চুয়াডাঙ্গা মঙ্গলবার , ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

ইসিতে এমপিদের দৌঁড়ঝাপ

নিউজ রুমঃ
ফেব্রুয়ারি ৭, ২০২৩ ৯:০৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সমীকরণ প্রতিবেদন:
দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নানা তদবির নিয়ে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) মুখাপেক্ষি হচ্ছেন সংসদ সদস্যরা (এমপি)। অবশ্য সংসদীয় আসনের সীমানা নির্ধারণের প্রক্রিয়া শুরুর প্রাক্কালে এমপিদের এসব আবদার রক্ষার বিষয়টিকে ইতিবাচক হিসেবেই দেখছে নির্বাচন আয়োজনকারী সংস্থাটি। আজ মঙ্গলবার এ নিয়ে ইসিতে কমিশন বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। ওই বৈঠকে এমপিদের করা অনুরোধগুলো পর্যালোচনা করা হবে নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর অবশ্য এরইমধ্যে জানিয়েছেন, সীমানা নির্ধারণের বিষয়ে জনপ্রতিনিধিদের মতামত গুরুত্ব পাবে। ইসি সূত্রে জানা- গেছে, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন মহল থেকে সীমানা নির্ধারণের বিষয়ে ইসিতে আবেদন জমা পড়ছে। অনেকেই বর্তমান সীমানা বহাল রাখার আবেদন করেছেন। কেউ কেউ আবার আরও আগের সীমানা বহাল রাখার আবেদন জানিয়েছেন। তবে মৌখিকভাবে তদবির করলেও এমপিদের কেউ এখনও লিখিত আবেদন করেনি। সীমানা পুননির্ধারণের জন্য প্রশাসনিক সুবিধা, ভৌগোলিক অখণ্ডতা ও জনসংখ্যাকে বিবেচনায় নিতে বলা হয়েছে আইনে। এজন্য সম্প্রতি সব জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাদের কাছে প্রশাসনিক পরিবর্তন সংক্রান্ত তথ্য চেয়েছিল ইসি। সেই তথ্যও তারা দিয়েছেন বলে জানা গেছে।
তবে ছাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নানা তদবির নিয়ে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) মুখাপেক্ষি হচ্ছেন সংসদ সদস্যরা (এমপি)। অবশ্য সংসদীয় আসনের সীমানা নির্ধারণের প্রক্রিয়া শুরুর প্রাক্কালে এমপিদের এসব আবদার রক্ষার বিষয়টিকে ইতিবাচক হিসেবেই দেখছে নির্বাচন। আয়োজনকারী সংস্থাটি। আজ মঙ্গলবার এ নিয়ে ইসিতে কমিশন বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। ওই বৈঠকে এমপিদের করা অনুরোধগুলো পর্যালোচনা করা হবে নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর অবশ্য এরইমধ্যে জানিয়েছেন, সীমানা নির্ধারণের বিষয়ে আদমশুমারির চূড়ান্ত প্রতিবেদন এখনও পায়নি ইসি। জনপ্রতিনিধিদের মতামত গুরুত্ব পাবে।
ইসি সূত্রে জানা সীমানা পুনর্র্নিধারণ সংক্রান্ত কমিটির প্রধান নির্বাচন গেছে, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন মহল থেকে সীমানা কমিশনার মো. আলমগীর এ বিষয়ে বলেন, আমরা এখন পর্যন্ত আবেদন আহ্বান করিনি। তারপরও অনেকে ব্যক্তিগতভাবে দরখাস্ত দিচ্ছে। স্থানীয় সংসদ সদস্যরা, রাজনৈতিক নেতারা যোগাযোগ করছেন। দুই রকম দরখাস্তই আসছে আমাদের কাছে। যেমন আজকেও একজন সংসদ সদস্য এসেছিলেন। উনি নিজ এলাকার পরিবর্তন চান না। গত পরশু একজন সংসদ সদস্য এসে বলেছেন উনি পরিবর্তন চান না। এরআগে একজন সংসদ সদস্য বলেছেন উনি উনার এলাকার পরিবর্তন চান। মো. আলমগীর বলেন, সীমানার পরিবর্তন চাওয়া এমপি বলেছেন, তার এলাকায় অন্য উপজেলার দুটি ইউনিয়ন দেয়া আছে। ওই ইউনিয়নগুলো তার এলাকার না। ওই প্রশাসনিক এলাকার এমপি আলাদা। অথচ ওই এলাকা তার নির্বাচনী এলাকায় যুক্ত হয়ে গেছে। এটি