ইপেপার । আজ রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

হরিণাকুণ্ডুতে সাবেক সেনা সদস্য কামরুজ্জামান হত্যা মামলা

অস্ত্র ও গুলিসহ প্রধান আসামি গ্রেপ্তার

সমীকরণ প্রতিবেদন
  • আপলোড টাইম : ১০:০৪:২৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৩১ ডিসেম্বর ২০২৩
  • / ০ বার পড়া হয়েছে

ঝিনাইদহ অফিস:

ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু পৌর এলাকার শুড়া গ্রামে সাবেক সেনা সদস্য ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা কামরুজ্জামান শামিম হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে কুখ্যাত সন্ত্রাসী আবু সাইদকে দুটি অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। গতকাল শনিবার ভোরে হরিণাকুণ্ডু শহর থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। আবু সাইদ পারদখলপুর গ্রামের ছানোয়ার হোসেন ছনুর ছেলে। গতকাল বিকেলে ঝিনাইদহ র‌্যাবের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, গত ২৩ নভেম্বর রাত আটটার দিকে শামীম হোসেন রাতের খাবার শেষ করে বাড়ি থেকে বের হন। এর কিছু সময় পরে হরিণাকুণ্ডু থানার পার্বতীপুর গ্রামের জব্বার মন্ডলের মেহগনি বাগানের পাশে খালপাড়ের একটি বাঁশের সাকোর নিচে শামীম হোসেনের রক্তাক্ত মরদেহ দেখতে পায় স্থানীয়রা। কিছু দুর্বৃত্তরা ভিকটিম শামীম হোসেনকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় ভিকটিমের স্ত্রী বাদী হয়ে পরদিন ২৪ নভেম্বর হরিণাকুণ্ডু থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করলে র‌্যাব ছায়া তদন্ত শুরু করে।

এরই মধ্যে র‌্যাবের আভিযানিক দল গত শুক্রবার মধ্যরাতে গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারে হরিণাকুণ্ডু শহরে কতিপয় ব্যক্তি সন্ত্রাসী অবৈধভাবে অস্ত্র ও গুলিসহ অবস্থান করছে। প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে গতকাল শনিবার ভোরে সেখানে অভিযান চালানো হয়। অভিযানকালে আবু সাইদ দুটি আগ্নেয়াস্ত্র ও ৬ রাউন্ড গুলিসহ গ্রেপ্তার হয়। র‌্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আবু সাইদ জানায়, সে আগ্নেয়াস্ত্রের ভয়-ভীতি দেখিয়ে এলাকায় বিভিন্ন সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিল। এছাড়া সে সাবেক সেনা সদস্য ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি কামরুজ্জামান শামীম হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত। শামিম হত্যার পর এতোদিন মামলাটি মোটিভ ও ক্লু লেস অবস্থায় ছিল বলে র‌্যাব জানায়।

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

হরিণাকুণ্ডুতে সাবেক সেনা সদস্য কামরুজ্জামান হত্যা মামলা

অস্ত্র ও গুলিসহ প্রধান আসামি গ্রেপ্তার

আপলোড টাইম : ১০:০৪:২৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৩১ ডিসেম্বর ২০২৩

ঝিনাইদহ অফিস:

ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু পৌর এলাকার শুড়া গ্রামে সাবেক সেনা সদস্য ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা কামরুজ্জামান শামিম হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে কুখ্যাত সন্ত্রাসী আবু সাইদকে দুটি অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। গতকাল শনিবার ভোরে হরিণাকুণ্ডু শহর থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। আবু সাইদ পারদখলপুর গ্রামের ছানোয়ার হোসেন ছনুর ছেলে। গতকাল বিকেলে ঝিনাইদহ র‌্যাবের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, গত ২৩ নভেম্বর রাত আটটার দিকে শামীম হোসেন রাতের খাবার শেষ করে বাড়ি থেকে বের হন। এর কিছু সময় পরে হরিণাকুণ্ডু থানার পার্বতীপুর গ্রামের জব্বার মন্ডলের মেহগনি বাগানের পাশে খালপাড়ের একটি বাঁশের সাকোর নিচে শামীম হোসেনের রক্তাক্ত মরদেহ দেখতে পায় স্থানীয়রা। কিছু দুর্বৃত্তরা ভিকটিম শামীম হোসেনকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় ভিকটিমের স্ত্রী বাদী হয়ে পরদিন ২৪ নভেম্বর হরিণাকুণ্ডু থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করলে র‌্যাব ছায়া তদন্ত শুরু করে।

এরই মধ্যে র‌্যাবের আভিযানিক দল গত শুক্রবার মধ্যরাতে গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারে হরিণাকুণ্ডু শহরে কতিপয় ব্যক্তি সন্ত্রাসী অবৈধভাবে অস্ত্র ও গুলিসহ অবস্থান করছে। প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে গতকাল শনিবার ভোরে সেখানে অভিযান চালানো হয়। অভিযানকালে আবু সাইদ দুটি আগ্নেয়াস্ত্র ও ৬ রাউন্ড গুলিসহ গ্রেপ্তার হয়। র‌্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আবু সাইদ জানায়, সে আগ্নেয়াস্ত্রের ভয়-ভীতি দেখিয়ে এলাকায় বিভিন্ন সন্ত্রাসী কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিল। এছাড়া সে সাবেক সেনা সদস্য ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি কামরুজ্জামান শামীম হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত। শামিম হত্যার পর এতোদিন মামলাটি মোটিভ ও ক্লু লেস অবস্থায় ছিল বলে র‌্যাব জানায়।