ইপেপার । আজ রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ১৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ফুরফুরা দরবার শরীফে তিন দিনব্যাপী ইছালে সওয়াব শুরু আজ

সমীকরণ প্রতিবেদন
  • আপলোড টাইম : ০৫:২৫:১০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৬ মার্চ ২০২৩
  • / ২৪ বার পড়া হয়েছে

ঝিনাইদহ অফিস:
ফুরফুরা শরীফের বার্ষিক ইছালে সওয়াব আজ সোমবার থেকে শুরু হচ্ছে। গতকাল রোববার বিকেলে ভারতের হুগলী জেলার ফুরফুরা দরবার শরীফে খাস মিলাদ মাহফিলের মধ্যদিয়ে ঐতিহাসিক ইছালে সওয়াবের কার্যক্রম শুরু হয়। আগামী বৃহস্পতিবার ফজর বাদ মিলাদ, জিকির ও দোয়া মাহফিলের মধ্যদিয়ে তিন দিনব্যাপী এই ইছালে সওয়াব শেষ হবে। ইছালে সওয়াব মাহফিল আমাদের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়ে গেছে যুগ পরম্পরাগতভাবে। এই ইছালে সওয়াব মাহফিলের অর্থ সওয়াব পৌঁছানোর সম্মেলন। তাই এপার বাংলা ওপার বাংলার লাখ লাখ মুসলমান উপমহাদেশের প্রখ্যাত পীর মুজাদ্দেদে যামান হযরত আবু বকর সিদ্দিকী (রহ.) প্রবর্তিত ইছালে সওয়াবে যোগদান করেন। ন’হুজুর পীর কেবলার জৈষ্ঠ্য পুত্র পীর এ কামেল আল্লামা হযরত বাকী বিল্লাহ (রহ.)-এঁর একমাত্র সাহেবজাদা এবং জমিয়তে জাকেরিণের মূখ্য নির্দেশক মওলানা মোহা. আল্লামা জাবিহ্হুল্লাহ সিদ্দিক (মাদ্দ.) এক বাণীতে দাদা হুজুর কেবলার সিলসিলাকে আঁকড়ে থাকার জন্য তাঁর ভক্ত, মুরিদ ও আশেকানদের প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন, দাদা হুজুর কেবলার এই ইছালে সওয়াবের মাহফিল কেয়ামত পর্যন্ত কায়েম থাকবে এবং সমাজ থেকে শিরক, কুফরি ও বিদায়াত উচ্ছেদে মূখ্য ভূমিকা পালন করে যাবে ইনশাল্লাহ।
তথ্য নিয়ে জানা গেছে, ১৮৯০ সালে ফুরফুরা শরীফের পীর মুজাদ্দিদে যামান মাওলানা শাহ্ সুফী আবু বকর সিদ্দিকী রহমাতুল্লাহি আলায়হি ফাল্গুন মাসের ২১, ২২ ও ২৩ তারিখ নির্ধারণ করে ফুরফুরা শরীফে ইসালে সওয়াব ও ওয়াজ মাহফিল কায়েম করেন যা আজও ওই তিন দিন ধরে সেখানে লাখ লাখ লোকের আগমন ঘটছে। তিনি ইসালে সওয়াব মাহফিল সম্পর্কে বলেছেন, ু‘আমি জানি, আল্লাহ্ বলিয়াছেন : ইয়া আইয়ুহাল লাযীনা আমানু কুও আনফুসাকুম ওয়া আহলিকুম্ নারা- হে ইমানদারগণ, তোমরা নিজেদিগকে ও নিজের পরিজনকে অগ্নি হতে রক্ষা কর।’ এই আয়াতের মর্ম অবলম্বনে আমার বাড়িতে দেশী-বিদেশী সকলকে আম দাওয়াত দিয়া বহু আলেম-ওলামা, হাফেজ, ক্বারী কর্তৃক ওয়াজ-নসিহত করাইয়া ও নিজে করিয়া, শরিয়তের হুকুম আহকাম জানাইয়া দেই। ৬০-৭০ খতম কুরআন শরীফ, সূরা এখলাস ও ফাতেহা, কলেমা ইত্যাদি পড়ানো হয়। এই সমস্তে সওয়াব রাসুল পাক (সাঃ) ও যাবতীয় ওলি-আওলিয়া গওছ, কুতুব এবং যাবতীয় মুসলমানদের রুহের ওপর সওয়াব রেছানি করা হয়। এ জন্য এই মাহফিলের নাম ইসালে সওয়াব। এই মাহফিল যাহাতে আল্লাহ্ কায়েম রাখেন, তাহার চেষ্টা আমার পুত্রগণ, খলিফাগণ ও মুরিদগণ করিবেন। খলিফাগণের মধ্যে যদি কাহারও বাড়িতে এ রূপ মাহফিল করিতে কাহারও শক্তি হয়, তবে তিনি তাহা করিবেন। সাবধান! কেহ যেন অর্থের লোভে বা অন্য কোন রূপ মান-মর্যাদার জন্য না করেন। বিশুদ্ধ হেদায়েতের নিয়তে করিলে বহু নেকি পাইবেন। আরও সাবধান থাকিবেন যে, যেন এই মাহফিলে কোন প্রকার বেদয়াত ও হারাম কার্য বা নামাজের জামায়াত তরক না হয়। বাজে তামাসা ইত্যাদি না হয়।’

