চুয়াডাঙ্গা সোমবার , ১ আগস্ট ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লোডশেডিং ও জ্বালানি খাতে অব্যবস্থাপনার প্রতিবাদে চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর, ঝিনাইদহসহ সারাদেশে বিএনপির বিক্ষোভ

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
আগস্ট ১, ২০২২ ১১:১৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

.লীগের সীমাহীন দুর্নীতি আর লুটপাটের কারণে দেশে আজ চরম হাহাকার

সমীকরণ প্রতিবেদন:

জ্বালানি খাতে চরম অব্যবস্থাপনা সারাদেশে বিদ্যুতের অসহনীয় ভয়াবহ লোডশেডিংয়ের প্রতিবাদে চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর ঝিনাইদহসহ সারাদেশে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে বিএনপি। কেন্দ্রীয় ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল রোববার পৃথক আয়োজনে বিক্ষোভ সমাবেশ করে দলটির নেতাকর্মীরা।

চুয়াডাঙ্গায়:

জ্বালানি খাতে চরম অব্যবস্থাপনা সারাদেশে বিদ্যুতের অসহনীয় ভয়াবহ লোডশেডিংয়ের প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপি। কেন্দ্রীয় ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল রোববার সকাল সাড়ে ১০টায় চুয়াডাঙ্গা সাহিত্য পরিষদ চত্বরে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপির আহবায়ক কেন্দ্রীয় বিএনপির উপকোষাধ্যক্ষ মাহমুদ হাসান খান বাবু। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির মানবাধিকারবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো. আসাদুজ্জামান।

সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, দেশ আজ সত্যিকার অর্থেই তলাবিহীন ঝুড়িতে পরিণত হয়েছে। সরকারের হাতে যথেষ্ট পরিমাণে রিজার্ভ ফান্ড নেই, দায়দেনায় তারা জর্জরিত। সীমাহীন দুর্নীতি আর লুটপাটের কারণে দেশে আজ চরম হাহাকার। সরকারের অপরিপক্ক নীতির কারণে আজ ভয়াবহ লোডশেডিংয়ের শিকার হতে হচ্ছে দেশের জনগনকে। তিনি সরকারের উদ্দেশে বলেন, দেশের জনগণ বিক্ষুব্ধ, খুব শিগগিরই জনউৎখাতের মাধ্যমে আপনাদের পতন ঘটবে, তাই ব্যর্থতার দায় নিয়ে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করুন।

জেলা বিএনপির সদস্যসচিব মো. শরীফুজ্জামান শরীফের পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন জেলা বিএনপির সদস্য খন্দকার আব্দুল জব্বার সোনা, খাজা আবুল হাসনাত, এম জেনারেল ইসলাম, রউফুন নাহার রিনা, জেলা আইনজীবী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. সৈয়দ হেদায়েত হোসেন আসলাম, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সফিকুল ইসলাম পিটু, জেলা যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক রাজীব খান, জেলা জাসাসের সাধারণ সম্পাদক সেলিমুল হাবীব সেলিম জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মোমিন মালিতা।

জেলা বিএনপির সদস্য মির্জা ফরিদুল ইসলাম শিপলুর উপস্থাপনায় সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সদস্য আলমডাঙ্গা উপজেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল জব্বার বাবলু, জেলা বিএনপির সদস্য চুয়াডাঙ্গা পৌর বিএনপির সভাপতি সিরাজুল ইসলাম মনি, জেলা বিএনপির সদস্য আবু বক্কর সিদ্দিক আবু, জেলা বিএনপির সদস্য জেলা কৃষক দলের আহ্বায়ক মোকাররম হোসেন, জেলা বিএনপির সদস্য মনিরুজ্জামান মনির, রফিকুল হাসান তনু, জেলা বিএনপির সদস্য আলমডাঙ্গা পৌর বিএনপির সভাপতি আজিজুর রহমান পিণ্টু, জেলা বিএনপির সদস্য চুয়াডাঙ্গা পৌর বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি রাফিতুল্লাহ মহলদার, জেলা বিএনপির সদস্য হাবিবুর রহমান বুলেট, জেলা বিএনপির সদস্য সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম, জেলা বিএনপির সদস্য উথলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ, জেলা বিএনপির সদস্য সদর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. মনিরুজ্জামান লিপ্টন, জেলা বিএনপির সদস্য আলমডাঙ্গা উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আমিনুল হক রোকন, জেলা বিএনপির সদস্য আবুল হোসেন তোয়া, নুরনবী সামদানী, জেলা মৎস্যজীবী দলের আহ্বায়ক আবু বকর সিদ্দিক বকুল, জেলা কৃষক দলের সদস্যসচিব বাড়াদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. তবারক হোসেন, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সাইফুর রশীদ ঝণ্টু জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মো. শাহাজান খান।

