চুয়াডাঙ্গা সোমবার , ২৮ নভেম্বর ২০১৬
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সুদিনের অপেক্ষায় দীপা খন্দকার

সমীকরণ প্রতিবেদন
নভেম্বর ২৮, ২০১৬ ৬:০৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

42028_dipa

বিনোদন ডেস্ক: দীপা খন্দকার। ছোট পর্দার জনপ্রিয় মুখ। ১৯৯৯ সাল থেকে এখন পর্যন্ত নিয়মিত মিডিয়ায় কাজ করছেন। নাটক, উপস্থাপনায় সরব তিনি। ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই এ যাবৎ দক্ষ অভিনয়শৈলীর মাধ্যমে মিডিয়ায় নিজেকে বেশ শক্ত অবস্থানে ধরে রেখেছেন। একটি কাজ করেই কখনো ক্লান্তি আসে না দীপার। আর সেটা হলো অভিনয়। যতক্ষণ পরিচালকের ‘প্যাক আপ’ শব্দটি কানে না বাজবে ততক্ষণ যন্ত্রের মতো অভিনয় চালিয়ে যান। কখনো বলেন না ‘আর পারছি না’। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পৃথিবীতে সব মানুষের কিছুু না কিছুর প্রতি অন্যরকম ভালোবাসা থেকেই থাকে। আর সে ভালোবাসার ক্ষেত্রে কখনো কোনো ক্লান্তি আসে না। অভিনয় আমার ঠিক সে রকমের ভালোবাসা। এটা আমাকে যতক্ষণ করতে বলা হবে ততক্ষণই করতে পারব। আর দশজন বাঙালি মেয়ের মতোই স্বামী, সংসার ও সন্তান নিয়ে জীবনযাপন করেন দীপা। তার পাশাপাশি এ মুহূর্তে একাধিক ধারাবাহিকের শুটিং নিয়ে ব্যস্ত আছেন তিনি। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- বাংলাভিশনের ‘লড়াই’, মাছরাঙা টিভির ‘হাউস ওয়াইফ’, বিটিভিতে প্রচার প্রতীক্ষিত ‘নীল জোছনা’সহ আরো কয়েকটি। অভিনয়ের ব্যস্ততার বাইরে চ্যানেল টোয়েন্টি ফোরে ‘হাউস ওয়াইফ’ নামের একটি অনুষ্ঠান উপস্থাপনার কাজও করছেন দীপা। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এ ধরনের একটি কাজ করার জন্য অনেক দিনের ইচ্ছা ছিল। মনে মনে ভাবছিলাম। আর সে সঙ্গে চ্যানেল টোয়েন্টি ফোর থেকে প্রস্তাব এল। সত্যিই বেশ ভালোলাগার একটি কাজ। ইতিমধ্যে দর্শক সাড়াও পেয়েছি অনেক। ‘কাকতাড়ুয়া’ ধারাবাহিকের মাধ্যমে অভিনয়ের শুরুটা করেছিলেন দীপা খন্দকার। তার অভিনীত দর্শকপ্রিয় নাটকের মধ্যে রয়েছে ‘মেঘে ঢাকা মানুষ’, ‘এবং আমি’, ‘অন্ধকারের ফুল’, ‘ঘর-সংসার’, ‘মহুয়া’, ‘স্বপ্নভোগ, ‘সোসাইটি’, ‘সাক্ষী কুটুম’, ‘অপেক্ষার বৃষ্টি এবং একটি গোল্ডফিশের অপমৃত্যু’, ‘মন তার সঙ্গিনী’, ‘জীবনের এই স্বাদ’, ‘কাঁচের মেয়ে’, ‘পাথরগলা স্রোত’, ‘আলোকনগর’, ‘ধুপখালির ঘটকালি’, ‘ফু’, ‘সুসংবাদ, ‘পলাতক সন্ত্রাসী’, ‘জল পড়ে পাতা নড়ে’, ‘সেই তুমি এই তুমি’ ইত্যাদি। অভিনয়ের দীর্ঘ জীবন কেটে গেছে দীপার। কিন্তু এ সময়ে টিভি মিডিয়া সংশ্লিষ্ট কোনো সংগঠনের সঙ্গে জড়াননি তিনি। সমপ্রতি নাটকের সংশ্লিষ্ট সংগঠনগুলো আন্দোলনের ডাক দিয়েছে। বিদেশি সিরিয়াল বন্ধের দাবিতে তারা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে সমবেত হবেন। কোনো সংগঠনের সঙ্গে না থাকলেও এ বিষয়ে নিজের সমর্থনের কথা জানিয়েছেন দীপা। তিনি বলেন, আমি কোনো কিছুর সঙ্গে জড়িত নই। তবে নাটকের স্বার্থে, আমাদের সংস্কৃতির স্বার্থে এই আন্দোলনকে আমি সমর্থন জানাই। সে সঙ্গে ৩০শে নভেম্বর সবার সঙ্গে আমিও উপস্থিত থাকবো। আমি চাই আমাদের নাটকের অবস্থা ভালো হোক। সুদিন ফিরে আসুক। সেই অপেক্ষাতে আাছি। হালে নাট্যাঙ্গনে নতুন কিছু অভিনয়শিল্পীর সম্পৃক্ততা ঘটেছে। এসব নতুনকে নিয়ে দীপার মূল্যায়ন জানতে চাইলে বলেন, এখন যেসব নতুন অভিনয় জগতে এসেছেন তাদের অনেকেই ভালো কাজ করছেন। আবার অনেকে এসেই নাটকে কাজ করার পাশাপাশি ফিল্মে অভিনয় করার জন্য তড়িঘড়ি করছেন। কিংবা দ্রুত তারকাখ্যাতির নেশায়ও মেতে উঠেছেন। এটা ঠিক নয়। আগে ছোট পর্দায় কাজ শেখা উচিত। রাতারাতি তারকাখ্যাতি পাওয়া যায়। কিন্তু সেটা খুব বেশি দিন স্থায়ী হয় না। এই কথাটি সবার মানতেই হবে। মিডিয়ায় কাজের পাশাপাশি সংসার জীবনটাও বেশ উপভোগ করছেন দীপা খন্দকার। অভিনয়ের বাইরে পুরো সময়টা সন্তানদের জন্য রাখেন। তাদের ঘিরেই তার সবকিছু বলে জানান তিনি।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।