চুয়াডাঙ্গা শুক্রবার , ১০ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সীতাকুণ্ডে মালিকপক্ষকে বাদ দিয়ে দুর্বল ধারায় মামলা

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
জুন ১০, ২০২২ ১০:৫৭ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সমীকরণ প্রতিবেদন:
চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে আগুন ও বিস্ফোরণে ফায়ার সার্ভিসের ৯ কর্মীসহ প্রায় অর্ধশত মৃত্যুর ঘটনায় মালিকপক্ষের লোকজনকে বাদ দিয়ে আটজন কর্মকর্তা ও কর্মচারীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। আর মামলার ধারা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। হত্যা মামলা না করে অবহেলাজনিত মৃত্যুর অপরাধে মামলা করা হয়েছে।
মামলার বাদি সীতাকুণ্ড মডেল থানার সাব-ইন্সপেক্টর মো. আশরাফ ছিদ্দিক বলেন,”ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে পরামর্শ করে তারা যেভাবে বলেছেন আমি সেভাবেই মামলা করেছি। মামলার ধারা ঠিক করেছেন ওসি সাহেব।”
আইন বিশ্লেষকেরা বলছেন, এর মাধ্যমে মামলাটিকে দুর্বল ও প্রভাবশালী মালিকদের রক্ষা করা হয়েছে। ঘটনার চার দিন পর মঙ্গলবার দিবাগত রাতে সীতাকুণ্ড মডেল থানায় মামলা হয়। মামলা যে আট জনকে আসামি করা হয়েছে তারা হলেন বি এম কনটেইরার ডিপোর ডিজিএম(অপারেশন) নুরুল আক্তার, ম্যানেজার(অ্যাডমিন) খালেদুর রহমান, সহকারী অ্যাডমিন ম্যানেজার আব্বাস উল্লাহ, সিনিয়র এক্সিকিউটিভ(আ্যাডমিন এন্ড কমপ্লায়েন্স) মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন, সহকারী ব্যবস্থাপক (ইনল্যান্ড কন্টেইনার ডিপো, আইসিডি) আব্দুল আজিজ, সিএফএস ইনচার্জ সাইফুল ইসলাম, সিএফএস এক্সিকিউটিভ নজরুল ইসলাম খান এবং জিএম (সেলস এন্ড মার্কেটিং) নাজমুল আক্তার খান। মামলায় অজ্ঞাতনামা আরো কর্মকর্তা-কর্মচারীর কথা বলা হলেও বি এম ডিপোর এমডি চট্টগ্রাম দক্ষিণ আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ মুজিবুর রহমানসহ মালিকপক্ষের কাউকে আসামি করা হয়নি। মামলাটি করা হয়ছে দন্ডবিধির ৩৩৭,৩৩৮,৩০৪(ক) এবং ৪২৭ ধারায়। ৩৩৭ ধারায় অবহেলা বা বেপরোয়াভাবে আঘাতের অপরাধ। সর্বোচ্চ শাস্তি ছয় মাসের কারাদণ্ড ও পাঁচশ’ টাকা জরিমানা। ৩৩৮ ধারায় গুরুতর আঘাতের অপরাধে দুই বছরের কারাদণ্ডের বিধান আছে। ৩০৪(ক) ধারায় অবহেলা জনিত মৃত্যুর অপরাধ। শাস্তি সর্বোচ্চ যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। তবে উদ্দেশ্য না থাকলে ১০ বছরের কারাদণ্ড। ৪২৭ ধারায় ৫০ টাকা বা তার বেশি ক্ষতি করার অপরাধ। সর্বোচ্চ শাস্তি দুই বছরের কারাদণ্ড। প্রতিটি ধারাই আসলে অনিচ্ছাকৃত অপরাধের জন্য।
কিন্তু মামলার এজাহারে অভিযোগ করা হয়েছে, কনটেইনার ডিপো কর্তৃপক্ষ তথ্য গোপন করায় ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা মারা গেছেন। নিহতের সংখ্যাও বেড়েছে। আর ডিপোতে অনেক কেমিকেল ছিলো। কোনো নিরাপত্তা ব্যবস্থা, অগ্নি নিরাপত্তা এবং প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত কর্মচারী ছিল না। ছিল না পর্যাপ্ত নিরপত্তা সুবিধা। তাহলে মামলায় কর্তৃপক্ষ হিসেবে মালিকপক্ষের কাউকে আসামি কেন করা হলো না? আর অভিযোগে তো জেনে শুনেই ডিপো অনিরাপদ রাখার বিষয়টি স্পষ্ট। তাহলে ৩০২ ধারায় হত্যা মামলা কেন