চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ২৩ এপ্রিল ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

১৩ প্রকল্পে চাহিদা পৌনে ৩ হাজার কোটি টাকা

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
এপ্রিল ২৩, ২০২২ ৯:০৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

এডিপিতে বিআইডব্লিউটিএ : বাস্তবায়নে লাগবে ১৮ হাজার ৬১৭ কোটি টাকা

নতুন অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়নে মন্ত্রণালয়গুলো বাড়তি অর্থ বরাদ্দ চাইছে। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছরের এডিপিতে তাদের চলমান ১৩ প্রকল্পের বিপরীতে দুই হাজার ৭৭০ কোটি ৯২ লাখ টাকা বরাদ্দের দাবি জানিয়েছে। আর ওই ১৩ প্রকল্প বাস্তবায়নে ২০২৫ সাল পর্যন্ত ১৮ হাজার ৬১৬ কোটি ৪৬ লাখ ৪২ হাজার টাকা প্রয়োজন হবে বলে সংস্থার প্রস্তাবনা থেকে জানা গেছে। বিআইডব্লিউটিএর প্রস্তাবনা থেকে জানা যায়, এডিপিতে মোট সরকারি অর্থায়নের প্রকল্প ১১টি এবং বৈদেশিক সাহায্য ও জিওবি মিলে দু’টি। এই ১৩ প্রকল্পের জন্য বৈদেশিক সাহায্যসহ অর্থায়ন চাওয়া হয়েছে দুই হাজার ৭৭০ কোটি ৯২ লাখ টাকা। যার মধ্যে প্রকল্প সাহায্য ৪২৫ কোটি টাকা এবং স্থানীয় মুদ্রায় দুই হাজার ৩৪৫ কোটি ৯২ লাখ টাকা। ওই পরিমাণ অর্থ বরাদ্দ চেয়ে বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান গোলাম সাদেক গত ২৮ মার্চ নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিবকে চিঠি দিয়েছেন। চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের সংশোধিত এডিপিতে ওই ১৩ প্রকল্পের বিপরীতে বরাদ্দ রয়েছে।

জানা গেছে, মংলা বন্দর থেকে চাঁদপুর-মাওয়া- গোয়ালন্দ হয়ে পাকশী পর্যন্ত নৌরুটের নাব্যতা উন্নয়ন প্রকল্পে ১৭০ কোটি টাকা, নগরবাড়ীতে আনুষঙ্গিক সুবিধাদিসহ নদীবন্দর নির্মাণ প্রকল্পে এক শ’ কোটি টাকা, বুড়িগঙ্গা, তুরাগ, শীতলক্ষ্যা ও বালু নদীর তীরভূমিতে পিলার স্থাপন, তীররক্ষা ও অবকাঠামো নির্মাণে ২৩২ কোটি ৭৫ লাখ টাকা, পুরাতন ব্রহ্মপুত্র, ধরলা, তুলাই এবং পুনর্ভবা নদীর নাব্যতা উন্নয়ন ও পুনরুদ্ধারে ৪৯৫ কোটি টাকা, ৩৫টি ড্রেজার ও সহায়ক জলযানসহ আনুষঙ্গিক সরঞ্জামাদি সংগ্রহ প্রকল্পে এক হাজার ৫০ কোটি টাকা, ঢাকা-লক্ষ্মীপুর নৌপথের লক্ষ্মীপুর প্রান্তে মেঘনা নদী ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে নাব্যতা উন্নয়নে ২৪ কোটি ৭১ লাখ টাকা চাওয়া হয়েছে। এছাড়া, পাটুরিয়া এবং দৌলতদিয়ায় আনুষঙ্গিক সুবিধাদিসহ নদীবন্দর আধুনিকায়নে ১৮০ কোটি টাকা, চাঁদপুরে ডাকাতিয়া নদীর উত্তরপাড়ে ওয়াকওয়ে ও প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মাণ প্রকল্পে ১৭ কোটি ১৪ লাখ টাকা, চিলমারী এলাকায় পাঁচটি নদীবন্দর নির্মাণ প্রকল্পে ৪৫ কোটি ৪২ লাখ টাকা, বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড হাই ওয়াটার লেভেল, স্ট্যান্ডার্ড লো ওয়াটার লেভেল নির্ধারণ এবং অভ্যন্তরীণ নৌপথের পুনঃশ্রেণী বিন্যাসকরণে ১৪ কোটি ২০ লাখ টাকা, বাংলাদেশ আঞ্চলিক অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন প্রকল্প-১ খাতে ৪২৩ কোটি টাকা, আশুগঞ্জ অভ্যন্তরীণ কনটেইনার নৌবন্দর স্থাপনে সাড়ে ছয় কোটি টাকা এবং নারায়ণগঞ্জের খানপুরে অভ্যন্তরীণ কনটেইনার এবং বাল্ক টার্মিনাল নির্মাণে ১২ কোটি ২০ লাখ টাকা আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছরের এডিপিতে বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে। এদিকে, এডিপি পর্যালোচনায় দেখা যায়, চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আট মাসে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন অগ্রগতি মাত্র ১৮ দশমিক ৫২ শতাংশ। একই সময় পর্যন্ত বিআইডব্লিটিএ খরচ করেছে মূলধন খাতে দুই হাজার ১৮০ কোটি টাকা। আর সংশোধিত এডিপিতে ৮২৪ কোটি ৫৫ লাখ টাকা বরাদ্দ আছে বলে সংস্থার প্রস্তাবনা থেকে জানা গেছে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।