ইপেপার । আজ রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দামুড়হুদার সদাবরী গ্রামে গোপনে মেয়েকে বাল্যবিবাহ

সমীকরণ প্রতিবেদন
  • আপলোড টাইম : ১২:১১:৩৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ জুন ২০২৩
  • / ২ বার পড়া হয়েছে

প্রতিবেদক, কার্পাসডাঙ্গা:
দামুড়হুদা উপজেলার কুড়ুলগাছি ইউনিয়নের সদাবরী গ্রামের কবরস্থান পাড়ায় বাল্যবিবাহ দেওয়ায় কনের পিতাকে জরিমানা করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন দামুড়হুদা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সজল কুমার।

জানা গেছে, সদাবরী গ্রামের আলতাফ হোসেনের ছেলে চান্দু মিয়ার নাবালিকা মেয়েকে গোপনে বিয়ে দেয় কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়নের সুবুলপুর গ্রামে। গতকাল শুক্রবার দুপুরে কনের বাড়ি থেকে বরপক্ষ এসে নাবালিকা গৃহবধূকে নিয়ে যায়। বাল্যবিবাহের ঘটনা জানতে পেরে দ্রুত ঘটনাস্থলে যান দামুড়হুদা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সজল কুমার। ততক্ষণে কনেকে নিয়ে বর বাড়ি চলে যায়। তবে জিজ্ঞেসাবাদে কনের বাবা অকপটে স্বীকার করেন কনেকে বাল্যবিবাহ দেওয়ার ঘটনা। তাই কনের পিতাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করাসহ কনেকে তার হাতে বুঝিয়ে দেওয়া হয়। আর মেয়েকে ১৮ বছর বয়স না হওয়া পর্যন্ত শ্বশুরবাড়ি পাঠাবে না মর্মে মুচলেকা দেন তার পিতা।

এসময় উপস্থিত ছিলেন কুড়ুলগাছি ইউপি চেয়ারম্যান কামাল উদ্দীন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সরোয়ার হোসেন ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হোসেন। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনায় সহযোগিতা করে দর্শনা থানা-পুলিশের একটি দল।

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

দামুড়হুদার সদাবরী গ্রামে গোপনে মেয়েকে বাল্যবিবাহ

আপলোড টাইম : ১২:১১:৩৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ জুন ২০২৩

প্রতিবেদক, কার্পাসডাঙ্গা:
দামুড়হুদা উপজেলার কুড়ুলগাছি ইউনিয়নের সদাবরী গ্রামের কবরস্থান পাড়ায় বাল্যবিবাহ দেওয়ায় কনের পিতাকে জরিমানা করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন দামুড়হুদা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সজল কুমার।

জানা গেছে, সদাবরী গ্রামের আলতাফ হোসেনের ছেলে চান্দু মিয়ার নাবালিকা মেয়েকে গোপনে বিয়ে দেয় কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়নের সুবুলপুর গ্রামে। গতকাল শুক্রবার দুপুরে কনের বাড়ি থেকে বরপক্ষ এসে নাবালিকা গৃহবধূকে নিয়ে যায়। বাল্যবিবাহের ঘটনা জানতে পেরে দ্রুত ঘটনাস্থলে যান দামুড়হুদা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সজল কুমার। ততক্ষণে কনেকে নিয়ে বর বাড়ি চলে যায়। তবে জিজ্ঞেসাবাদে কনের বাবা অকপটে স্বীকার করেন কনেকে বাল্যবিবাহ দেওয়ার ঘটনা। তাই কনের পিতাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করাসহ কনেকে তার হাতে বুঝিয়ে দেওয়া হয়। আর মেয়েকে ১৮ বছর বয়স না হওয়া পর্যন্ত শ্বশুরবাড়ি পাঠাবে না মর্মে মুচলেকা দেন তার পিতা।

এসময় উপস্থিত ছিলেন কুড়ুলগাছি ইউপি চেয়ারম্যান কামাল উদ্দীন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সরোয়ার হোসেন ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হোসেন। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনায় সহযোগিতা করে দর্শনা থানা-পুলিশের একটি দল।