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

ফুরফুরা দরবার শরীফে তিন দিনব্যাপী ইছালে সওয়াব শুরু আজ

আপলোড টাইম : ০৫:২৫:১০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৬ মার্চ ২০২৩

ঝিনাইদহ অফিস:
ফুরফুরা শরীফের বার্ষিক ইছালে সওয়াব আজ সোমবার থেকে শুরু হচ্ছে। গতকাল রোববার বিকেলে ভারতের হুগলী জেলার ফুরফুরা দরবার শরীফে খাস মিলাদ মাহফিলের মধ্যদিয়ে ঐতিহাসিক ইছালে সওয়াবের কার্যক্রম শুরু হয়। আগামী বৃহস্পতিবার ফজর বাদ মিলাদ, জিকির ও দোয়া মাহফিলের মধ্যদিয়ে তিন দিনব্যাপী এই ইছালে সওয়াব শেষ হবে। ইছালে সওয়াব মাহফিল আমাদের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়ে গেছে যুগ পরম্পরাগতভাবে। এই ইছালে সওয়াব মাহফিলের অর্থ সওয়াব পৌঁছানোর সম্মেলন। তাই এপার বাংলা ওপার বাংলার লাখ লাখ মুসলমান উপমহাদেশের প্রখ্যাত পীর মুজাদ্দেদে যামান হযরত আবু বকর সিদ্দিকী (রহ.) প্রবর্তিত ইছালে সওয়াবে যোগদান করেন। ন’হুজুর পীর কেবলার জৈষ্ঠ্য পুত্র পীর এ কামেল আল্লামা হযরত বাকী বিল্লাহ (রহ.)-এঁর একমাত্র সাহেবজাদা এবং জমিয়তে জাকেরিণের মূখ্য নির্দেশক মওলানা মোহা. আল্লামা জাবিহ্হুল্লাহ সিদ্দিক (মাদ্দ.) এক বাণীতে দাদা হুজুর কেবলার সিলসিলাকে আঁকড়ে থাকার জন্য তাঁর ভক্ত, মুরিদ ও আশেকানদের প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন, দাদা হুজুর কেবলার এই ইছালে সওয়াবের মাহফিল কেয়ামত পর্যন্ত কায়েম থাকবে এবং সমাজ থেকে শিরক, কুফরি ও বিদায়াত উচ্ছেদে মূখ্য ভূমিকা পালন করে যাবে ইনশাল্লাহ।
তথ্য নিয়ে জানা গেছে, ১৮৯০ সালে ফুরফুরা শরীফের পীর মুজাদ্দিদে যামান মাওলানা শাহ্ সুফী আবু বকর সিদ্দিকী রহমাতুল্লাহি আলায়হি ফাল্গুন মাসের ২১, ২২ ও ২৩ তারিখ নির্ধারণ করে ফুরফুরা শরীফে ইসালে সওয়াব ও ওয়াজ মাহফিল কায়েম করেন যা আজও ওই তিন দিন ধরে সেখানে লাখ লাখ লোকের আগমন ঘটছে। তিনি ইসালে সওয়াব মাহফিল সম্পর্কে বলেছেন, ু‘আমি জানি, আল্লাহ্ বলিয়াছেন : ইয়া আইয়ুহাল লাযীনা আমানু কুও আনফুসাকুম ওয়া আহলিকুম্ নারা- হে ইমানদারগণ, তোমরা নিজেদিগকে ও নিজের পরিজনকে অগ্নি হতে রক্ষা কর।’ এই আয়াতের মর্ম অবলম্বনে আমার বাড়িতে দেশী-বিদেশী সকলকে আম দাওয়াত দিয়া বহু আলেম-ওলামা, হাফেজ, ক্বারী কর্তৃক ওয়াজ-নসিহত করাইয়া ও নিজে করিয়া, শরিয়তের হুকুম আহকাম জানাইয়া দেই। ৬০-৭০ খতম কুরআন শরীফ, সূরা এখলাস ও ফাতেহা, কলেমা ইত্যাদি পড়ানো হয়। এই সমস্তে সওয়াব রাসুল পাক (সাঃ) ও যাবতীয় ওলি-আওলিয়া গওছ, কুতুব এবং যাবতীয় মুসলমানদের রুহের ওপর সওয়াব রেছানি করা হয়। এ জন্য এই মাহফিলের নাম ইসালে সওয়াব। এই মাহফিল যাহাতে আল্লাহ্ কায়েম রাখেন, তাহার চেষ্টা আমার পুত্রগণ, খলিফাগণ ও মুরিদগণ করিবেন। খলিফাগণের মধ্যে যদি কাহারও বাড়িতে এ রূপ মাহফিল করিতে কাহারও শক্তি হয়, তবে তিনি তাহা করিবেন। সাবধান! কেহ যেন অর্থের লোভে বা অন্য কোন রূপ মান-মর্যাদার জন্য না করেন। বিশুদ্ধ হেদায়েতের নিয়তে করিলে বহু নেকি পাইবেন। আরও সাবধান থাকিবেন যে, যেন এই মাহফিলে কোন প্রকার বেদয়াত ও হারাম কার্য বা নামাজের জামায়াত তরক না হয়। বাজে তামাসা ইত্যাদি না হয়।’