ইপেপার । আজ রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

সিটিসেল:কী হবে গ্রাহকদের

সমীকরণ প্রতিবেদন
  • আপলোড টাইম : ০২:৫২:৫৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০১৬
  • / ৮৪১ বার পড়া হয়েছে

প্রযুক্তি ডেস্ক: পাঁচশ কোটি টাকা বকেয়া থাকা দেশের সবচেয়ে পুরনো মোবাইল ফোন অপারেটর সিটিসেল বন্ধ হতে যাওয়ার খবরে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন অপারেটরটির গ্রাহকরা। বর্তমান ব্যালেন্সের ক্ষতিপূরণ, দীর্ঘদিন ব্যবহারে পুরনো নম্বরের ক্ষতিপূরণের জন্য মামলা করার হুমকির পাশাপাশি অপারেটরটির নেটওয়ার্ক সমস্যা নিয়েও কথা বলেছেন এর গ্রাহকরা। রাজস্ব বকেয়া বাকি এবং পরিশোধে গড়িমসি করায়  যেকোনো সময় বেসরকারি মোবাইল ফোন অপারেটরটির লাইসেন্স ও তরঙ্গ বাতিল এবং অপারেশনাল কার্যক্রম বন্ধ করে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে বলে জানিয়েছে (বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন) বিটিআরসি। বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড.শাহজাহান মাহমুদ জানিয়েছেন, যেকোনো সময় অপারেটরটির অপারেশনাল কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করতে পারি। বকেয়া পরিশোধ করতে পারলে কি হবে? জানতে চাইলে বিটিআরসি চেয়ারম্যান বলেন, তখন বিশ্লেষণ করে দেখবো বিটিআরসি সিটিসেল গ্রাহকদের উদ্দেশ্যে পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়ে দুসপ্তাহের মধ্যে বিকল্প সেবা গ্রহণের জন্য আহ্বান জানাবে। বন্ধ হচ্ছে সিটিসেল, গ্রাহকদের বিকল্প সেবা গ্রহণের পরামর্শ-খবর প্রকাশের পর ফেসবুক পাতায় শেয়ারের পরপরই তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন গ্রাহকরা। সিটিসেলের সাত লাখ দুই হাজার গ্রাহক ভয়েস কলের পাশাপাশি ইন্টারনেটের জন্য জুম মডেম ব্যবহার করেন বেশি। কিছুদিন আগেও অপারেটরটির জুম মডেম বেশ জনপ্রিয় ছিল গ্রাহকদের কাছে। ইন্টারনেট ব্যবহার করেন এমন এক গ্রাহক হাবিবুল আলম ফেসবুক পাতায় লিখেছেন, জুম মডেমটা ফেরত দিতে চাই, কোম্পানি কি টাকা ফেরত দেবে? জায়েদ মিহি নামে এক গ্রাহক বলেছেন, মডেমের টাকা নিশ্চয়তা দিয়ে বন্ধ করতে হবে। সেবা প্রদানের মধ্যে হঠাৎ করে যদি বন্ধ হয়ে যায় তাহলে অপারেটরটির বিরুদ্ধে মামলা করারও কথা জানিয়েছেন কোনো কোনো গ্রাহক। রকটিম নামে একজন লিখেছেন, অপারেটরটির বিরুদ্ধে ৩০০ কোটি টাকার মামলা করা দরকার। সিটিসেলের চালু থাকা সেবা নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন অনেকেই। তুহিন আহমেদ নামে একজন লিখেছেন, আরও অনেক আগেই বন্ধ করা দরকার ছিল। হীদ মান্না লিখেছেন, এতোদিন চালু ছিল এটাই তো বিরাট বিস্ময়। বিস্ময় প্রকাশ করে ইফতেখার উদ্দিন ইফতি লিখেছেন, এখনো বাইচ্চা আছে সিটিসেল? গ্রাহকদের ক্ষতিপূরণ দাবির বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে বিটিআরসি চেয়ারম্যান ড.শাহজাহান মাহমুদ বলেন, সেটা গ্রাহকদের ব্যাপার। গ্রাহকদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার বিষয়ে লাইসেন্সে কোনো শর্ত আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এমন কোনো বিষয় নেই। সিটিসেল বন্ধ হয়ে গেলে দেশে মোবাইল ফোন অপারেটর দাঁড়াবে পাঁচটি। এরই মধ্যে এয়ারটেল ও রবির ব্যবসা একীভূত হলে থাকছে চারটি অপারেটর। আর একই নম্বরে অন্য অপারেটরের সেবা বা এমএনপি চালু হচ্ছে চলতি বছরের মধ্যে। এমএনপি বা রবি-এয়ারটেলের ব্যবসা একীভূতকরণে সিটিসেলের বন্ধ হয়ে যাওয়ার কোনো প্রভাব পড়বে না বলে মনে করেন বিটিআরসি চেয়ারম্যান ড.শাহজাহান মাহমুদ।

