চুয়াডাঙ্গা বুধবার , ১৯ অক্টোবর ২০১৬
আজকের সর্বশেষ সবখবর

১৬ ডিসেম্বর ডট বাংলা ডোমেইনের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু

সমীকরণ প্রতিবেদন
অক্টোবর ১৯, ২০১৬ ১২:২০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

Kawsar-news

প্রযুক্তি ডেস্ক: আগামী ১৬ ডিসেম্বর ডট বাংলা (.বাংলা) ডোমেইনের আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। তিনি বলেন, আনুষঙ্গিক সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে আনুষ্ঠানিকভাবে আগামী ১৬ ডিসেম্বর ডট বাংলা ডোমেইনটির সার্ভিস আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করতে পারব আশা করছি। সচিবালয়ে মঙ্গলবার দুপুরে নিজ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এ বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রতিমন্ত্রী একথা জানান। তারানা হালিম বলেন, গত ৪ অক্টোবর দীর্ঘ অপেক্ষার পর ডট বাংলা ডোমেইন ব্যবহারের চূড়ান্ত অনুমোদন পেয়েছে বাংলাদেশ। এটি বাংলা ভাষার ক্ষেত্রে আরেকটি আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি। ডট বাংলা ডোমেইন চালুর মাধ্যমে সারাবিশ্বে বাংলা ভাষা ভাষী মানুষ ইন্টারনেটে নিজের ভাষায় প্রবেশ করতে পারবে। যেমন বাংলায় ‘ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়’ লিখলেই মন্ত্রণালয়ের ওয়েব সাইট চলে আসবে। প্রতিমন্ত্রী বলেন, ডট বাংলা ডোমেইন ব্যবহারে ইতোমধ্যে নীতিমালা ঠিক করা হয়েছে। ডট বাংলা ডোমেইনটির মূল্য নির্ধারণ হবে বোর্ড সভায়। তবে প্রাথমিকভাবে ডট বাংলা ডোমেইন সাবস্ক্রিপশন চার্জ এক বছরের জন্য এর মূল্য ধরা হয়েছে ৫শ’ টাকা এবং বিশেষ শব্দের ডোমেইন ন্যাম ১০ হাজার টাকা। তিনি বলেন, ইন্টারন্যাশনালাইজড ডোমেইন নেম (আইডিএন) একটি ইন্টারনেট ডোমেইন নেম সিস্টেম, যা ওয়েব ঠিকানা লিখতে প্রচলিত ইংরেজি ভাষা ছাড়া অন্যান্য ভাষা সমর্থন করে। বাংলাদেশের পাশাপাশি ভারত সরকারের মাধ্যমে পশ্চিমবঙ্গ এবং সিয়েরা লিওনও ‘.বাংলা’র জন্য আবেদন করেছিল। প্রতিমন্ত্রী বলেন, এর ফলে ইন্টারনেটে বাংলা ভাষা ব্যবহার বৃদ্ধিসহ বাংলা কনটেন্ট তৈরি উৎসাহিত হবে। এছাড়া ডট বাংলা ডোমেইন সর্বস্তরের বাংলা ভাষা প্রচলনের ক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা রাখবে।

কর্মক্ষেত্রে সোশ্যাল মিডিয়ার ব্যবহারে উৎপাদনশীলতা হ্রাস
অত্যধিক সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারের কারণে কাজের ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। নতুন এক গবেষণায় দেখা গেছে কর্মচারীরা মোট সময়ের ৩২ শতাংশ খরচ করছেন সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে।

টিমলিজ ওয়ার্ল্ড অব ওয়ার্ক রিপোর্টের গবেষণা বলা হয়, গড়ে কর্মচারীরা ২.৩৫ ঘণ্টা সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে। শুধুমাত্র সোশ্যাল মিডিয়ায় মেতে থাকার কারণে ১৩ শতাংশ উৎপাদনশীলতা হ্রাস পেয়েছে। শুধু উৎপাদনশীলতা হ্রাসই নয় অত্যধিক সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারের কারণে গোপনীয় তথ্য ফাঁস, মানহানি, ভুল তথ্য ছড়ানো বৃদ্ধি পেয়েছে।

টিমলিজের গবেষণা অনুযায়ী, সবচেয়ে বেশি ফেসবুক ব্যবহার করছে কর্মচারীরা। তাদের গবেষণা নমুনার ৬২ শতাংশ কর্মচারী কর্মক্ষেত্রে সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করেছে যারা ৮৩ শতাংশ সময় ফেসবুক ব্রাউজিং করে সময় নষ্ট করেছে। রিপোর্টে যোগ করা হয়, কর্মক্ষেত্রে সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে সময় নষ্ট করার মাত্রা মারাত্মক বেড়েছে। কিছু নিয়োগকারী এটি নিয়ন্ত্রণে নীতি গ্রহণ করেছে আর কেউ সেটাকে প্রতিষ্ঠানের স্বার্থে ব্যবহার করছে। তবে বেশিরভাগই এই বিষয়ে কি ধরণের ব্যবস্থা নেয়া উচিত সে বিষয়ে কোনো ধারণাই রাখে না। এনডিটিভি।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।