লাশ নিয়ে স্বজনদের বিক্ষোভ : শাস্তি দাবি

213

ঝিনাইদহে স্বামীর নির্যাতনে গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যু
ঝিনাইদহ অফিস:
লম্পট শ্বশুরের কুপ্রস্তাব ফাঁস করে দেওয়ায় স্বামীর নির্যাতনে শাপলা (২১) খাতুন নামে এক গৃহবধু ক্ষোভে অপমানে আত্মহত্যা করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে ঝিনাইদহ পৌরসভার মথুরাপুর গ্রামে। এ ঘটনার পর থেকে লম্পট শ্বশুর নাসির উদ্দীন ও ছেলে নয়নসহ পরিবারের লোকজন গাঁ’ঢাকা দিয়েছে। এদিকে, গৃহবধু শাপলার লাশ নিয়ে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছে পরিবার ও আত্মীয়স্বজন। গতকাল শনিবার দুপুরে ঝিনাইদহ সদর উপজেলার বাসুদেবপুর গ্রামে বিক্ষোভ মিছিল করে স্থানীয় বাজারে গিয়ে শেষ হয়। বিক্ষোভ মিছিলে আত্মহত্যায় প্ররোচনাকারিদের কঠিন শাস্তি দাবি করা হয়।
শাপলার খাতুনের পিতা সিরাজ উদ্দীন জানান, তিন বছর আগে ঝিনাইদহ পৌর এলাকার মথুরাপুর গ্রামের নাসির মন্ডলের ছেলে নয়নের সাথে শাপলার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই শ্বশুর নাসির পুত্রবধুকে কুপ্রস্তাব দিত। তিনি আরো জানান, একবার শাপলা বাপের বাড়ি এসে আর যেতে রাজি হচ্ছিল না। পরে তাকে বুঝিয়ে শ্বশুর বাড়ি পাঠানো হয়। গত বুধবার শাপলার শ্বাশুড়ি মেয়ে বাড়ি বেড়াতে গেলে সুযোগ বুঝে শ্বশুর পুত্রবধুকে ধর্ষণ করতে গেলে প্রতিবেশীরা টের পেয়ে যায়। ফাঁস হয়ে পড়ে ঘটনা। ক্ষিপ্ত হয়ে স্বামী নয়ন স্ত্রীকে ব্যাপক ভাবে নির্যাতন করে। এদিকে শ্বশুরের হাতে পাশবিক নির্যাতন, অন্যদিকে স্বামীর মারধর খেয়ে ক্ষোভে অপমানে ঘরের আড়ার সাথে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। প্রতিবেশীরা উদ্ধার করে ঘটনার দিন শাপলাকে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকায় রেফার্ড করে চিকিৎসকরা। গত বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন শাপলা। আনুষ্ঠানিকতা শেষে শাপলার লাশ শনিবার দুপুরে ঢাকা থেকে ঝিনাইদহে পৌছালে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে গ্রামবাসি। এলাকার মহিলা মেম্বর লাকী খাতুন জানান, শাপলা নরম স্বভাবের মেয়ে ছিল। আগেও তার উপর এমন অত্যাচার করা হয়। কিন্তু সে মুখ বুঝে সব কিছু সহ্য করছে। ঝিনাইদহ পৌরসভার কাউন্সিলর ও মথুরাপুর গ্রামের বাসিন্দা মহিউদ্দীন খবরের সত্যতা স্বীকার করে জানান, শ্বশুরের সাথে আপত্তিকর অবস্থা জানাজানি হওয়ায় শাপলা আত্মহত্যা করেছে। ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান খান জানান, এঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।