চুয়াডাঙ্গা রবিবার , ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হঠাৎ হেঁচকি, থামছেই না, কী করবেন?

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২ ১:৫৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

লাইফস্টাইল ডেস্ক: হঠাৎ শুরু হল হেঁচকি। পানিখেলেও কমছে না। ক্রমাগত হেঁচকি উঠেই যাচ্ছে। কিছুতেই কমে না। এমন বেমক্কা হেঁচকির ঠেলায় চোখমুখ লাল হওয়ার জোগাড়। এতে পাশে থাকা মানুষজনেরও অসুবিধা হয়। এমন হেঁচকি কিন্তু যে কোনও সময়ে উঠতে পারে। ধরুন আপনি অফিসের একটি দরকারি মিটিংয়ে রয়েছেন। হঠাৎই হেঁচকি ওঠা শুরু হল। কী করবেন? পানিখাওয়া ছাড়াও হেঁচকি থামানোর বেশ কয়েকটি উপায় রয়েছে। সেগুলি ঠিক করে মেনে চললে হেঁচকি থামবে নিমেষে।

কোনো কারণ ছাড়াই যখন তখন মানুষের হেঁচকি শুরু হলে তা নিয়ে অবাক হওয়ার কিছু নেই। বিশেষজ্ঞদের মতে, পরিপাকতন্ত্রের গোলমালের কারণেই মানুষের হেঁচকি আসে।

বিজ্ঞানীরা শত শত বছর ধরে আপাতদৃষ্টিতে ক্ষতিহীন এই শ্বাসপ্রশ্বাসজনিত সমস্যার সুনির্দিষ্ট কারণ খোঁজার চেষ্টা করেছেন। হেঁচকির সময় শ্বাসনালীতে সামান্য খিঁচুনির মত হয় যার ফলে শ্বাসযন্ত্রে দ্রুত বাতাস প্রবেশ করে। তখন ভোকাল কর্ড হঠাৎ বন্ধ হয়ে ‘হিক’ শব্দ তৈরি হয়।

ফুসফুসের নিচের পাতলা মাংসপেশীর স্তর, যেটিকে ডায়াফ্রাম বলে, হঠাৎ সংকোচনের ফলেই হেঁচকি তৈরি হয়। হেঁচকি ওঠার একশো’র বেশি মেডিক্যাল কারণ থাকতে পারে, তবে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সেগুলো খুবই সামান্য কারণেই হয়ে থাকে।

হেঁচকি থামানোর উপায়

ঘরোয়াভাবে হেঁচকি থামানোর প্রচেষ্টার ক্ষেত্রে মূলত দুইটি মূলনীতি অনুসরণ করা হয়।

একটি হলো রক্তে কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়া যেন শ্বাসনালীতে খিঁচুনি বন্ধ হয়।

আরেকটি হলো শ্বাসপ্রশ্বাস ও গলধকরণের মধ্যে সমন্বয় সাধন করা ‘ভ্যাগাস’ স্নায়ুকে উদ্দীপ্ত করা।

তাহলে জেনে নিন, হেঁচকি হলে থামাতে কী করবেন

১) মুখে হাত চাপা দিন। শ্বাসপ্রশ্বাস স্বাভাবিক রাখুন। এতে ফুসফুসে কার্বন ডাই-অক্সাইডের মাত্রা বাড়বে। হেঁচকিও কমে যাবে।

২) বুক ভরে শ্বাস নিন। কিছু ক্ষণ শ্বাস ধরে রাখুন। এতেও শরীরে কার্বন ডাই-অক্সাইডের মাত্রা বাড়বে। ধীরে ধীরে হেঁচকি কমে যাবে।

৩) দু’হাতের আঙুল দিয়ে কান বন্ধ করে রাখুন। এতে স্নায়ুতন্ত্রে সঙ্কেত পৌঁছাবে। ২০ থেকে ৩০ সেকেন্ড এ ভাবে কান বন্ধ করে রাখুন। হেঁচকি ওঠা বন্ধ হবে।

৪) কয়েক মিনিট জিভ বার করে রাখুন। এতে গ্লটিসের মুখ প্রসারিত হবে। শ্বাসপ্রশ্বাস চালাতেও সুবিধা হবে, হেঁচকিও কমে যাবে।

৫) বোতল থেকে জল খাবেন না। গ্লাসে জল নিয়ে কয়েক বার ছোট ছোট চুমুক দিন। এ ভাবে ধাপে ধাপে জল খেলে হেঁচকি দ্রুত বন্ধ হবে।

৬) গ্লাসে জল নিন। এ বারে দু’হাতের আঙুল দিয়ে কান বন্ধ করে স্ট্র দিয়ে ধীরে ধীরে জল খান। দেখবেন হেঁচকি কমে আসছে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।