স্থায়ী সমাধান খুঁজে বের করতে হবে

284

মিয়ানমারের রাখাইনে নির্মম-নিষ্ঠুর নিপীড়ন, ধর্ষণ, হত্যা ও নির্যাতনের মুখে প্রাণ ভয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে প্রায় ১১ লাখ রোহিঙ্গা। মানবিক কারণে তাদের আশ্রয় দিয়েছে বাংলাদেশ। কিন্তু এত বিপূলসংখ্যক রোহিঙ্গার বাংলাদেশে দীর্ঘমেয়াদে অবস্থান বড় ধরনের সংকট তৈরি করতে পারে। বছরের পর বছর বিপুলসংখ্যক রোহিঙ্গার ভার বহন করা আমাদের জন্য কঠিন। বাংলাদেশের পরিবেশ ও প্রতিবেশের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়ছে। বর্তমানে আর্থিক চাপসহ নানা ঝুঁকি মোকাবেলা করতে হচ্ছে সরকারকে। খুব সহসা এ সংকটের সমাধান না হলে আরো চাপে পড়বে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় রোহিঙ্গা সংকটের জন্য মিয়ানমারকে দায়ী করেছে। এ সমস্যার সমাধানও মিয়ানমার সরকারকে করতে হবে এবং দ্রুত রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে হবে। জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসও একই কথা বলেছেন। রোহিঙ্গাদের অবস্থা সরেজমিন দেখতে তাদের দুঃখ-দর্দশার কথা জানতে কক্সবাজারের উখিয়ায় আশ্রয় ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন তিনি। রোহিঙ্গাদের জীবন বিপন্ন করে মিয়ানমার যা করছে, তা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয় উল্লেখ করে জাতিসংঘের মহাসচিব বলেছেন, অবশ্যই আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়াতে হবে। গুতেরেস বলেন, ‘রোহিঙ্গারা কোনোভাবেই বাংলাদেশি নয়, তাদের নাগরিকত্ব ফিরিয়ে দেওয়ার বিষয়টি মিয়ানমার সরকারকে বিবেচনা করা উচিত। তাদের অস্বীকার করার সুযোগ নেই মিয়ানমারের। রোহিঙ্গা সংকট মোকাবিলায় মিয়ানমারের ওপর চায় প্রয়োগে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আরো তৎপর হতে হবে।’ প্রায় একই ধরনের কথা বলেছেন বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিম। তিনি রোহিঙ্গাদের অবস্থা দেথতে বাংলাদেশ সফরে এসেছেন তিনি। সোমবার কক্সবাজারে আশ্রয় ক্যাম্প পরিদর্শনের পর তিনি বলেন, রোহিঙ্গা সংকট সমাধান শুধু বাংলাদেশের দায়িত্ব নয়, এ বিষয়ে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। তিনি বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের দুর্দশা আমাদের গভীরভাবে নাড়িয়ে দিয়েছে। তারা স্বেচ্ছায়, নিরাপদে ও মর্যাদার সঙ্গে নিজেদের দেশে ফিরে যাওয়ার আগ পর্যন্ত তাদের সহায়তা দিয়ে যেতে আমরা প্রস্তুত আছি। জিম ইয়ং কিম বলেন, ‘আমার দেখা সবচেয়ে ভয়াবহ নির্যাতন হয়েছে রোহিঙ্গাদের ওপর। আমরা সবাই আজ রোহিঙ্গা। তাদের জন্য কাজ শেষ হয়ে যায়নি। এই সংকট সমাধানে অবশ্যই সব সম্প্রদায়কে এগিয়ে আসতে হবে। তাদের ন্যায় বিচার পাওয়ার নিশ্চিয়তা দিতে হবে মিয়ানমার সরকারকে। জাতিসংঘ মহাসচিব ও বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্টের এসব বক্তব্য প্রণিধানযোগ্য। বিশ্বব্যাংক বা অন্যদের আর্থিক সহায়তায় হয়তো রোহিঙ্গাদের ভরণপোষণের একটি সংস্থান হবে। কিন্তু যে বিষয়টি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ তা হলো রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে প্রত্যাবাসন। গুতেরেস ও কিম উভয়েই রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ বাড়ানোর কথা বলেছেন। আমরাও মনে করি, এ সংকট নিরসনে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের শক্তিশালী সদস্য রাষ্ট্রগুলোর দৃঢ়ভাবে এগিয়ে আসা প্রয়োজন।