চুয়াডাঙ্গা মঙ্গলবার , ২৮ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হাসিনা সরকার প্রশাসনের ক্যু করা ভোট চোরা সরকার:কেন্দ্রীয় নেত্রী আফরোজা আব্বাস

ঝিনাইদহ জেলা মহিলা দলের দ্বিবার্ষিক সম্মেলন
সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
জুন ২৮, ২০২২ ১০:০৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ঝিনাইদহ অফিস: বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের কেন্দ্রীয় সভানেত্রী আফরোজা আব্বাস বলেছেন, এই সরকার জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয় বলে বানভাসি মানুষের প্রতি তাদের গুরুত্ব নেই। সিলেটবাসী পানিতে ডুবছে। তাদের পেটে ভাত নেই। অথচ হাসিনা সরকার বিএনপির সময় করা পদ্মাসেতু নিয়ে উৎসব করছে। বন্যার্তরা না খেয়ে থাকলেও কোটি কোটি টাকা পদ্মাসেতু উৎসবে খরচ করছে। বাজি ফুটিয়ে আনন্দে মেতে উঠছে। তিনি বলেন, এই সরকার প্রশাসন ও আমলাদের ক্যু করা সরকার বলেই আজ আমলাদের বেতন বাড়ে। তারা বৈশাখী ভাতা পায়। অথচ জনগণ আজ অবহেলিত। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে মানুষ চিড়েচ্যাপ্টা হচ্ছে। কৃষক ফসলের মূল্য পাচ্ছে না। সব জিনিসের দাম বাড়িয়ে নিজেদের লুটপাটের দায় জনগণের ঘাড়ে চাপিয়ে দিচ্ছে। তাই এই ভোট চোর সরকারকে আর এক মুহূর্তে দেশের মানুষ ক্ষমতায় দেখতে চায় না।

আফরোজা আব্বাস গতকাল সোমবার দুপুরে ঝিনাইদহ জেলা জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সম্মেলন উপলক্ষে আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের ঝিনাইদহ জেলার আহ্বায়ক অধ্যক্ষ কামরুন্নাহার লিজির সভাপতিত্বে সমাবেশে অন্যদের মধ্যে দলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহম্মেদ, ঝিনাইদহ জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাড. এম এ মজিদ, কেন্দ্রীয় নেত্রী অ্যাড. নেওয়াজ হালিমা আরলি, সাধারণ সম্পাদক জাহিদুজ্জামান মনা, আকতারুজ্জামান, মুন্সি কামাল আজাদ পান্নু, অ্যাড. শামছুজ্জামান লাকি, সাজেদুর রহমান পাপপু, ফিরোজা বুলবুলি কলি, তছলিমা খাতুন ছন্দা, ফারিয়া আক্তার, মহিলা দলনেত্রী তহুরা বেগম প্রমুখ বক্তব্য দেন।

আফরোজা আব্বাস বলেন, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিয়ে দেখেন জনগণ কাকে ভোট দেয়। এ সরকারের আমলে মানুষের জীবনের নিরাপত্তা নেই। কথা বললেই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করে।

সম্মেলনে প্রধান বক্তা ঝিনাইদহ জেলা বিএনপির সভাপতি বলেন, ভোট চোর, গণতন্ত্র হত্যাকারী এই সরকার খুন-গুমের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত বলে আজ বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন। তিনি বলেন, হাসিনা সরকারের এমপি-মন্ত্রীরা লুটপাট করে দেশের সম্পদ সুইচ ব্যাংকে পাচার করেছে। তাদের মুখে এখন সততার বুলি। মানুষ এখন আর কথিত উন্নয়নের ভেজাল বড়ি গিলবে না।

সম্মেলনে ঝিনাইদহের ৬ উপজেলা ও পৌরসভা থেকে বিপুল সংখ্যক নারী যোগ দেন। সম্মেলনকে ঘিরে নেতা-কর্মীদের মাঝে বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা ছিল চোখে পড়ার মতো। দীর্ঘ দেড় যুগ পরে অনুষ্ঠিত দ্বিবার্ষিক সম্মেলনে অধ্যক্ষ কামরুন্নাহার লিজিকে সভাপতি, তহুরা বেগমকে সাধারণ সম্পাদক ও ফারহানা রেজা আনজুকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ১৫১ সদস্যবিশিষ্ট ঝিনাইদহ জেলা জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের কমিটি গঠন করা হয়।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।