবিধির লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলে প্রার্থিতা বাতিলের দাবি

আপলোড টাইম : ১১:৪৬:১৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ৬ জানুয়ারী ২০২৪

সমীকরণ প্রতিবেদন:
নির্বাচন কমিশনের নিয়মানুযায়ী প্রচার-প্রচারণা বন্ধ হয়েছে গত শুক্রবার (০৫ জানুয়ারি) সকাল ৮টায়। এরপর থেকে মাঠে-ময়দানে নেই প্রার্থী ও তাদের কর্মী-সমর্থকরা। তবে বিকল্প পন্থা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এখনো ভোটের প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী ফ্রিজ প্রতীকের এম এ রাজ্জাক খান। তিনি তাঁর ব্যক্তিগত ফেসবুক পেজ, ফেসবুক ও ইউটিউবে ফ্রিজ প্রতীকে ভোট চেয়ে প্রমোট করেছেন। যা চুয়াডাঙ্গা জেলার মানুষের সামনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ছে। বিষয়টি নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। জেলার সচেতন নাগরিকরা মনে করেন, এটি সুস্পষ্ট নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক ঘেটে দেখা গেছে, বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচারণার সময় শেষ হলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী এম এ রাজ্জাক খান ফ্রিজ প্রতীকে ভোট চাইছেন। তাঁর ব্যক্তিগত ফেসবুক পেজ থেকেও ভিডিও চিত্র আপলোড করা হচ্ছে ভোট চেয়ে। শুধু প্রার্থীই নয়, তার সমর্থকরা একই কায়দায় প্রচারণা চালাচ্ছেন। নির্বাচন কমিশনের আচরণবিধিতে রঙিন পোস্টার, লিফলেট ছাপানো নিষিদ্ধ থাকলেও তা দৃশ্যমান ফেসবুকে। প্রার্থীর পক্ষের লোকজন এমন প্রচারণা চালিয়ে ভোটারদের আকৃষ্ট করতে চাইছেন। অথচ আজ বহুল প্রত্যাশিত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী দিলীপ কুমার আগরওয়ালা অভিযোগ করে বলেন, ‘নির্বাচন কমিশনের নিয়মানুযায়ী শুক্রবার সকাল ৮টায় সকল প্রকার প্রচার-প্রচারণা শেষ হয়েছে। এরপরও ফ্রিজ প্রতীকের প্রার্থী রাজ্জাক খান সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণা অব্যাহত রেখেছেন। বিষয়টি নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন। এ প্রচারণার ফলে ভোটারদের মনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হচ্ছে। আমি এ বিষয়ে অভিযোগ জানিয়েছি।’ তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে নির্বাচন কমিশনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। নির্বাচনী আচরণবিধির তোয়াক্কা না করে ফেসবুকে প্রচারণা চালানোয় আমি তার প্রার্থিতা বাতিলের দাবি জানাচ্ছি।’

এ বিষয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী ফ্রিজ প্রতীকের এম এ রাজ্জাক খানের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নির্বাচনী প্রচারণা চালানোর বিষয়ে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা ড. কিসিঞ্জার চাকমা বলেন, আইন অনুযায়ী ভোট গ্রহণের ৪৮ ঘণ্টা পূর্বে থেকে কোনো প্রকার নির্বাচনী প্রচারণা চালানো যাবে না। যারা নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন, যে অভিযোগগুলো আসছে, অভিযোগগুলোর যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট যে ইলেক্টোরাল কমিটি আছে, সেখানে আমরা পাঠিয়ে দিচ্ছি।’