ইপেপার । আজ রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কান্নাকাটি

সমীকরণ প্রতিবেদন
  • আপলোড টাইম : ০৮:১৮:৩৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০২০
  • / ১৬৯ বার পড়া হয়েছে

ধর্ম প্রতিবেদন
হাদিসে কুদছিতে আছে আল্লাহপাক বলেন- গুনাহগারদের কান্নাকাটির আওয়াজ তসবিহ জপকারীদের আওয়াজ অপেক্ষা আমার কাছে অধিক প্রিয় (তাফসির রুহুল মাআনী খণ্ড ৩০ পৃ. ৫৩৩)। এ হাদিস শরিফ মূলত কোরআনে কারীমের ওই (১) আয়াতে কারীমারই প্রতিচ্ছবি এবং প্রতিধ্বনি যে (২) আয়াতে আল্লাহপাক পাপী বান্দাদের পাপসমূহ ক্ষমা করার সুসংবাদ দিয়েছেন। আল্লাহপাক বলেন, ‘আল্লাহ তওবাকারীকে ভালোবাসেন এবং যারা পবিত্র থাকে তাদেরও ভালোবাসেন’-(সূরা বাকারা : আয়াত-২২২)। অপর আয়াতে আল্লাহপাক বলেন, ‘হে মুমিনগণ! তোমরা আল্লাহর কাছে তওবা কর বিশুদ্ধ তওবাই নিশ্চয় তোমাদের পতিপালক তোমাদের সৎকর্মগুলো মোচন করে দেবেন এবং তোমাদের দাখিল করবেন জান্নাতে, যার পাদদেশে নদী প্রবাহিত।’ (সূরা তাহরীম: আয়াত-৮)। অপর আয়াতে আল্লাহপাক বলেন ‘হে মুমিনগণ তোমরা সবাই আল্লাহপাকের কাছে তওবা কর নিশ্চয় তোমরা সফলকাম হবে।’ (সূরা নূর : আয়াত ৩১)। উল্লিখিত আয়াতসমূহ ছাড়াও এমন অসংখ্য আয়াত রয়েছে যেসব আয়াতের সারমর্ম হলো গুনাহগার ব্যক্তি আল্লাহপাকের কাছে যখন নিজের গুনাহের জন্য ক্ষমা চায় আল্লাহপাক তাকে ক্ষমা করে দেন এবং নিজের প্রিয় বান্দা হিসেবে কবুল করে নেন। তাছাড়া হাদিস শরিফে রসুলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পাপী ব্যক্তির পাপ মোচনের সুসংবাদ দিয়েছেন। ইরশাদ হয়েছে : হজরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) থেকে বর্ণিত যে মহানবী সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন গুনাহ থেকে যে ব্যক্তি তওবা করে সে এমন নিষ্পাপ হয়ে যায় যেন তার কোনো গুনাহই ছিল না (ইবনে মাজাহ্ হাদিস ৪২৫০ বায়হাকী, হাদিস ৭১৭৮ মুনযিরী, হাদিস-৪৫০৪)। অপর হাদিসে ইরশাদ হয়েছে : হজরত আনাস ইবনে মালেক (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আদম সন্তানের সবাই (কম বেশি) গুনাহগার। আর এ গুনাহগারদের মধ্যে তারাই শ্রেষ্ঠ যারা বেশি বেশি তওবা করে (তিরমিযী হাদিস ২৫০১, ইবনে মাজাহ হাদিস ৪২৫১, ইমাম হাকেম খ- ৪ পৃ. ২৪৪ মুনযিরী হাদিস-৪৫৯৬)। আল্লাহতায়ালা প্রত্যেক এমন পাপীর জন্যও তওবার দুয়ার খোলা রেখেছেন যে ব্যক্তি বারবার পাপ করছে। সুতরাং এমন ব্যক্তির জন্য এ পাপ পরিত্যাগপূর্বক কলুষমুক্ত জীবনে পরিবর্তিত করতে কোনো বাধা নেই, কেননা হাদিস শরিফে ইরশাদ হয়েছে, পাপী ব্যক্তির পাপ যদি এতে অধিকও হয় যে, তা আকাশ ছুঁয়ে যায় তবুও সে যখন আল্লাহপাকের কাছে তওবা করে আল্লাহপাক তাকে ক্ষমা করে দেন। (ইবনে মাজাহ)।

