চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হাজার কোটি টাকা কোথায় গেল

সমীকরণ প্রতিবেদন
সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২১ ৮:৩২ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ইভ্যালির রাসেল-শামীমা তিন দিনের রিমান্ডে, ব্যাংকে আছে ৩০ লাখ, সম্পদ ৮ কোটি টাকার
সমীকরণ প্রতিবেদন:
প্রতারণার অভিযোগে বহুল আলোচিত ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ‘ইভ্যালি’র কাছে গ্রাহকের পাওনা হাজার কোটি টাকার বেশি। কিন্তু ইভ্যালির ব্যাংক হিসাবে অবশিষ্ট রয়েছে মাত্র ৩০ লাখ টাকা! প্রশ্ন উঠেছে, গ্রাহকের বিনিয়োগ করা হাজার কোটি টাকা গেল কোথায়? গোয়েন্দাদের এমন জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতার প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মো. রাসেল এবং তার স্ত্রী শামীমা নাসরিনও (চেয়ারম্যান) কোনো জবাব দিতে পারেননি। তবে সাভার ও আমিনবাজারের জমি নিয়ে তাদের ৮ কোটি টাকা পৈতৃক সম্পত্তি রয়েছে বলে দাবি করেছেন তারা। ইভ্যালির লুটপাটের এমন চিত্র দেখে রীতিমতো হতবাক তদন্তসংশ্লিষ্টরা। অন্যদিকে, গোয়েন্দারা জানিয়েছেন খুব শিগগিরই শেয়ারবাজারে বিনিয়োগের প্রস্তুতি নিচ্ছিল ইভ্যালি। এরই মধ্যে সম্পন্ন করে ফেলেছিল সব ধরনের প্রস্তুতি। ব্যাংক থেকে মোটা অঙ্কের ঋণ নিয়ে কোম্পানি চালু রাখাও ছিল তাদের সূক্ষ্ম পরিকল্পনার অংশ। সবশেষ কোম্পানিকে দেউলিয়া ঘোষণা করে হাজার কোটি টাকা আত্মসাতের সুনিপুণ টার্গেট ছিল তাদের।
এদিকে গ্রাহকের টাকা আত্মসাতের অভিযোগে করা মামলায় ইভ্যালির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মো. রাসেল ও তার স্ত্রী শামীমা নাসরিনকে আদালতের নির্দেশে তিন দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে ঢাকা মহানগর হাকিম আতিকুল ইসলাম এ আদেশ দেন। পণ্য না দিয়ে টাকা আত্মসাতের অভিযোগে বৃহস্পতিবার ভোরে আরিফ বাকের নামে একজন ভুক্তভোগী ইভ্যালি চেয়ারম্যান, ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ অজ্ঞাত কর্মকর্তাদের নামে গুলশান থানায় মামলা করেন। ওইদিন বিকালে রাসেল-শামীমা দম্পতিকে মোহাম্মদপুরের বাসা থেকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। গতকাল বিকাল ৩টার দিকে গুলশান থানা পুলিশ তাদের আদালতে হাজির করে। এ সময় মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড চান। আদালতে আসামিপক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী এম. মনিরুজ্জামান আসাদ ও জে আর খান রবিন। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট মো. আবদুল্লাহ আবু। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে।
গতকাল র‌্যাব সদর দফতরে বাহিনীটির মুখপাত্র কমান্ডার খন্দকার আল মঈন জানিয়েছেন, চলতি বছরের জুন থেকে ইভ্যালির কর্মচারীদের অনেকের বেতন বকেয়া থাকলেও রাসেল ও তার স্ত্রী শামীমা মাসিক ৫ লাখ করে মোট ১০ লাখ টাকা বেতন নিয়েছেন। কোম্পানির অর্থে কেনা দুটি দামি গাড়ি (রেঞ্জ রোভার ও অডি) ব্যবহার করেন তারা। এ ছাড়া কোম্পানির ২৫-৩০টি যানবাহন রয়েছে। ব্যক্তিপর্যায়ে সাভারে রাসেলের কয়েক কোটি টাকা মূল্যের জমিসহ অন্যান্য সম্পদ রয়েছে। ইভ্যালির বিভিন্ন ব্যাংক অ্যাকাউন্টে বর্তমানে প্রায় ৩০ লাখ টাকা রয়েছে। এ ছাড়া কয়েকটি পেমেন্ট গেটওয়েতে গ্রাহকের ৩০-৩৫ কোটি টাকা আটকে আছে বলে রাসেল জানিয়েছেন। র‌্যাব জানিয়েছে, রাসেল ২০০৭ সালে একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স সম্পন্ন করেন। ২০১৩ সালে এমবিএ করেন। তিনি ২০০৯ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত একটি কোচিং সেন্টারে শিক্ষকতা করেন। ২০১১ সালে ব্যাংকিং সেক্টরে চাকরি শুরু করেন। প্রায় ছয় বছর ব্যাংকে চাকরি করেন। ২০১৭ সালে ব্যাংকের চাকরি ছেড়ে ব্যবসা শুরু করেন রাসেল। তিনি প্রায় এক বছর শিশুদের ব্যবহার্য একটি আইটেম নিয়ে ব্যবসা করেন এবং এরপর ওই ব্যবসা বিক্রি করে দেন। ২০১৮ সালে আগের ব্যবসালব্ধ অর্জিত অর্থ দিয়ে ইভ্যালি প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেন। ওই বছরের ডিসেম্বরে ইভ্যালির কার্যক্রম শুরু হয়। কোম্পানিতে তিনি সিইও ও তার স্ত্রী চেয়ারম্যান পদে অধিষ্ঠিত হন। তবে বারবার প্রশ্ন উঠছে, কীভাবে তিনি পাইকারি মূল্যের চেয়ে অনেক কম দামে গ্রাহককে পণ্য সরবরাহ করতেন? কীভাবে এবং কেনই বা তিনি এমনটা করতেন? নেপথ্য টার্গেটই বা তার কী ছিল?