ট্যাগ :

নিউজটি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন

সিটিসেল:কী হবে গ্রাহকদের

আপলোড টাইম : ০২:৫২:৫৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০১৬

প্রযুক্তি ডেস্ক: পাঁচশ কোটি টাকা বকেয়া থাকা দেশের সবচেয়ে পুরনো মোবাইল ফোন অপারেটর সিটিসেল বন্ধ হতে যাওয়ার খবরে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন অপারেটরটির গ্রাহকরা। বর্তমান ব্যালেন্সের ক্ষতিপূরণ, দীর্ঘদিন ব্যবহারে পুরনো নম্বরের ক্ষতিপূরণের জন্য মামলা করার হুমকির পাশাপাশি অপারেটরটির নেটওয়ার্ক সমস্যা নিয়েও কথা বলেছেন এর গ্রাহকরা। রাজস্ব বকেয়া বাকি এবং পরিশোধে গড়িমসি করায়  যেকোনো সময় বেসরকারি মোবাইল ফোন অপারেটরটির লাইসেন্স ও তরঙ্গ বাতিল এবং অপারেশনাল কার্যক্রম বন্ধ করে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে বলে জানিয়েছে (বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন) বিটিআরসি। বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড.শাহজাহান মাহমুদ জানিয়েছেন, যেকোনো সময় অপারেটরটির অপারেশনাল কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করতে পারি। বকেয়া পরিশোধ করতে পারলে কি হবে? জানতে চাইলে বিটিআরসি চেয়ারম্যান বলেন, তখন বিশ্লেষণ করে দেখবো বিটিআরসি সিটিসেল গ্রাহকদের উদ্দেশ্যে পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়ে দুসপ্তাহের মধ্যে বিকল্প সেবা গ্রহণের জন্য আহ্বান জানাবে। বন্ধ হচ্ছে সিটিসেল, গ্রাহকদের বিকল্প সেবা গ্রহণের পরামর্শ-খবর প্রকাশের পর ফেসবুক পাতায় শেয়ারের পরপরই তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন গ্রাহকরা। সিটিসেলের সাত লাখ দুই হাজার গ্রাহক ভয়েস কলের পাশাপাশি ইন্টারনেটের জন্য জুম মডেম ব্যবহার করেন বেশি। কিছুদিন আগেও অপারেটরটির জুম মডেম বেশ জনপ্রিয় ছিল গ্রাহকদের কাছে। ইন্টারনেট ব্যবহার করেন এমন এক গ্রাহক হাবিবুল আলম ফেসবুক পাতায় লিখেছেন, জুম মডেমটা ফেরত দিতে চাই, কোম্পানি কি টাকা ফেরত দেবে? জায়েদ মিহি নামে এক গ্রাহক বলেছেন, মডেমের টাকা নিশ্চয়তা দিয়ে বন্ধ করতে হবে। সেবা প্রদানের মধ্যে হঠাৎ করে যদি বন্ধ হয়ে যায় তাহলে অপারেটরটির বিরুদ্ধে মামলা করারও কথা জানিয়েছেন কোনো কোনো গ্রাহক। রকটিম নামে একজন লিখেছেন, অপারেটরটির বিরুদ্ধে ৩০০ কোটি টাকার মামলা করা দরকার। সিটিসেলের চালু থাকা সেবা নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন অনেকেই। তুহিন আহমেদ নামে একজন লিখেছেন, আরও অনেক আগেই বন্ধ করা দরকার ছিল। হীদ মান্না লিখেছেন, এতোদিন চালু ছিল এটাই তো বিরাট বিস্ময়। বিস্ময় প্রকাশ করে ইফতেখার উদ্দিন ইফতি লিখেছেন, এখনো বাইচ্চা আছে সিটিসেল? গ্রাহকদের ক্ষতিপূরণ দাবির বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে বিটিআরসি চেয়ারম্যান ড.শাহজাহান মাহমুদ বলেন, সেটা গ্রাহকদের ব্যাপার। গ্রাহকদের ক্ষতিপূরণ দেওয়ার বিষয়ে লাইসেন্সে কোনো শর্ত আছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এমন কোনো বিষয় নেই। সিটিসেল বন্ধ হয়ে গেলে দেশে মোবাইল ফোন অপারেটর দাঁড়াবে পাঁচটি। এরই মধ্যে এয়ারটেল ও রবির ব্যবসা একীভূত হলে থাকছে চারটি অপারেটর। আর একই নম্বরে অন্য অপারেটরের সেবা বা এমএনপি চালু হচ্ছে চলতি বছরের মধ্যে। এমএনপি বা রবি-এয়ারটেলের ব্যবসা একীভূতকরণে সিটিসেলের বন্ধ হয়ে যাওয়ার কোনো প্রভাব পড়বে না বলে মনে করেন বিটিআরসি চেয়ারম্যান ড.শাহজাহান মাহমুদ।