সমাবেশে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক মাহমুদ হাসান খান বাবু বলেন, বিএনপি জনগণের দল। জনস্বার্থে আমরা সবসময় মানুষের পাশে আছি। অবৈধ পন্থায় ক্ষমতায় টিকে থাকার পথ রুদ্ধ হয়ে গেছে। তত্ত্বাবধায়ক ছাড়া বিএনপি আর কোনো নির্বাচনে যাবে না। জনগণের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করেই আমরা নির্বাচনে যাব ইনশাল্লাহ।

সমাবেশে জেলা বিএনপির সদস্যসচিব শরীফুজ্জামন শরীফ আওয়ামী লীগের উদ্দেশ্যে বলেন, বিএনপির আন্দোলন নিয়ে আপনাদের চিন্তা করা লাগবে না। পুলিশ পাহারায় থেকে বিএনপিকে কটাক্ষ করেন। সময়মতো বুঝতে পারবেন আন্দোলন কাকে বলে। বিক্ষোভ সমাবেশে বিএনপি অঙ্গসহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। সমাবেশের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তিলাওয়াত করেন জেলা ওলামা দলের সদস্যসচিব আনোয়ার হোসেন।

মেহেরপুর:

সারাদেশে লোডশেডিং জ্বালানি খাতে অব্যবস্থাপনার প্রতিবাদে মেহেরপুরে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে বিএনপি। গতকাল রোববার বিকেলে সাড়ে পাঁচটায়  জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশে অনুষ্ঠিত হয়। মেহেরপুর জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য মাসুদ অরুনের সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির খুলনা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন মেহেরপুর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন, জেলা বিএনপির সহসভাপতি জাভেদ মাসুদ মিল্টন, আব্দুর রহমান, ইলিয়াছ হোসেন, গাংনী উপজেলা বিএনপির সভাপতি রেজাউল হক মুজিবনগর উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. আমিরুল ইসলাম।

সমাবশে প্রধান অতিথি বলেন, সারাদেশে লোডশেডিং জ্বালানি অব্যবস্থাপনার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার জন্য আজ ভোলাতে স্বেচ্ছাসেবক দলের  আব্দুর রহিমের বুকে যারা গুলি চালাবার নির্দেশ দিয়েছেন গুলি চালিয়েছে, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা হওয়ার পর তাদের বিচার হবে। সাতক্ষীরার শ্যামনগরের  উপজেলায় আগত তিন মিছিলে হামলা চালিয়েছে ছাত্রলীগের গুন্ডারা। জাতীয়তাবাদী দলের রাজনীতি হচ্ছে জনগণের জন্য। তাই আপনারা যতই হামলা বা মামলা চালান, আমাদের গুমখুন করেন, আমরা বাংলাদেশের জনগণের ন্যায়সঙ্গত দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত শরীরের এক বিন্দু রক্ত থাকা পর্যন্ত কেউ রাজপথ ছেড়ে যাব না। শহরে ঘণ্টা আর গ্রামে বিভিন্নভাবে ১৬ ঘণ্টা বিদ্যুৎবিহীন থাকছে। যে কৃষক বাংলাদেশের অর্থনীতি চাকা সচল রেখেছে, সেই কৃষক যদি বিদ্যুৎ বঞ্চিত হয়, তাহলে তারা কীভাবে সেচের কাজ করবে। কৃষক যদি সার না পায়, তাহলে কীভাবে ফসল ফলাবে। আজ ৪১ দিন যমুনা সার কারখানায় গ্যাস সরবরাহ পাচ্ছে না। সার কারখান কর্তৃপক্ষ কৃষি মন্ত্রণালয়কে জানিয়ে দিয়েছে তাদের ইউরিয়া উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভাব হবে না। কৃষকরা ইউরিয়া থেকে বঞ্চিত হবে, যার নেতিবাচক প্রভার আমাদের উৎপাদনে পড়বে।

