৭ সদস্যের ভারতীয় প্রতিনিধি দল বাংলাদেশে

200

ভাষাশহীদদের শ্রদ্ধা জানাতেই বাইসাইকেলযোগে
হুসাইন মালিক, চুয়াডাঙ্গা:
‘আমাদের ভাষা এক, তাই আমরা এক সূত্রে বাঁধা’ স্লোগানে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে বাংলাদেশের ঢাকা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ভাষাশহীদদের প্রতি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাতে ১ নারীসহ ৭ সদস্যের একটি ভারতীয় প্রতিনিধিদল গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় চুয়াডাঙ্গায় এসে পৌঁছেছে। আজ রোববার এ দলটি বাইসাইকেলযোগে কুষ্টিয়ার উদ্দেশে চুয়াডাঙ্গা ত্যাগ করবে। গতকাল রাতে চুয়াডাঙ্গা শহরের হোটেল রয়েল ব্লুর লবিতে এ প্রতিনিধিদলের সঙ্গে আড্ডায় সাংবাদিক এম এ মামুন, হুসাইন মালিক ও ব্যবসায়ী সুমন পারভেজ দুই দেশের নানা বিষয় নিয়ে খোলামেলা আলোচনায় মেতে উঠেন।
জানা গেছে, ভারতের পশ্চিমবঙ্গের হুগলী জেলার চন্দননগর থেকে ১ নারীসহ ৭ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল বাইসাইকেলযোগে দর্শনা সীমান্ত দিয়ে ভারতের সিঙ্গুর মহামায়া উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষক শৈবাল ব্যানার্জি নেতৃত্বে চুয়াডাঙ্গায় এসে পৌঁছেছে। গতকাল বিকেলে সীমান্তের শূন্যরেখায় তাঁরা এসে পৌঁছালে ইমিগ্রেশন পুলিশের ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) রাশেদুজ্জামান রাশেদ তাঁদের শুভেচ্ছা জানান। এ প্রতিনিধি দলের অন্যরা হলেন মহুয়া ব্যানার্জি, আলমগীর মল্লিক, নিত্যহরি মাঝি, সনাতন পাত্র, অর্পিত দাস ও সুব্রত সাঁতরা। আজ রোববার সকাল ৯টায় ৭ সদস্যের এ প্রতিনিধি দলটি চুয়াডাঙ্গা থেকে কুষ্টিয়ার উদ্দেশে রওনা দেবে। এরপর কুষ্টিয়ার শিলাইদহে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতি-বিজড়িত কুঠিবাড়ি পরিদর্শন শেষে পাবনা হয়ে ঢাকা পৌঁছাবেন এবং ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ঢাকা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ভাষাশহীদদের প্রতি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাবেন।
গতকাল রাতে চুয়াডাঙ্গা শহরের হোটেল রয়েল ব্লুর লবির আড্ডায় উঠে আসে বাংলা ভাষাভাষীদের সৌহার্দ্য ও ভ্রাতৃত্বের প্রতিচ্ছবি। যে ভ্রাতৃত্বের বন্ধন কাঁটা তারের বেড়া পেরিয়ে এ সাতজনকে মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে এ দেশে আসতে উৎসাহ জুগিয়েছে। ভারতীয় এই প্রতিনিধিদলের সদস্যরা জানান, ‘আমাদের সবার মুখের ভাষা বাংলা। আমারা সবাই এ ভাষার সন্তান। মায়ের মুখের ভাষা আদায়ে বাঙালিদের আছে এক গৌবরোজ্জ্বল বীরত্বগাথা। এ ভাষার শহীদের সম্মান জানাতেই মূলত আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করতে ঢাকার উদ্দেশে আমাদের এ যাত্রা।’
ভারতীয় প্রতিনিধি দলের নেতা শৈবাল ব্যানার্জি এ সময় জানান, ‘দুই বাংলা সীমান্তের বেড়াজালে বিভক্ত থাকলেও মাতৃভাষার দিক দিয়ে আমরা এক। রক্ত দিয়ে অর্জিত এ ভাষাকে ও ভাষাশহীদদের শ্রদ্ধা জানতে এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনের জন্য আমরা এদেশে এসেছি। আমরা বাইসাইকেলযোগে আসা এ সাতজন একুশে ফেব্রুয়ারি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে একসাথে মাতৃভাষা দিবস পালন করব।’
উল্লেখ্য, গত শুক্রবার ১০টার ভারতের পশ্চিমবঙ্গের চন্দনগর ওরিয়েন্টাল স্পোর্টিং ক্লাবের ব্যবস্থাপনায় ইন্দো-বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল সাইকেল যাত্রার এ দলটি যাত্রা শুরু করে। এ বাইসাইকেল যাত্রার সূচনা করেন সাবেক ভারতীয় ফুটবল খেলোয়াড় সত্যজিৎ ঘোষ। ২০ ফেব্রুয়ারি এ দলটি ঢাকায় পৌছাবে এবং ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ঢাকা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ভাষাশহীদদের প্রতি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাবে। পরদিন ২২ ফেব্রুয়ারি ঢাকা থেকে রওনা দিয়ে যশোরের বেনাপোল সীমান্ত হয়ে ভারতে ফিরবে।