চুয়াডাঙ্গা সোমবার , ২ আগস্ট ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার এখনো ঊর্ধ্বমুখী

সমীকরণ প্রতিবেদন
আগস্ট ২, ২০২১ ৮:৩৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

Girl in a jacket

চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুরে করোনা ও উপসর্গে আরও সাতজনের মৃত্যু
সারা দেশে আরও ২৩১ জনের প্রাণহানি, শনাক্ত ১৪ হাজার ৮৪৪ জন
নিজস্ব প্রতিবেদক:
দেশে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার এখনো ঊর্ধ্বমুখী। গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ২৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে ১৪ হাজার ৮৪৪ জনের শরীরে। এদিকে, গতকাল চুয়াডাঙ্গায় করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে আরও চারজনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৫৭ জনের শরীরে। গতকাল মেহেরপুরে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৬৯ জন। জেলায় করোনা আক্রান্ত কেউ মারা না গেলেও উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হয়েছে দুজনের।
চুয়াডাঙ্গা:
চুয়াডাঙ্গায় করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে আরও চারজনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে করোনা আক্রান্ত একজন ও উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হয়েছে তিনজনের। এছাড়াও জেলার বাইরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে আরও একজনের। গতকাল রোববার সদর হাসপাতালে করোনা ইউনিটের রেডজোনে মৃত্যু হয়েছে একজন, ইয়োলো জোনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুজন, উপসর্গ নিয়ে নিজ বাড়িতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় একজন এছাড়াও করোনা আক্রান্ত অন্য একজনের মৃত্যু হয়েছে জেলার বাইরে। গতকাল জেলায় নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে আরও ৫৭ জনের শরীরে। এ নিয়ে জেলায় মোট করোনা শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ১০৩ জনে।
জানা যায়, গতকাল জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষিত ৩৩৩টি নমুনার ফলাফল প্রকাশ করে। এর মধ্যে ৫৭টি নমুনায় করোনা শনাক্ত হয়েছে। বাকী ২৭৬টি নমুনার ফলাফল নেগেটিভ আসে। নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় করোনা শনাক্তের হার ১৭.১১ শতাংশ। গতকাল নতুন শনাক্ত ৫৭ জনের মধ্যে সদর উপজেলার ১৪জন, আলমডাঙ্গা উপজেলার ১২ জন, দামুড়হুদা উপজেলার ২০ জন ও জীবননগর উপজেলার ১১ জন রয়েছে। গতকাল জেলায় করোনা থেকে আরও ৮৯ জন সুস্থ হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মোট সুস্থ হয়েছে ৪ হাজার ১০৬ জন। গতকাল জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ করোনা পরীক্ষার জন্য ২৬৯টি নমুনা সংগ্রহ করে কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে প্রেরণ করেছে।
চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. এ এস এম ফাতেহ্ আকরাম জানান, গতকাল সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে করোনা আক্রান্ত একজন, ইয়োলো জোনে দুজনসহ তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়াও করোনা আক্রান্ত অন্য একজনের মৃত্যু হয়েছে জেলার বাইরে চিকিৎসাধীন অবস্থায়। গতকাল সদর হাসপাতালের করোনা ইউনিটে নিহতদের মৃত্যুর পর শরীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। উক্তা নমুনাগুলি কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে করোনা পরীক্ষার জন্য পেরণ করা হবে। গতকালই করোনা প্রটোকলে নিহতের লাশ পরিবারের সদস্যদের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্য মতে জেলায় আক্রান্ত হয়ে হোম ও প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে মৃত্যু হয়েছে মোট ১৬৪ জনের ও জেলার বাইরে মৃত্যু হয়েছে আরও ১৮ জনের। তিনি আরও জানান, এখন পর্যন্ত চুয়াডাঙ্গায় জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের ৮৭ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে ৭১ জন সুস্থ হয়েছেন বাকী ১৬ জন চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জন অফিসের সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী জেলা থেকে এ পর্যন্ত মোট নমুনা সংগ্রহ ২২ হাজার ৭২৯টি, প্রাপ্ত ফলাফল ২২ হাজার ৪৩৪টি, পজিটিভ ৬ হাজার ১০৩ জন। জেলায় বর্তমানে ১ হাজার ৮১৫ জন হোম আইসোলেশন ও হাসপাতাল আইসোলেশনে রয়েছে। এর মধ্যে হোম আইসোলেশনে আছে ১ হাজার ৭৩০ জন ও হাসপাতাল আইসোলেশনে ৮৫ জন। জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত মোট মৃত্যু হয়েছে ১৮২ জনের। এর মধ্যে জেলায় আক্রান্ত হয়ে জেলার হোম ও প্রাতিষ্ঠানিক আইসোলেশনে মৃত্যু হয়েছে ১৬৪ জনের। এছাড়া চুয়াডাঙ্গায় আক্রান্ত অন্য ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে জেলার বাইরে।
