চুয়াডাঙ্গা সোমবার , ২৪ জুলাই ২০১৭
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সীমান্তে সমস্যা : প্রয়োজন যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণের

সমীকরণ প্রতিবেদন
জুলাই ২৪, ২০১৭ ৫:১৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

বর্তমান সময়ে বাংলাদেশ সরকারের সাথে ভারতের উষ্ণ সম্পর্ক রয়েছে বলে আমরা জানি। এরপরও ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) হাতে বাংলাদেশী নাগরিক হত্যা ও অপহরণের ঘটনা অব্যাহত রয়েছে। গত ৩ দিনে শুধু সাপাহার সীমান্তেই ৫ জন বাংলাদেশীকে ধরে নিয়ে গেছে বিএসএফ। বিএসএফ-এর হাতে আটক গরু ব্যবসায়ী শহীদুল ইসলামকে ফেরত পাঠাতে চিঠি দিয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। উল্লেখ্য যে, গত ২০ জুন সকালে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার খোসালপুর সীমান্তে বিএসএফ গুলী করে স্কুলছাত্রসহ দুই বাংলাদেশীকে হত্যা করেছে। এছাড়া জলাশয়ে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশ ও ভারতীয় নাগরিকদের বিরোধের জের ধরে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার জামিনপুর সীমান্তে গত ২৫ মার্চ দুপুরে তা-ব চালায় বিএসএফ। বাংলাদেশ ভূখ-ের প্রায় ১০০ গজ ভিতরে ঢুকে বিএসএফ-এর সাউন্ড গ্রেনেড হামলায় নারী ও শিশুসহ ১২ জন আহত হয়েছেন। এসব ঘটনায় সীমান্ত এলাকার বাংলাদেশী নাগরিকদের মনে আতঙ্ক ও ভীতি বিরাজ করছে।
বর্তমান সরকারের সময় বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক অত্যন্ত গভীর বলে দাবি করা হলেও সীমান্তে বিএসএফ কর্তৃক বাংলাদেশী নাগরিক হত্যা, অপহরণ ও নির্যাতনের মাত্রা মোটেও হ্রাস পায়নি। বাংলাদেশের মানুষের প্রতি বিএসএফ’র চলমান নৃশংসতায় পর্যবেক্ষকরা বিস্মিত। ভারতের সাথে পাকিস্তান, চীন, নেপাল ও ভূটানের সীমান্ত রয়েছে। কোথাও বিএসএফ-এর এমন আচরণ লক্ষ্য করা যায় না। বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তেই বিএসএফ সবচেয়ে বেশি মানুষ হত্যা করছে। বিএসএফ-এর নৃশংসতা ও হত্যাকা-ের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ সরকারকে তেমন প্রতিবাদ করতে দেখা যায় না।
আন্তর্জাতিক সীমান্ত আইন অনুসারে কোন দেশ অন্য দেশের নাগরিককে হত্যা করতে পারে না। কেউ যদি অন্যায় করে তবে তাকে গ্রেফতার করে দেশের প্রচলিত আইন অনুসারে ব্যবস্থা নিতে পারে। কিন্তু এসবের কিছুই মানছে না বিএসএফ। তাদের গুলীতে অহরহ নিহত হচ্ছে বাংলাদেশী নাগরিকরা। যারা হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা উল্লেখ থাকলেও বাস্তবে তেমন কোন পদক্ষেপ নেয়া হয় না। সীমানায় স্থাপনা নির্মাণের আইনও মানছে না ভারত। আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে সীমান্তের ১৫০ গজের মধ্যে কোন স্থাপনা নির্মাণ করা যায় না। কিন্তু ভারত ৫০ গজের মধ্যে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ করছে বলে একটি জাতীয় দৈনিকের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। স্বীকৃত বিধি-বহির্ভূত কর্মকা-ের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ সরকারের প্রতিবাদসহ যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করা প্রয়োজন বলে আমরা মনে করি। নিজ দেশের স্বার্থ রক্ষায় অন্যায়ের প্রতিবাদ করলে বন্ধুত্ব বিনষ্ট হওয়ার কথা নয়। পৃথিবীর সব স্বাধীন রাষ্ট্রের নিজেদের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষা ও আত্মমর্যাদা সমুন্নত রাখার অধিকার রয়েছে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।