চুয়াডাঙ্গা বৃহস্পতিবার , ১০ আগস্ট ২০১৭
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় নিয়ে সরব আ. লীগ : আলোচনা সমালোচনার ঝড়

সমীকরণ প্রতিবেদন
আগস্ট ১০, ২০১৭ ৫:২৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় নিয়ে সরব আ. লীগ : আলোচনা সমালোচনার ঝড়
আজ গণভবনে দলের শীর্ষ পর্যায়ের যৌথসভায় সিদ্ধান্ত আসতে পারে
298dea4e4313a4d0ae6aa7b1b115e94d-575cebb21f58eসমীকরণ ডেস্ক: সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়কে ইস্যু করে বিচারবিভাগ নিয়ে সরব হয়ে উঠেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। এই রায় ঘোষণার পর কিছুদিন চুপ থাকলেও গত দুই দিন ধরে দলটির নেতারা মুখ খোলা শুরু করেছেন। তারা বিশেষ করে প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে সমালোচনায় মুখর হয়ে উঠেছেন। দলের শীর্ষ-পর্যায় থেকে শুরু করে মধ্যম সারির নেতারাও আদালতের রায় নিয়ে কথা বলা শুরু করেছেন। ষোড়শ সংশোধনীর রায় প্রসঙ্গে বুধবার দলের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলন করা হয়। আজ বৃহস্পিতবার সরকারের পক্ষ থেকে আইনমন্ত্রীও সাংবাদিকদের মুখোমুখি হবেন বলে ইতোমধ্যে জানানো হয়েছে।
প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন ৭ সদস্যের আপিল বেঞ্চ গত ৩ জুলাই বিচারপতি অপসারণ সংক্রান্ত সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী অবৈধ ঘোষণা করে রায় দেন। এরপর ১ আগস্ট ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করা হয়। রায় ঘোষণার পর থেকেই সরকারের প্রধান রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ এর রায়কে ঐতিহাসিক আখ্যায়িত করে। একইসঙ্গে রায়টিকে ইস্যু করে তারা সরকারের পদত্যাগ দাবি তুলছে। পক্ষান্তরে রায় ঘোষণার পর ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ একেবারেই চুপ হয়ে যায়। দলটির পক্ষ থেকে বিষয়টিকে পর্যবেক্ষণ করার কথা জানানো হয়। তবে, পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের এক সপ্তাহের মাথায় গত সোমবার অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে কঠোর সমালোচনা করা হয়। রায়ের কয়েকটি পর্যবেক্ষণ নিয়ে খোদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও সমালোচনা করেন বলে বৈঠক সূত্রে জানা যায়। ওই বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী সরকারের পক্ষ থেকে আইনমন্ত্রীকে আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানানোর নির্দেশ দেওয়ার পাশাপাশি দলের নেতাদের এই নিয়ে নিয়ে কথা বলার নির্দেশ দেন।
প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের পর গত দুই দিনে ৩জন মন্ত্রীসহ দলের বেশ কয়েকজন নেতা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিতে গিয়ে ষোড়শ সংশোধনীর রায় নিয়ে সমালোচনা করেছেন। এ সময় তারা প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহারও কঠোর সমালোচনা করেন। অবশ্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের আগেই অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত তার নির্বাচনি এলাকা সিলেটের একটি অনুষ্ঠানে রায় নিয়ে কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী আদালত যতবার বাতিল করবেন, সংসদে ততবারই নতুন করে এই সংশোধনী পাস হবে।’ যদিও আওয়ামী  লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ওই বক্তব্যকে অর্থমন্ত্রীর ব্যক্তিগত মন্তব্য বলে মন্তব্য করেন।
গতকাল বুধবার বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম ও গণপূর্তমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন রায়কে কেন্দ্র করে বিচারবিভাগ ও বিচারপতিদের কঠোর সমালোচনা করেন। এছাড়া দলের পক্ষ থেকে সভাপতিম-লীর সদস্য ও সংসদের আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক সংসদীয় কমিটির চেয়ারম্যান আবদুল মতিন খসরু এবং দলের আইন বিষয়ক সম্পাদক স ম রেজাউল করিম সংবাদ সম্মেলন করে ষোড়শ সংশোধনী নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানান। দলের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদও বুধবার বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন।
আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বুধবার এক অনুষ্ঠানে বিচারপতিদের কঠোর সমালোচনা করে বলেন, ‘যারা বর্তমান সংসদকে ইম-ম্যাচিউরড বলেন, তারাই ইম-ম্যাচিউরড। যারা বর্তমানে বিচারকের আসনে বসেছেন, তারা ইম-ম্যাচিউরড। নির্বাচনের পর সারা বিশ্ব আমাদের স্বীকৃতি দিয়েছে। সারা বিশ্বের সংসদ এই সংসদকে বৈধতা দিয়েছে। এই সংসদ নিয়ে প্রশ্ন তোলার অধিকার তাদের নেই।’ তিনি আরও বলেন, ‘আজ যারা বিচারকের আসনে আছেন, তারা একসময় আমাদের সঙ্গে কর্মী হিসেবে কাজ করেছেন। আজ তারা সবাই ম্যাচিউরড আর আমরা হলাম ইম-ম্যাচিউরড!’
দলের সভাপতিম-লীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘কয়েকজন বেঈমান যখন বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করেছে, চার জাতীয় নেতাকে হত্যা করেছে, তখন একটি কালো আইন করে হত্যাকারীদের নিরাপত্তা দেওয়া হয়েছে, তখন কোথায় ছিলেন সুপ্রিম কোর্ট? কোথায় ছিলেন বিচারপতিরা।’
সভাপতিম-লীর আরেক এক সদস্য ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বুধবার সহযোগী সংগঠন যুবলীগের অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে প্রধান বিচারপতিকে উদ্দেশ্যে বলেন, ‘আপনি মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষ শক্তির সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে যা বলছেন, তা ঠিক নয়। বাংলার মানুষ জানে, আপনি শান্তি কমিটির সদস্য ছিলেন। আপনি সাংবিধানিকভাবে নিয়োগ পেয়েছেন, আপনাকে সংবিধান মানতে হবে।  সংসদ ও রাষ্ট্রপতিকে মানতে হবে, আপনি সংবিধান মেনে কাজ করতে হবে। আপনি সংবিধানের ঊর্ধ্বে নন।’
দলের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে ‘সংসদ ইম-ম্যাচিউরড ও একজনের নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন হয়নি’রায়ের এমন পর্যবেক্ষণকে আপত্তিকর, অপ্রাসঙ্গিক, অনভিপ্রেত ও দুর্ভাগ্যজনক বলে মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগ নেতারা। তারা বলেন,  রায়টি দলের পক্ষ থেকে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। রায়ের বিরুদ্ধে রিভিউ করা হবে, নাকি আপত্তিকর অংশ একপাঞ্চ করার জন্য আবেদন করা হবে, সেই বিষয়ে পরবর্তী সময়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
এদিকে, আজ বৃহস্পতিবার গণভবনে অনুষ্ঠিতব্য আওয়ামী লীগের সভাপতি ও  সম্পাদকম-লীর যৌথসভায় ষোড়শ সংশোধনীর রায় নিয়ে আলোচনার মাধ্যেমে দলের পক্ষ থেকে সিদ্ধান্ত আসতে পারে বলে জানা গেছে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।