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

কান্নাকাটি

আপলোড টাইম : ০৮:১৮:৩৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৫ সেপ্টেম্বর ২০২০

ধর্ম প্রতিবেদন
হাদিসে কুদছিতে আছে আল্লাহপাক বলেন- গুনাহগারদের কান্নাকাটির আওয়াজ তসবিহ জপকারীদের আওয়াজ অপেক্ষা আমার কাছে অধিক প্রিয় (তাফসির রুহুল মাআনী খণ্ড ৩০ পৃ. ৫৩৩)। এ হাদিস শরিফ মূলত কোরআনে কারীমের ওই (১) আয়াতে কারীমারই প্রতিচ্ছবি এবং প্রতিধ্বনি যে (২) আয়াতে আল্লাহপাক পাপী বান্দাদের পাপসমূহ ক্ষমা করার সুসংবাদ দিয়েছেন। আল্লাহপাক বলেন, ‘আল্লাহ তওবাকারীকে ভালোবাসেন এবং যারা পবিত্র থাকে তাদেরও ভালোবাসেন’-(সূরা বাকারা : আয়াত-২২২)। অপর আয়াতে আল্লাহপাক বলেন, ‘হে মুমিনগণ! তোমরা আল্লাহর কাছে তওবা কর বিশুদ্ধ তওবাই নিশ্চয় তোমাদের পতিপালক তোমাদের সৎকর্মগুলো মোচন করে দেবেন এবং তোমাদের দাখিল করবেন জান্নাতে, যার পাদদেশে নদী প্রবাহিত।’ (সূরা তাহরীম: আয়াত-৮)। অপর আয়াতে আল্লাহপাক বলেন ‘হে মুমিনগণ তোমরা সবাই আল্লাহপাকের কাছে তওবা কর নিশ্চয় তোমরা সফলকাম হবে।’ (সূরা নূর : আয়াত ৩১)। উল্লিখিত আয়াতসমূহ ছাড়াও এমন অসংখ্য আয়াত রয়েছে যেসব আয়াতের সারমর্ম হলো গুনাহগার ব্যক্তি আল্লাহপাকের কাছে যখন নিজের গুনাহের জন্য ক্ষমা চায় আল্লাহপাক তাকে ক্ষমা করে দেন এবং নিজের প্রিয় বান্দা হিসেবে কবুল করে নেন। তাছাড়া হাদিস শরিফে রসুলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পাপী ব্যক্তির পাপ মোচনের সুসংবাদ দিয়েছেন। ইরশাদ হয়েছে : হজরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) থেকে বর্ণিত যে মহানবী সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন গুনাহ থেকে যে ব্যক্তি তওবা করে সে এমন নিষ্পাপ হয়ে যায় যেন তার কোনো গুনাহই ছিল না (ইবনে মাজাহ্ হাদিস ৪২৫০ বায়হাকী, হাদিস ৭১৭৮ মুনযিরী, হাদিস-৪৫০৪)। অপর হাদিসে ইরশাদ হয়েছে : হজরত আনাস ইবনে মালেক (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আদম সন্তানের সবাই (কম বেশি) গুনাহগার। আর এ গুনাহগারদের মধ্যে তারাই শ্রেষ্ঠ যারা বেশি বেশি তওবা করে (তিরমিযী হাদিস ২৫০১, ইবনে মাজাহ হাদিস ৪২৫১, ইমাম হাকেম খ- ৪ পৃ. ২৪৪ মুনযিরী হাদিস-৪৫৯৬)। আল্লাহতায়ালা প্রত্যেক এমন পাপীর জন্যও তওবার দুয়ার খোলা রেখেছেন যে ব্যক্তি বারবার পাপ করছে। সুতরাং এমন ব্যক্তির জন্য এ পাপ পরিত্যাগপূর্বক কলুষমুক্ত জীবনে পরিবর্তিত করতে কোনো বাধা নেই, কেননা হাদিস শরিফে ইরশাদ হয়েছে, পাপী ব্যক্তির পাপ যদি এতে অধিকও হয় যে, তা আকাশ ছুঁয়ে যায় তবুও সে যখন আল্লাহপাকের কাছে তওবা করে আল্লাহপাক তাকে ক্ষমা করে দেন। (ইবনে মাজাহ)।