সেতু আছে, রাস্তা নেই

191

প্রতিবেদক, ঝিনাইদহ:
ঝিনাইদহে সোনালি খালের ওপর সেতু নির্মাণ করা হলেও রাস্তা না থাকায় এ সেতু কোনো উপকারে আসছে না। আবার ব্যক্তি মালিকানা জমির ওপর রাস্তা নির্মাণ করায় স্থানীয়দের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে বিরোধ। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের সেতু-কালভার্ট নির্মাণ কর্মসূচির আওতায় এ সেতুটি নির্মাণ করা হয়। সদর উপজেলার হলিধানী ইউনিয়নের গাড়ামারা গ্রামে সেতুটির অবস্থান। রাস্তা না থাকায় সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদেরকেই দুষছেন গ্রামবাসী।
সংশ্লিষ্ট প্রকল্প বিভাগ জানায়, সোনালি খালের আবুল মণ্ডলের জমির নিকট ফাঁকা জায়গায় ২০ ফুট আরসিসি ব্রিজ নির্মাণ করা হয়েছে। আর এই ব্রিজ নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ১৫ লাখ ৯১ হাজার ৭৫৩ দশমিক ৫০ টাকা। গ্রামের আবুল মণ্ডল জানান, সেতুর এখানে তাঁর এক একর জমি রয়েছে। এটা তার বাবা-দাদার নিকট থেকে উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া। কিন্তু গত রেকর্ডে ১২ শতাংশ জমি সোনালি খালে রেকর্ড হয়েছে। খালটি তাঁর জমির একটি অংশের ওপর দিয়ে গেছে। কিছুটা জমিতে আবাদ করা হলেও বাকি জমিতে গাছের বাগান রয়েছে। গত বছর হঠাৎ করেই একটা সেতু নির্মানের কাজ শুরু করা হয়। কিন্তু কোনো রাস্তা না থাকায় এটি ব্যবহারও করা যাচ্ছে না। এখন গাছ কেটে জমির ওপর দিয়ে রাস্তা করতে না দেওয়ায় গ্রমের লোকজনের সঙ্গে প্রায়ই ঝামেলাই জড়াতে হচ্ছে। একটু ভেবে সেতুটি করলে ঝামেলা হতো না।
গ্রামের ইউপি সদস্য খলিলুর রহমান বলেন, সেতু নির্মাণ করা হলেও রাস্তা না থাকায় লোকজনের কোনো উপকারে আসছে না। সেতুটি নির্মাণ করার আগে একটু ভাবা উচিত ছিল বলে মনে করেন তিনি। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা নিউটন বাইন বলেন, এখানে যোগদান করার পর এ ধরনের কোনো কাজ করা হয়নি। বিষয়টি সম্পর্কে খোঁজ নেবেন বলে তিনি জানান।