ইপেপার । আজ মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নারীর মামলায় আদালতের নির্দেশে থামলেন ‘৬০০ সন্তানের বাবা’

সমীকরণ প্রতিবেদন
  • আপলোড টাইম : ১১:৪৭:২৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৬ জুন ২০২৩
  • / ৫ বার পড়া হয়েছে

বিস্ময় প্রতিবেদন:
একাই জন্ম দিয়েছেন ৬০০ সন্তান। ভাবছেন এ আবার কিভাবে সম্ভব! নেদারল্যান্ডসের এক ব্যক্তি স্পার্ম ডোনেটের মাধ্যমে কাজটি করেছেন। বিভিন্ন নারীর গর্ভে দিয়েছেন ৫৫০-এর অধিক সন্তান। এই ব্যক্তির নাম জোনাথন মেইজে। ৪১ বছর বয়সী মানুষটির সব মিলিয়ে রয়েছে ৬০০ সন্তান। ২০০৭ সাল থেকেই স্পার্ম ডোনেট করেন তিনি। বিভিন্ন দেশেও স্পার্ম ডেলিভারি দেন। এভাবেই এত সন্তানের পিতা হয়েছেন মেইজে। এবার এক নারীর অভিযোগের ভিত্তিতে মেইজেকে স্পার্ম ডোনেট বন্ধ করতে বলেছে আদালত। মেইজেকে যেন আর শুক্রানু দানের অনুমতি দেয়া না হয় এই আরজি জানিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হন তিনি। ডাচ পিতামাতার স্বার্থের প্রতিনিধিত্বকারী ডোনারকাইন্ড ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে ওই নারী মামলা দায়ের করেন। আদালতের রায়ে বলা হয়েছে, জোনাথন মেইজে আর কোনো হাসপাতালে শুক্রানু দান করতে পারবেন না। এই নির্দেশ অমান্য করলে তাকে ১ লাখ ইউরো জরিমানা দিতে হবে। বাংলাদেশের টাকায় যার পরিমাণ কোটি টাকার বেশি। নেদারল্যান্ডসের আইন অনুসারে, একজন শুক্রানুদাতা সর্বোচ্চ ২৫ জন সন্তানের বাবা হতে পারবেন ১২টি পরিবারের মধ্যে। শিশুর মানসিক সমস্যা এড়াতে এই সংখ্যা নির্ধারণ করে দেয়া হয়। ডোনারকাইন্ড ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান টাইস ভ্যান ডের সে দেশের গণমাধ্যমে বলেন, আমরা এই ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছি কারণ জাতীয় সরকার কিছুই করছে না। ইন্টারনেটের মাধ্যমে তার বিশ্বব্যাপী নাগাল রয়েছে এবং তিনি বড় আন্তর্জাতিক স্পার্ম ব্যাংকের সঙ্গে ব্যবসা করেন। ফাউন্ডেশনের আইনজীবী মার্ক ডি হেক বলেছেন, এই আচরণ দাতা শিশুদের মানসিক সুস্থতা এবং স্বাস্থ্যের জন্য বিপজ্জনক। তার প্রজনন ইচ্ছাকে প্রাধান্য দিয়ে, দাতা বেআইনিভাবে কাজ করছেন। এছাড়া, তিনি ক্লিনিক এবং সম্ভাব্য পিতামাতার সঙ্গে চুক্তি লঙ্ঘন করেছেন। কারণ তারা তার প্রতিশ্রুতিতে বিশ্বাস করেছিলেন যে তিনি সর্বাধিক ২৫ সন্তানের পিতা হবেন।

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

নারীর মামলায় আদালতের নির্দেশে থামলেন ‘৬০০ সন্তানের বাবা’

আপলোড টাইম : ১১:৪৭:২৩ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৬ জুন ২০২৩

বিস্ময় প্রতিবেদন:
একাই জন্ম দিয়েছেন ৬০০ সন্তান। ভাবছেন এ আবার কিভাবে সম্ভব! নেদারল্যান্ডসের এক ব্যক্তি স্পার্ম ডোনেটের মাধ্যমে কাজটি করেছেন। বিভিন্ন নারীর গর্ভে দিয়েছেন ৫৫০-এর অধিক সন্তান। এই ব্যক্তির নাম জোনাথন মেইজে। ৪১ বছর বয়সী মানুষটির সব মিলিয়ে রয়েছে ৬০০ সন্তান। ২০০৭ সাল থেকেই স্পার্ম ডোনেট করেন তিনি। বিভিন্ন দেশেও স্পার্ম ডেলিভারি দেন। এভাবেই এত সন্তানের পিতা হয়েছেন মেইজে। এবার এক নারীর অভিযোগের ভিত্তিতে মেইজেকে স্পার্ম ডোনেট বন্ধ করতে বলেছে আদালত। মেইজেকে যেন আর শুক্রানু দানের অনুমতি দেয়া না হয় এই আরজি জানিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হন তিনি। ডাচ পিতামাতার স্বার্থের প্রতিনিধিত্বকারী ডোনারকাইন্ড ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে ওই নারী মামলা দায়ের করেন। আদালতের রায়ে বলা হয়েছে, জোনাথন মেইজে আর কোনো হাসপাতালে শুক্রানু দান করতে পারবেন না। এই নির্দেশ অমান্য করলে তাকে ১ লাখ ইউরো জরিমানা দিতে হবে। বাংলাদেশের টাকায় যার পরিমাণ কোটি টাকার বেশি। নেদারল্যান্ডসের আইন অনুসারে, একজন শুক্রানুদাতা সর্বোচ্চ ২৫ জন সন্তানের বাবা হতে পারবেন ১২টি পরিবারের মধ্যে। শিশুর মানসিক সমস্যা এড়াতে এই সংখ্যা নির্ধারণ করে দেয়া হয়। ডোনারকাইন্ড ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান টাইস ভ্যান ডের সে দেশের গণমাধ্যমে বলেন, আমরা এই ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছি কারণ জাতীয় সরকার কিছুই করছে না। ইন্টারনেটের মাধ্যমে তার বিশ্বব্যাপী নাগাল রয়েছে এবং তিনি বড় আন্তর্জাতিক স্পার্ম ব্যাংকের সঙ্গে ব্যবসা করেন। ফাউন্ডেশনের আইনজীবী মার্ক ডি হেক বলেছেন, এই আচরণ দাতা শিশুদের মানসিক সুস্থতা এবং স্বাস্থ্যের জন্য বিপজ্জনক। তার প্রজনন ইচ্ছাকে প্রাধান্য দিয়ে, দাতা বেআইনিভাবে কাজ করছেন। এছাড়া, তিনি ক্লিনিক এবং সম্ভাব্য পিতামাতার সঙ্গে চুক্তি লঙ্ঘন করেছেন। কারণ তারা তার প্রতিশ্রুতিতে বিশ্বাস করেছিলেন যে তিনি সর্বাধিক ২৫ সন্তানের পিতা হবেন।