হলো না? এর জবাবে বাদী সাব-ইন্সপেক্টর মো. আশরাফ ছিদ্দিক বলেন,”তদন্ত করে পরে নতুন আসামি করা যাবে। অজ্ঞাত আসামির বিষয়টি তো এজাহারে আছে। আর প্রমাণ হলে ধারাও পরিবর্তন করা যাবে।” কিন্তু এখন মালিকপক্ষকে আসামি করে ৩০২ ধারায় হত্যা মামলা করে তদন্তে প্রমাণ না হলে তখনো তো তা পরিবর্তন করা যেত। এর জবাবে তিনি বলেন,” হ্যাঁ তাও করা যেত। কিন্তু আমি আমরা হায়ার অথরিটির সাথে কথা বলে মামলা করেছি। তারা যেভাবে বলেছেন সেভাবেই করেছি। আর মামলার ধারা ওসি সাহেব ঠিক করে দিয়েছেন।”
সীতাকুণ্ড সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আশরাফুল কবীর এক প্রশ্নের জবাবে বলেন,” আমরা কোনো রাজনৈতিক চাপে বা প্রভাবের কারণে মালিকপক্ষকে আসামি করিনি তা নয়। সরকারের আরো কয়েকটি তদন্ত কমিটি কাজ করছে। আমরাও তদন্ত করছি। তদন্তে তাদের সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পেলে তাদেরও এজাহারভুক্ত করা যাবে। আর হত্যার উদ্দেশ্যে যদি এই ঘটনার প্রমাণ পাওয়া যায় তাহলে ধরাও পরিবর্তন করে ৩০২ করা যাবে। আইনে সেই সুযোগ আছে।”
সাবেক বিচারক ও সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আজিজুর রহমান দুলু বলেন,” যাদের আসামি হওয়ার কথা তাদের আসামি না করে এবং ৩০২ ধরায় মামলা না করে শুরুতেই মামলাটি দুই দিক থেকে দুর্বল করে দেয়া হয়েছে উদ্দেশ্যমূলকভাবে। এজাহারে বি এম কনটেইনার ডিপো কর্তৃপক্ষ বলা হয়েছে। আইনে ডিপোর মালিকপক্ষ বিধিবদ্ধ কর্তৃপক্ষ। তাই মালিকপক্ষের লোকজন আসামি হবেন। কিন্তু করা হয়নি। আর ৩০২ ধারায় হত্যা মামলা না করে অবহেলা জনিত মৃত্যুর মামলা করা হয়েছে। যা ঠিক হয়নি। ৩০২ ধারায় মামলা হওয়ার দুইটি শর্ত আছে জ্ঞাতসারে এবং উদ্দেশ্যমূলকভাবে (নলেজ এন্ড ইনটেনশন) এর যেকোনো একটি থাকলেই হবে। নিরাপত্তা ব্যবস্থা না থাকার কারণে মানুষের মৃত্যু হতে পারে এটা তো জানা বিষয়। মানুষকে মৃত্যুর মুখে রাখা এবং সেই পরিস্থিতিতে মৃত্যু তো সরাসরি হত্যার অপরাধ। আবার জানার পরও রাসায়নিকের তথ্য গোপন করা হয়েছে। ফলে এখানে ৩০২ ধরায়ই মামলা হওয়া উচিত ছিলো। চাইলে এখনো সুযোগ আছে।”
সুপ্রিম কোর্টের আরেকজন আইনজীবী অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ বলেন,”এর আগে আমরা দেখেছি রূপগঞ্জের হাসেম ফুডস কারখানায় আগুনের ঘটনায় মালিককে আসামি করা হয়েছে, গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কিন্তু সীতাকুণ্ডের ঘটনায় মালিককে আসামি করা হয়নি। এর কারণ হলো রূপগঞ্জের হাসেম ফুডস-এর মালিক সরকার সমর্থক ছিলেন না আর বি এম কন্টেইনারের মালিক সরকারি দলের প্রভাবশালী নেতা। আইনে এখানে মালিকপক্ষের লোকজনই আগে আসামি হয়। কিন্তু তাদের বাঁচিয়ে দেয়া হলো। আপনারা সাংবাদিকরাও হাসেম ফুডস-এর আগুনের সময় বলেছেন মালিককে কেন আসামি করা হচ্ছেনা, গ্রেপ্তার করা হচ্ছে না। কিন্তু এখন তো সেভাবে বলছেন না।”
তিনি আরো বলেন,” সীতাকুণ্ডের ঘটনায় ৩০২ ধারায় মামলা করে পরে তদন্তে প্রমাণ না হলে ৩০৪ ধরায় নেয়া যেত। কিন্তু আগেই ৩০৪ ধরায় করে সুবিধা করে দেয়া হলো। তবে আমাদের আইনেও সমস্যা আছে। জেনেশুনে অবহেলা আর না জেনে অবহেলার মধ্যে পার্থক্য আছে। কিন্তু আইনে সেই পার্থক্য করা হয়নি।”

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।