সবার স্বাস্থ্য সুরক্ষার কথা বিবেচনায় নিয়ে এ বুথ নির্মাণ

128

জীবননগর করোনা শনাক্তে নমুনা সংগ্রহের বুথ উদ্বোধনকালে উপজেলা চেয়ারম্যান
এ আর ডাবলু, জীবননগর:
জীবননগর করোনাভাইরাস শনাক্তে নমুনা সংগ্রহের বুথ উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ বুথ ও হাত ধোয়ার জন্য বেসিন উদ্বোধন করা হয়। জীবননগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজি মো. হাফিজুর রহমান হাফিজ প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে করোনা শনাক্তে নমুনা সংগ্রহের বুথ ও হাত ধোয়ার জন্য বেসিন উদ্বোধন করেন।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এস এম মুনিম লিংকন, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আয়েশা সুলতানা লাকী, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর মুন্সি নজরুল ইসলাম, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জুলিয়েট পারউইন, আবাসিক মেডিকেল অফিসার ও করোনা মেডিকেল টিমের সদস্য ডা. মাহমুদ বিন হেদায়েত সেতু, ডা. আফিন্দা আব্দুর রাজ্জাক, মেডিকেল টেকনোলজিস্ট আ. হাকিম, এমটি ইপিআই জুলফিকার রহমান, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ও বিভিন্ন ইউনিটের স্বাস্থ্যকর্মীরা।
স্বাস্থ্যকর্মী ও রোগীসহ সবার স্বাস্থ্য সুরক্ষার কথা বিবেচনায় নিয়ে এ বুথটি নির্মাণ করা হয় বলে জানান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাজি মো. হাফিজুর রহমান। এ বিষয়ে তিনি বলেন, জীবননগরবাসীর স্বাস্থ্য সুরক্ষার কথা চিন্তা করে হাত ধোয়ার বেসিন ও নমুনা সংগ্রহের বুথটি নির্মাণ করা হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এস এম মুনিম লিংকন বলেন, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবিলা করার জন্য ও করোনাভাইরাসের নমুনা যাতে জীবননগরবাসী সহজেই দিতে পারে, সে জন্যই এই করোনাভাইরাস নমুনা সংগ্রহের বুথ সাধারণ মানুষের কল্যাণের সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।
উল্লেখ্য, জীবননগর উপজেলায় ৪২৪টি নমুনা পরীক্ষা করে ৪২ জনের দেহে করোনাভাইরাস পজিটিভ হয়েছে এবং অপেক্ষামান আছে ১৮টি সংগৃহীত নমুনার। সুস্থ হয়েছেন ৩৬ জন এবং হোম আইসোলেশনে আছেন ১৬ জন। সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক নির্ধারিত ফি পরিশোধ করে এখন থেকে করোনা উপসর্গ দেখা দিলে যেকোনো ব্যক্তি নমুনা দিতে পারবেন বলে জানানো হয়। করোনা শনাক্তে বুথ নির্মাণ হওয়ায় আগের তুলনায় আরও সহজে এবং নিরাপদ দূরত্বে নমুনা সংগ্রহ সম্ভব হবে বলে অতিথিরা জানান। উপজেলায় করোনা রোগীদের নিবিড় সেবা প্রদানে উপজেলা প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি ও স্বাস্থ্যবিভাগ সার্বক্ষণিক তৎপর রয়েছে।