র‌্যাবের মুখপাত্র কমান্ডার মঈন বলেন, ভাড়া করা স্পেসে ধানমন্ডিতে ইভ্যালির প্রধান কার্যালয় ও কাস্টমার কেয়ার যাত্রা করে। একইভাবে ভাড়া করা স্পেসে আমিনবাজার ও সাভারে দুটি ওয়্যারহাউস চালু করে। কোম্পানিতে একপর্যায়ে প্রায় ২ হাজার ব্যবস্থাপনা স্টাফ ও ১ হাজার ৭০০ অস্থায়ী কর্মচারী নিয়োজিত ছিলেন; যা ব্যবসায়িক অবনতিতে বর্তমানে যথাক্রমে স্টাফ ১ হাজার ৩০০ ও অস্থায়ী পদে প্রায় ৫০০ কর্মচারীতে এসে দাঁড়িয়েছে। কর্মচারীদের একপর্যায়ে মোট মাসিক বেতন বাবদ দেওয়া হতো প্রায় ৫ কোটি টাকা; যা বর্তমানে দেড় কোটিতে নেমে এসেছে। তবে গত জুন থেকে অনেকের বেতন বকেয়া। তিনি বলেন, ইভ্যালি ছাড়া রাসেলের আরও কয়েকটি ব্যবসায়িক প্ল্যাটফরম রয়েছে। সেগুলো হলো- ই-ফুড, ই-খাতা, ই-বাজার ইত্যাদি। ইভ্যালির ব্যবসায়িক কাঠামো শুরু হয়েছিল যৎসামান্য নিজস্ব ইনভেস্টমেন্ট দিয়ে। তার ব্যবসায়িক স্ট্র্যাটেজি ছিল তৈরিকারক ও গ্রাহক চেন বা নেটওয়ার্ক থেকে বিপুল অর্থ তুলে নেওয়া। তিনি বিশাল অফার, ছাড়ের ছড়াছড়ি আর ক্যাশব্যাকের অফার নিয়ে সাধারণ মানুষকে প্রলুব্ধ করতেন। এভাবে দ্রুত ক্রেতা বাড়ানো হয়। জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, ইভ্যালির গ্রাহক ৪৪ লাখের বেশি। তিনি বিভিন্ন লোভনীয় অফারের মাধ্যমে স্বল্প সময়ে এতসংখ্যক গ্রাহক সৃষ্টি করেছেন। ইভ্যালির বিভিন্ন লোভনীয় অফার হলো- সাইক্লোন অফার (বাজারমূল্যের অর্ধেক মূল্যে পণ্য বিক্রি); ক্যাশব্যাক অফার (মূল্যের ৫০-১৫০% ক্যাশব্যাক অফার); আর্থকোয়েক অফার, প্রায়োরিটি স্টোর, ক্যাশ অন ডেলিভারি। এ ছাড়া বিভিন্ন উৎসবেও ছিল জমজমাট অফার যেমন বৈশাখী ও ঈদ অফার ইত্যাদি। তা ছাড়া রয়েছে টি ১০, ৫ ও ৩ অফার। এভাবে বিভিন্ন অফারে প্রলুব্ধ হন সাধারণ মানুষ।
র‌্যাব কর্মকর্তা কমান্ডার মঈন বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন অনুযায়ী ইভ্যালির দায় ও দেনা ছিল ৪০৩ কোটি টাকা। চলতি সম্পদ ছিল ৬৫ কোটি টাকা। বিভিন্ন পণ্য বাবদ গ্রাহকের কাছ থেকে অগ্রিম নেওয়া হয় ২১৪ কোটি টাকা এবং বিভিন্ন গ্রাহক ও কোম্পানির কাছে বকেয়া প্রায় ১৯০ কোটি টাকা। তবে ইভ্যালি মানি লন্ডারিং করেছে কি না বা তাদের আর্থিক দুর্নীতির বিষয়গুলো দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এবং অন্যান্য সংস্থা তদন্ত করে দেখবে। তবে র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে ইভ্যালির সিইও মো. রাসেল জানিয়েছেন, তার দেনা এখন হাজার কোটি টাকার বেশি। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে লোকসানি এ কোম্পানিটি কোনো ব্যবসায়িক লাভ করতে পারেনি। গ্রাহকের অর্থ দিয়েই যাবতীয় ব্যয় ও খরচ নির্বাহ করায় দেনা বরাবর বেড়েছে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।