চুয়াডাঙ্গা বৃহস্পতিবার , ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৭
আজকের সর্বশেষ সবখবর

শৈলকুৃপায় আ’লীগের তিন কর্মীকে কুপিয়ে জখম

সমীকরণ প্রতিবেদন
সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৭ ১:৩৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ঝিনাইদহ অফিস: ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার বাগুটিয়া গ্রামে তিন আওয়ামী লীগ কর্মীকে কুৃপিয়ে জখম করেছে প্রতিপক্ষরা। আহতরা হলেন, শৈলকুপা উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদ রানার বড় ভাই বাগুাটিয়া গ্রামের আওয়ামীলীগ কর্মী বাদশা মিয়া (৫০), গোলাম মোস্তাফা ও সাইদুল্লাহ। এদের মধ্যে বাদশা ও মোস্তফার অবস্থা আশংকা জনক বলে পুলিশ জানিয়েছে। তাদের ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে মুমুর্ষ অবস্থায় ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় নিত্যান্দপুর ইউনিয়ন উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপ দেশী অস্ত্র সস্ত্র নিয়ে মুখোমুখি অবস্থান করছে। শৈলকুপা থানার ওসি আলমগীর হোসেন খবর নিশ্চিত করে জানান, স্থানীয় আওয়ামীলীগের দুই গ্রুপের কোন্দলের কারনে এই হামলার ঘটনা ঘটেছে। এলাকায় পুলিশ টহল বাড়ানো হয়েছে। পুলিশ ও প্রত্যাক্ষদর্শী সুত্রে জানা গেছে, দলীয় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে নিত্যানন্দপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ফারুক হোসেন ও সাবেক চেয়ারম্যান মফিজের সমর্থকরা দীর্ঘদিন ধরে মারামারিতে লিপ্ত। মঙ্গলবার বিকালে বিয়ের নিরক্ষন কিনতে বাজারে যাচ্ছিল বাদশা মিয়া। এ সময় তিনি বাগুটিয়া গ্রামের এমপির মোড়ে পৌছলে মফিজ চেয়ারম্যানের লোকজন বাদশার উপর হামলা চায়। ঠেকাতে গিয়ে বাদশা ও সাইদুল্লাকেও কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করা হয়। আহতরা সবাই ফারুক চেয়ারম্যানের সমর্থক। নিত্যানন্দপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফাররুক হোসেন মুঠোফোনে অভিযোগ করেন, ভোটে পরাজিত হয়ে এলাকায় খুন জখম, বাড়ি ঘরে হামলা ভাংচুর করে আসছে সাবেক চেয়ারম্যান রঘুনন্দপুর গ্রামের মফিজ ও তার সর্মথকরা। তার কারণে শৈলকুপার একপি অঞ্চলে অস্থিরতা বিরাজ করছে। তবে সাবেক চেয়ারম্যন মফিজ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। বিষয়টি নিয়ে শৈলকুপা থানার ওসি আলমগীর হোসেন জানান, পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রনে। এলাকায় পুলিশ টহল জোরদার করা হয়েছে। আহত একজনের অবস্থা আশংকা জনক বলে শুনেছি। এ ব্যাপারে থানায় একটি মামলা হয়েছে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।