তিনি আরও বলেন, এই বাংলাদেশের অবস্থান শীলঙ্কার চেয়ে ভয়াবহ হতে বাধ্য। সরকার বিদেশী রাষ্ট্রকে খুশি করার জন্য তাদের দলীয় নেতাকর্মীদের অতিরিক্ত সুবিধা দেওয়ার জন্য আমদানি নির্ভর জ্বালানি খাতে পরিণত করেছে। বেসরকারি বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রে ক্যাপাসিটি চার্জ দেওয়া হয়েছে ৫৬ হাজার কোটি টাকা। অনেক বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে সরকার এক ইউনিট বিদ্যুৎ গ্রহণ না করে দেশবিরোধী চুক্তির অংশ হিসেবে প্রতি মাসে শত কোটি থেকে হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে। এই সরকারের হাতে মাত্র ১১ দিনের জ্বালানি রয়েছে। যদি দ্রুততম সময়ের মধ্যে জ্বালানি তেলবাহী কন্টেনার বন্দরে না ভেড়ে তাহলে আগামী ১১ দিন পর সকল যানবহন বহন বন্ধ হয়ে যাবে। বিদ্যুৎ কেন্দ্র বন্ধ হয়ে যাবে।

পৌর বিএনপির সভাপতি জাহাঙ্গীর বিশ্বাসের সঞ্চালনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন জেলা বিএনপির সহসভাপতি শহিদুল ইসলাম নাসির, জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল আউয়াল, মাহাবুবুর রহমান মাহবুব, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রশিদ প্রমুখ।

ঝিনাইদহ:

বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সহসভাপতি সাবেক মন্ত্রী অ্যাড. নিতাই রায় চৌধুরী বলেছেন, আওয়ামী লীগ এখন খায় খায় লীগে পরিণত হয়েছে। তারা নির্বাচন খেয়েছে, গণতন্ত্র, ব্যক্তি স্বাধীনতা মানবাধিকার খেয়েছে। এসব খেয়েই তারা ক্ষ্যান্ত হয়নি। তারা দেশের সম্পদ লুটেপুটে খেয়ে দেশকে তলাবিহীন ঝুড়িতে পরিণত করেছে। নিতাই রায় চৌধুরী চৌধুরী গতকাল রোববার দুপুরে ঝিনাইদহ প্রেসক্লাব চত্বরে জেলা বিএনপি আয়োজিত এক প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় কথা বলেন।

সারাদেশে নজিরবিহীন লোডশেডিং জ্বালানি খাতে অব্যবস্থপনার প্রতিবাদে এই প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক আক্তারুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে জেলা বিএনপির সাবেক জ্যেষ্ঠ যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল মালেক, সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাড. কামাল আজাদ পান্নু, আব্দুল মজিদ বিশ্বাস, সাংগঠনিক সম্পাদক সাজেদুর রহমান পাপ্পু, কৃষক দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ারুল ইসলাম বাদশা, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম পিণ্টু, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মুশফিকুর রহমান মানিক প্রমুখ বক্তব্য দেন।

নিতাই রায় চৌধুরী আরও বলেন, হাসিনা সরকার নিজেদের স্বার্থে গ্যাস উৎপাদন না করে আমদানি করছে। ক্ষমতাশীন দলের নেতাকর্মীরা নিজেদের জন্য ডলার কিনে রেখে সংকট তৈরি করছে। বিদ্যুৎ সংকটের কারণ বিনা টেন্ডারে নিজেদের লোকদের দিয়ে রেন্টাল, কুইক রেন্টালের মাধ্যমে টাকা লুটপাট করেছে। ফলে আজ এই অবস্থা। তিনি জনতার উদ্দেশ্যে বলেন, বিদ্যুৎ চলে গেলে হেরিকেন জ্বালাবেন, তারও উপায় নেই। কারণ লাফিয়ে লাফিয়ে  তেলের দাম বাড়াচ্ছে। সব মেগা প্রকল্প দুর্নীতির আখড়াই পরিণত হয়েছে। সাবেক এই মন্ত্রী জনতার মুর্হুমুর্হু করতালীর মধ্যে বলেন, শেখ হাসিনার এই রক্তে এই দেশের প্রতি একটুও ভালোবাসা নেই। তার দরদ ভারতের জন্য। এখনো সময় আছে জাতির কাছে মাফ চেয়ে ক্ষমতা ছেড়ে দিন, নইলে আপনার জন্য অপমানজনক বিদায় অপেক্ষা করছে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।