চুয়াডাঙ্গা রবিবার , ২ অক্টোবর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

শিশু ধর্ষণ রোধে কঠোর পদক্ষেপ নিন

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
অক্টোবর ২, ২০২২ ৮:৪৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সমাজে শিশু ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনা মারাত্মকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। অবাক ব্যাপার, আট মাসে ধর্ষণের শিকার হয়েছে ৫৭৪ কন্যাশিশু। এ সময়ে ২৮ জেলায় দুই হাজার ৩০১ জন কন্যাশিশু বাল্যবিয়ের শিকারও হয়। এছাড়াও অপহরণ ও পাচার হয়েছে ১৩৬ জন। এক জরিপে এ তথ্য তুলে ধরেছে জাতীয় কন্যাশিশু অ্যাডভোকেসি ফোরাম। ধর্ষণের বিচার ১৮০ দিনের মধ্যে শেষ করার বিধি থাকলেও কার্যকর হয় না। অপ্রিয় হলেও সত্য, ছেলেসন্তান জন্ম দেওয়াকে সামাজিকভাবে গৌরবের বিষয় ভাবা হয়। এটি কন্যাশিশুর প্রতি বৈষম্যমূলক আচরণই শুধু নয়, তাদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশের জন্য ঝুঁকিপূর্ণও বটে। কন্যাশিশুদের প্রতি সহিংস আচরণ শুরু হয় একেবারে জন্মলগ্ন থেকে। কিছু ক্ষেত্রে ভ্রূণ অবস্থা থেকেই। কন্যাশিশু ও নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধ ও বঞ্চনা প্রতিরোধে কর্মকৌশল নির্ধারণের পাশাপাশি অ্যাডভোকেসি কার্যক্রম পরিচালনার জন্য কন্যাশিশুদের সার্বিক চিত্র জানা প্রয়োজন। এ বিষয়ে গণমাধ্যম গুরুত্বপূর্ণ ও দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করে আসছে। এটা সত্য, যতই দিন যাচ্ছে সমাজে ধর্ষণ-গণধর্ষণ বেড়েই চলেছে। ধর্ষণ-গণধর্ষণ পরবর্তী হত্যার ঘটনাও ঘটছে। এর থেকে আমাদের কোমলমতি শিশুরাও রেহাই পাচ্ছে না। সামাজিক মূল্যবোধ তথা ধৈর্য, উদারতা, কর্তব্যনিষ্ঠা, ন্যায়পরায়ণতা, শৃঙ্খলা, শিষ্টাচার সৌজন্যবোধ, নিয়মানুবর্তিতা, অধ্যবসায়, নান্দনিক সৃষ্টিশীলতা, দেশপ্রেম, কল্যাণবোধ, পারস্পরিক মমতাবোধ ইত্যাদি নৈতিক গুণাবলি লোপ পাওয়ার কারণেই সামাজিক অবক্ষয় দেখা দিয়েছে। যা বর্তমান সমাজে প্রকট। সমাজ পরিবর্তন মানে সামাজিক কাঠামো ও সমাজের মানুষের কার্যাবলি ও আচরণের পরিবর্তন। তাদের মানসিকতার পরিবর্তন। মনে রাখতে হবে, বিশৃঙ্খল অপরাধপ্রবণ অবক্ষয়গ্রস্ত সমাজে বসবাস করে উন্নত রুচি ও সংস্কৃতির অধিকারী হওয়া যায় না। এমন সমাজে ধর্ষণ-গণধর্ষণ কিংবা নারীর অবমাননা বন্ধ করা সহজ কাজ নয়। আমরা চাই, পরিকল্পিত ও বিন্যস্ত সমাজ। নীতিবোধ ও চারিত্রিক মূল্যবোধ সমাজ গঠনের প্রধান শক্তি- যা আমরা হারিয়ে ফেলেছি। রাষ্ট্রের মধ্যে শৃঙ্খলা না থাকলে সামাজিক শৃঙ্খলা ভেঙে পড়বে এটাই স্বাভাবিক; যার কারণে সামাজিক অবক্ষয় এত চরমে পৌঁছেছে। নানা ছলে, প্রতারণায় এমনকি প্রকাশ্যে পরিবারের ভেতর ঢুকে পড়ছে দুর্বৃত্তরা। অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে অপহরণ, ধর্ষণ, হত্যা করছে। চলন্ত বাসে ও ট্রাকে চলছে ধর্ষণ-গণধর্ষণের ঘটনা। একটি গণতান্ত্রিক দেশে এ ধরনের ভয়াবহ চিত্র ভয়ংকরভাবে উদ্বেগজনক। মানুষ অতিমাত্রায় প্রযুক্তির ওপর নির্ভরশীল হওয়ায় যান্ত্রিক হয়ে গেছে। ফলে মানবিক মূল্যবোধ লোপ পেয়েছে। অন্যায়টাকেই তারা স্বাভাবিক মনে করছে। সামাজিক সুস্থতা আনয়নের পাশাপাশি নতুন সমাজ নির্মাণের জন্য এ ধরনের অবক্ষয়কে প্রতিরোধ করতে হবে এবং যে কোনো মূল্যে। এ জন্য ব্যাপকভাবে গড়ে তুলতে হবে সামাজিক আন্দোলন এবং এর কোনো বিকল্প নেই।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।