চান না তিনি। ওই দুটি ইউনিয়ন তার নির্বাচনী এলাকা থেকে বাদ দিলে তিনি খুব খুশি হবেন বলে জানান ওই এমপি। ইসি আলমগীর বলেন, আদমশুমারির চূড়ান্ত প্রতিবেদন এখনও পাইনি। তবে আমরা অপেক্ষা করতে পারব না। কেননা, জুনের মধ্যে আমরা সীমানা পুনর্র্নিধারণের কাজ সম্পন্ন করব। আমরা শূন্য থেকে কাজ শুরু করব। যারা পরিবর্তন করতে চান, তারা কেনো পরিবর্তন করতে চান তার জন্য শুনানি দিতে হবে। যেমন একজন এমপি বললেন তার এলাকা থেকে দুইটা ইউনিয়ন ছেড়ে দিতে চান। সেটি করতে হলে তো আরেকটি আসনে এই দুটি ইউনিয়ন দিতে হবে। এখন সেই আসনের এমপি এটি নিতে চান কি না সেটিও তো জানতে হবে।
জানা গেছে, এখন পর্যন্ত ১৫টির মতো আবেদন জমা পড়েছে। আবেদন করাদের মধ্যে সংশ্লিষ্ট এলাকার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, উপজেলা চেয়ারম্যান, পৌরসভা মেয়র, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, অ্যাডভোকেটও রয়েছেন। এরমধ্যে কুমিল্লা-১ ও কুমিল্লা-২ আসনেরর সীমানা নিয়ে পাঁচটির আবেদন জমা পড়েছে। একটিতে বিদ্যমান কুমিল্লা-১ (দাউদকান্দি-মেঘনা) ও কুমিল্লা-২ (হোমনা-তিতাস) সংসদীয় আসনের সীমানা পরিবর্তন করে হোমনা ও মেঘনা উপজেলার সমন্বয়ে আসন পুনর্র্নিধারণ এবং আরেকটি আবেদনে কুমিল্লা-১ ও ২ আসনের বিদ্যমান সংসদীয় আসনের সীমানা পরিবর্তন করে হোমনা ও মেঘনা উপজেলায় পুনর্র্নিধারণ চাওয়া হয়েছে। এছাড়া, হোমনা ও মেঘনা উপজেলার সমন্বয়ে সংসদীয় আসনের পুনর্র্নিধারণ, বিদ্যমান কুমিল্লা-১ (দাউদকান্দি ও মেঘনা) এবং কুমিল্লা-২ (হোমনা ও তিতাস) উপজেলার পরিবর্তে সংসদীয় আসনের পূর্ব ইতিহাস অনুযায়ী হোমনা ও মেঘনা উপজেলার সমন্বয়ে নির্বাচনী এলাকা পুনর্র্নিধারণের আবেদনও পড়েছে ইসিতে। অন্যদিকে, সিরাজগঞ্জ-১ ও ৫ আসন নিয়েও আবেদন জমা পড়েছে ইসিতে। এতে সিরাজগঞ্জ জেলায় সমন্বয়ের (বেলকুচি ও কামারকন্দ) ভিত্তিতে পুনর্র্নিধারণের কথা বলা হয়েছে। পিরোজপুর-৩ আসনের (মঠবাড়িয়া উপজেলা) সংসদীয় আসনের বর্তমান সীমানা বহাল চেয়ে আবেদন করা হয়েছে। আনুষ্ঠানিক আবেদন জমা দেয়ার সময় শেষ হলে প্রাথমিক তালিকা প্রকাশ করবে ইসি। এরপর দাবি, আপত্তি ও শুনানি শেষে চূড়ান্ত করা হবে সংসদীয় আসনের সীমানা।
নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর এ বিষয়ে বলেন, জনগণ ও জনপ্রতিনিধিদের মতামত নিয়ে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সীমানা পুনর্র্নিধারণ করা হবে। তবে প্রশাসনিক অখণ্ডতাকে প্রাধান্য দেয়া হবে। তিনি বলেন, সীমানা পুনর্র্নিধারণের ক্ষেত্রে জনসংখ্যা হচ্ছে তিন নম্বর গুরুত্ব। প্রথম গুরুত্ব হচ্ছে প্রশাসনিক যদি কোনো প্রশাসনিক পরিবর্তন না হয়ে থাকে তাহলে তো আমদের পরিবর্তন করার প্রয়োজন নেই। যদি কোনো ভৌগোলিক পরিবর্তন না হয়ে থাকে তাহলেও করার প্রয়োজন নেই। শুধুমাত্র একটাই ফ্যাক্টর আছে, সেটা হলো জনসংখ্যার কারণে। জনসংখ্যাটাকে তো আর সমবণ্টন করা যায় না। তিনি বলেন, ৭ ফেব্রুয়ারি এ নিয়ে কমিশন সভা অনুষ্ঠিত হবে। ওই সভায় আমাদের প্রিন্সিপালগুলো কী হবে তা ঠিক করা হবে। প্রসঙ্গত, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের নেতৃত্বাধীন কমিশন ৫০টি আসনে পরিবর্তন আনে। এরপর একাদশ সংসদ নির্বাচনের পূর্বে কেএম নূরুল হুদা কমিশন পরিবর্তন আনে ২৫টি আসনের সীমানায়।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।