চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ৮ অক্টোবর ২০১৬
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হৃতিক-কঙ্গনার লড়াইয়ে নতুন মোড়

সমীকরণ প্রতিবেদন
অক্টোবর ৮, ২০১৬ ১১:৪৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

34755_kangana

বিনোদন ডেস্ক: গেলো বছর থেকে বলিউড তারকা হৃতিক রোশন ও কঙ্গনা রানাউতের লড়াই চলছে। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে একে অন্যকে তুলোধুনো করার পর আদালত পর্যন্ত গড়ায় তাদের তিক্ত সম্পর্ক। এ নিয়ে দফায় দফায় একে অন্যকে আইনি নোটিশ পাঠান দুই তারকা। শুধু তাই নয়, সংবাদ মাধ্যমে পাল্টা-পাল্টি মন্তব্যও প্রকাশ করেন হৃতিক-কঙ্গনা। বলতে গেলে গেলো জানুয়ারি মাস থেকে মে পর্যন্ত দুজন গণমাধ্যমের শিরোনামে ছিলেন। তবে বিষয়টি আদালতে চলে যাওয়ায় ‘কৃষ থ্রি’ জুটি সংবাদ মাধ্যমে আর কোনো মন্তব্য করেননি। টানা পাঁচ মাস পর আবারও আলোচনায় এলো সম্প্রতি হৃতিকের বাবা রাকেশ রোশনের একটি বক্তব্যে। তিনি এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, হৃতিক যদি আসল সত্যিটা প্রকাশ্যে আনে, তাহলে তা সবাইকে চমকে দেবে। হৃতিক একটু ভিন্ন ধরনের। যখন কেউ তার সম্পর্কে মিথ্যে প্রচার চালায়, তখন চুপ করে থেকে নিজের সম্মান বজায় রাখতেই পছন্দ করে। তবে এবার মনে হয় ও কিছু বলবে। শুধু অপেক্ষা করছে ছবির কাজ শেষ করার। আর তারই পাল্টা প্রতিক্রিয়ায় কঙ্গনা আবারও কথা বলতে বাধ্য হন। তিনি বলেন, কেন যে ভারতীয় ছেলেরা নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারেন না। সব সময় বাবার সাহায্যের ওপর নির্ভর করেন। এই কথা শোনার পর অনেকেই বলেছিলেন হৃতিক হয়তো এবার আর চুপ থাকবেন না। কঙ্গনাকে উচিত জবাব দেবেনই। তাই হয়তো ঘটতে যাচ্ছে। সম্প্রতি ‘কাবিল’ ছবির শুটিং চলাকালেই হৃতিকের আইনজীবী ও তার দল একটি বিশেষ অনুসন্ধানে নেমেছে। তাতে কঙ্গনা হৃতিককে ফাঁসানোর জন্য যা যা করতে চেয়েছেন সবকিছুর প্রমাণ সংগ্রহ করেছেন বলে জানা গেছে। এ নিয়ে চলছে ব্যাপক জল্পনা-কল্পনা। কি এমন তথ্য নিয়ে আসছেন হৃতিক? আর কঙ্গনার কপালেই বা কি থাকছে। তিনিই বা এই লড়াইয়ের জন্য কতটুকু প্রস্তুত? এসব প্রশ্নই এখন সবার মাঝে। উল্লেখ্য, ২০০৯ সালে ‘কাইটস’ ছবির শুটিংয়ের সময় হৃতিক ও কঙ্গনার সম্পর্ক হয়। সেসময় থেকেই দুজনের মন দেয়া-নেয়া চলে। একপর্যায়ে তাদের বাগদানও হয় বলে জানা যায়। কিন্তু সময়ের বিবর্তনে সম্পর্কে ফাটল ধরে হৃতিক ও কঙ্গনার।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।