চুয়াডাঙ্গা মঙ্গলবার , ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৬
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সাদা চুলের রহস্য ফাঁস করলেন মেসি

সমীকরণ প্রতিবেদন
সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৬ ১:৪০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

30398_Messi,খেলাধুলা ডেস্ক: দাড়ি রাখা শুরু করেছেন আগেই। বছরের শুরুতে কোপা আমেরিকার সময় লিওনেল মেসির গালভর্তি দাড়ি দর্শকদের নজর কাড়ে। দাড়ি রাখার রহস্যের কথা আগেই জানিয়েছেন বার্সেলোনার এ স্ট্রাইকার। কয়েকদিন দাড়ি না কেটে ছিলেন তিনি। তখন তার কয়েকজন সতীর্থ তাকে দেখতে সুন্দর লাগছে বলে জানান। এতেই দাড়ি রাখা শুরু করেন মেসি। কিন্তু চলতি মৌসুমের শুরুতে মেসির মধ্যে আরো একটি পরিবর্তন সবার নজরে এলো। মাথার চুলের রঙ সাদা করে ফেলেছেন তিনি। কোপা আমেরিকার ফাইনালে হারের পর বার্সেলোনার প্রাক-মৌসুমের সময় হঠাৎ তার মধ্যের এই পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়। দর্শক-ভক্তদের মনে দীর্ঘদিন থেকে প্রশ্ন- কেন মেসি চুলের রঙ সাদা করলেন। ২৮ বছর বয়সী এ আর্জেন্টাইন কাউকে অন্ধকারে রাখলেন না। চুল সাদা করার ব্যখ্যা দিলেন তিনি। কোপা আমেরিকার ফাইনালে হারের পর বিধ্বস্ত ছিলেন মেসি। ক্ষোভে-দুঃখে আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়ে ফেলেন তিনি। যদিও অবসর ভেঙে ফের আন্তর্জাতিক ফুটবলে তিনি ফিরেছেন। কিন্তু তার চুল সাদা করার রহস্য ছিল কোপা আমেরিকার ফাইনালের মধ্যে। ফাইনালে হারের পর তিনি ছিলেন হতাশ। জীবনের একটা অধ্যায় যেন সেখানে শেষ হয়ে যায়। এরপর জীবনটাকে সম্পূর্ণ নতুন করে শুরু করতে চাইছিলেন মেসি। নতুন শুরু করার জন্যই তিনি চুলের রঙ সাদা করেন বলে জানালেন। আর্জেন্টিনাইন অভিনেতা মিঙ্গোকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে মেসি বলেন, ‘আমি শূন্য থেকে শুরু করার জন্য নিজের মধ্যে পরিবর্তন আনি। চুলের রঙ সাদা করে সেটা শুরু করি। নিজেকে নিজে বলি, ‘তোমার সঙ্গে অনেককিছু হয়ে গেছে। অনেক ঘটনা ঘটেছে।’ আমি সেগুলো ভুলে গিয়ে একটি বিরতি দিয়ে পূনরায় নতুন করে শুরু করার সিদ্ধান্ত নেই।’ তিনি আরো বলেন, ‘তখন আমি যা ভেবেছিলাম তাই করেছিলাম। সবকিছু ল-ভ- হয়ে গিয়েছিল।’ কোপা আমেরিকায় চিলির বিপক্ষের ফাইনালের হারের বিষয়টি উল্লেখ করে মেসি বলেন, ‘আমরা কেমন দল ছিলাম, পুরো টুর্নামেন্টে আমরা কেমন খেলেছিলাম- এক ফাইনাল ম্যাচই যেন সব বিচার করে দিচ্ছিল। ফাইনালে হারটা ছিল খুবই হতাশাকর।’

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।