মেহেরপুর:
মেহেরপুরে নতুন করে আরও ৬৯ জনের শরীরে করোনা আক্রান্ত হয়েছে। একই সময়ে করোনা উপসর্গ নিয়ে নিজ বাড়িতে অবস্থানকালে মৃত্যু হয়েছে দুজনের। গতকাল নতুন আক্রান্তদের ৬৯ জনের মধ্যে সদর উপজেলার ৩২ জন, গাংনীতে ১৯ জন ও মুজিবনগর ৮ জন রয়েছে। গতকাল রোববার রাতে মেহেরপুর সিভিল সার্জন ডা. নাসির উদ্দিন এ তথ্য নিশ্চিত করেন। সূত্রে আরও জানা যায়, গতকাল মেহেরপুর স্বাস্থ্য বিভাগ পিসিআর ল্যাব থেকে প্রাপ্ত আরও ২৫৮টি নমুনার ফলাফল প্রকাশ করে। এর মধ্যে ৬৯টি নমুনায় করোনা শনাক্ত হয়েছে। নতুন আাক্রান্ত ৬৯ জনসহ বর্তমানে মেহেরপুর জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছে ৫৮৪ জন। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ২১৩ জন, গাংনী উপজেলায় ২৭০ জন এবং মুজিবনগর উপজেলায় ১০১ জন। এ পর্যন্ত মেহেরপুরে মোট মৃত্যু হয়েছে ১৩৭ জনের। মৃতদের মধ্যে সদর উপজেলার ৬১ জন, গাংনী উপজেলার ৪৬ জন ও মুজিবনগর উপজেলার ৩০ জন রয়েছে।
সারা দেশ:
গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ২৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ২০ হাজার ৯১৬ জনে। এর আগে ২৭ জুলাই দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ২৫৮ জনের মৃত্যু হয়েছিলো। এর আগে গত শনিবার করোনায় ২১৮ জনের মৃত্যু হয়েছিল। সে তুলনায় আজ মৃত্যু আরও বেড়েছে। গতকাল রোববার স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ১৪ হাজার ৮৪৪ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশে শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১২ লাখ ৬৪ হাজার ৩২৮ জনে।
গত ২৪ ঘণ্টায় ৪৮ হাজার ৪৮১ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। তবে আগের নমুনাসহ এদিন পরীক্ষা করা হয়েছে ৪৯ হাজার ৫২৯টি নমুনা। যেখানে শনাক্তের হার ২৯ দশমিক ৯৭ শতাংশ। এ পর্যন্ত শনাক্তের মোট হার ১৬ দশমিক ২৩ শতাংশ। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, একদিনে নতুন করে সুস্থ হয়েছেন ১৫ হাজার ৫৪ জন। এ নিয়ে সুস্থ হয়ে ওঠা রোগীর সংখ্যা ১০ লাখ ৯৩ হাজার ২৬৬ জন।
বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে দেখা যায়, মারা যাওয়া ২৩১ জনের মধ্যে ৯১ থেকে ১০০ বছরের মধ্যে একজন, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে ৯ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ৫৫ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ৭২ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৪৬ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ৩৪ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ১৯ জন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে তিনজন ও ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে দুইজন রয়েছে।
গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়াদের মধ্যে পুরুষ ১৩৯ জন ও মহিলা ৯২ জন। যাদের মধ্যে বাসায় ১৩ জন ছাড়া বাকিরা হাসপাতালে মারা গেছেন। একই সময়ে বিভাগওয়ারী পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ঢাকা বিভাগে সর্বোচ্চ ৭৭ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ৫৩ জন, রাজশাহী বিভাগে ১৩ জন, খুলনা বিভাগে ৪৪ জন, বরিশাল বিভাগে ছয়জন, সিলেট বিভাগে ৯ জন, রংপুর বিভাগে ১৮ জন ও ময়মনসিংহ বিভাগে ১১ জন মারা গেছেন। গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম ৩ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ দেশে এ ভাইরাসে আক্রান্ত প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।

Girl in a jacket

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।