চুয়াডাঙ্গা সোমবার , ১১ ডিসেম্বর ২০২৩

চুয়াডাঙ্গা জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় জেলা প্রশাসক ড. কিসিঞ্জার চাকমা

নিউজ রুমঃ
ডিসেম্বর ১১, ২০২৩ ৮:৫৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

চলমান অবস্থা অক্ষুণ্ন রাখতে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে
সমীকরণ প্রতিবেদক:
আন্তঃবিভাগীয় সমন্বয় সুসংহত রাখার আহ্বান জানিয়ে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক ড. কিসিঞ্জার চাকমা বলেছেন, আসন্ন জাতীয় দ্বাদশ নির্বাচন শান্তিপূর্ণ পরিবেশে সম্পন্ন করতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি চলমান অবস্থা অক্ষুণ্ন রাখতে সম্মিলিতভাবে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখাতে হবে। সর্বক্ষেত্রেই দিতে হবে সজাগ দৃষ্টি। গতকাল রোববার সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে জেলার আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক উপরোক্ত অভিমত ব্যক্ত করেন।
তিনি বিজয়ের মাসে সকলকে শুভেচ্ছা জানিয়ে মহান বিজয় দিবসের সকল কর্মসূচিতে সকলকে অংশগ্রহণের মাধ্যমে সফল করার তাগিদ দিয়ে বলেন, চুয়াডাঙ্গা একটি পরিবার। সকলে মিলে ভালো থাকার লক্ষে সচেতন থাকতে হবে। তিনি বলেন, চুয়াডাঙ্গার সার্বিক উন্নয়নের পাশাপাশি আত্মহত্যা প্রবণতা হ্রাসে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার লক্ষে গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ প্রয়োজন। ভৌগলিক কারণে পরিবেশগত কোনো বিষয় রয়েছে কি না, তাও ক্ষতিয়ে দেখা দরকার। পার্শ্ববর্তী ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপায় আত্মহত্যার হার দেশের সর্বাধিক। চুয়াডাঙ্গায় এ প্রবণতার হার হতাশাজনক। ফলে কারণ শনাক্ত করে এ প্রবণতা হ্রাসে প্রয়োজন পদক্ষেপ নিতে হবে। বাড়াতে হবে সচেতনতা। এ লক্ষে কর্মসূচি হাতে নেওয়া প্রয়োজন। দুর্ঘটনার হারও বাড়াচ্ছে দুশ্চিন্তা। বাল্যবিবাহ হ্রাস পেয়েছে। নারী, শিশু পাচার রোধেও সম্মিলিত প্রচেষ্টা সফল হয়েছে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। চোরাচালান রোধে চুয়াডাঙ্গাস্থ ৬ বিজিবি পরিচালিত সাম্প্রতিকালের অভিযান প্রশংসার দাবি রাখে। পাচারমুখী ১৬ কেজি স্বর্ণ উদ্ধার করে বিজিবি দারুণ দায়িত্বশীলতার সাক্ষর রেখেছে। অপরদিকে ডিবিও চোরাচালান বিরোধী অভিযানে সফল্য দেখিয়েছে। ফলে বিজিবি ও ডিবি পুলিশকে অভিনন্দন।
আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার আর এম ফয়জুর রহমান পিপিএম (সেবা) জেলার সার্বিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার লক্ষে সকলের সহযোগিতা কামনা করে বলেন, খুলনা বিভাগের মধ্যে চুয়াডাঙ্গার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভালো। এক বছরের তথ্যে তুলনামূলক চুয়াডাঙ্গার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি চমৎকার। তবে এতে আত্মতুষ্টির কারণ নেই। কেননা, আইনশৃঙ্খলা হচ্ছে চলমান প্রক্রিয়া। ফলে পুলিশসহ সংশ্লিষ্ট সকল বিভাগের সকলকে সক্রিয় সজাগ থাকতে হয়। এ ক্ষেত্রে সমন্বয় খুব প্রয়োজন। যেটা চুয়াডাঙ্গায় রয়েছে। এটা ধরে রাখতে হবে। মাদক প্রায় সকল অপরাধের মূল। ফলে মাদক জিরো টলারেন্স। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পাশাপাশি পুলিশসহ সকলকে আন্তরিক হওয়া প্রয়োজন। সমাজের সচেতন মহলকেও এ বিষয়ে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে। তিনি আসন্ন নির্বাচন সম্পর্কে বলেন, কোনো দ্বিধা সংশয় থাকার কারণ নেই। নির্বাচন অবাধ শান্তিপূর্ণ করার লক্ষে নির্বাচন কমিশন যে নির্দেশনা দিয়েছে, তা যথযথভাবে প্রতিপালনের মাধ্যমে নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার লক্ষে সর্বাত্মক চেষ্টা করা হবে।
সভায় সদ্য পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রিয়াজুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কবীর হোসেন, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান মনজু, বিজিবি প্রতিনিধি মেজর আসিফ, চুয়াডাঙ্গা পৌর মেয়র জাহাঙ্গীর আলম মালিক খোকন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাজীম উদ্দীন আল আজাদ, সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. ফাতেহ আকরাম দোলন, বিজ্ঞ পিপি অ্যাড. বেলাল হোসেন, বিশেষ পিপি অ্যাড. আবু তালেব, জেলা আইনজীবী সমিতির নবনির্বাচিত সভাপতি অ্যাড. সামছুজ্জোহা, সদর উপজেলার নবাগত নির্বাহী অফিসারসহ আলমডাঙ্গা, জীবননগর ও দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী অফিসার উপস্থিত থেকে বিভাগীয় নিজ নিজ উপজেলার সার্বিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির বর্ণনা দেন।
এছাড়াও হালচিত্র তুলে ধরে জেলা মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালকসহ সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রধানগণ অভিমত ব্যক্ত করেন। সভায় গতসভার কার্যবিবরণী উপস্থাপন করেন সিনিয়র সহকারী কমিশনার শেখ মো. রাসেল।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।