চুয়াডাঙ্গা মঙ্গলবার , ১৯ জুলাই ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রিজার্ভে টান পড়ায় লোডশেডিংয়ের সিদ্ধান্ত : বিএনপি

সমীকরণ প্রতিবেদনঃ
জুলাই ১৯, ২০২২ ৯:২৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সমীকরণ প্রতিবেদন: এলাকাভিত্তিক লোডশেডিং নিয়ে সরকারি সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে সাবেক বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেছেন, বিদ্যুৎসঙ্কট মোকাবেলা করার জন্য সরকার এসব করেনি। এগুলো করেছে কারণ রিজার্ভে টান পড়েছে। সরকার তেল, গ্যাস আমদানি করতে পারছে না। যার ফলে কম বিদ্যুৎ খরচ হলে আমদানিও কম লাগবে সে জন্য এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, সরকার এত ঢোল পেটাল সিঙ্গাপুর, ব্যাংকককে ছাড়িয়ে গেছি আমরা, সেই রিজার্ভ এখন কোথায়। হঠাৎ করে নাই হয়ে গেল কেন। আজকে দেশ অর্থনৈতিক ক্রাইসিসে দাঁড়িয়ে গেছে এবং এটার জন্য পুরোপুরি সরকারই দায়ী।

গতকাল সোমবার বিকেলে রাজধানীর গুলশানে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেন যখন শতভাগ বিদ্যুৎ উৎপাদনের কথা বলা হচ্ছে, তারপর কেন এমন সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে? আগে লোডশেডিংয়ে মানুষকে পে করতে হয়নি এখন মিউজিয়ামে যাওয়া লোডশেডিংকে ফেরত এনে পে করতে হচ্ছে। লোডশেডিং সত্ত্বেও কেন মানুষকে পেমেন্ট করতে হচ্ছেÑ সেটিই বড় প্রশ্ন। টুকু বলেন, সরকারের প্ল্যানে বলা ছিল ৬৪ ভাগ বিদ্যুৎ উৎপাদন থাকবে সরকারের হাতে, আর ৩৬ ভাগ থাকবে বেসরকারি হাতে। এ সরকার তড়িঘড়ি করে বেজ প্ল্যান্টগুলো প্রাইভেটে দিয়ে দিলো। সবকিছু মিলিয়ে আমি মনে করি এই প্ল্যান খারাপ ছিল এবং দুর্নীতিগ্রস্ত ছিল, যার ফলে আমাদের বিদ্যুতের যে আইন, সেগুলো জলাঞ্জলি দিয়ে সংসদে আইন পাস করে যাকে ইচ্ছে তাকে পাওয়ার স্টেশন দেয়া হয়েছে। শতভাগ বিদ্যুতের দেশ বলে হাতিরঝিলে অনেক ফানুস উড়ল; কিন্তু আজকে আমরা বিদ্যুৎ পাচ্ছি না। তিনি বলেন, বিদ্যুৎ এমন একটি খাত, যা সংরক্ষণ করা যায় না, উৎপাদন করলে খরচ হয়ে যাবে। এই খাতকে জনগণের সেবামূলক খাতে দিতে হবে, আবার কমার্শিয়ালিও চালাতে হবে। না চালালে খরচ উঠবে না। সে কারণে সরকারের হাতে থাকলে অনেক সাশ্রয় করতে পারে, অনেক জিনিসের দাম কমিয়ে রাখতে পারে। কিন্তু এখন এটা সম্পূর্ণ কমার্শিয়ালি চলে গেছে। আমরা যেটা প্ল্যান করেছিলাম, ট্রান্সমিশন ও ডিস্ট্রিবিউশন প্রাইভেটকে দিয়ে দেবো। সরকারের কাজ না বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিদ্যুতের বিল তোলা। কিন্তু এখন উৎপাদন দেয়া হয়েছে প্রাইভেট সেক্টরকে, এর ফল ভোগ করতে হচ্ছে। এসেসম্যান্ট না করে বিদ্যুৎ উৎপাদন করেছে, সেই ফল ভোগ করতে হচ্ছে। এটি সরকারের বড় ধরনের ব্যার্থতা কি নাÑ এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি এটিকে বড় ধরনের কূটচাল বলে উল্লেখ করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির মিডিয়া সেলের আহ্বায়ক জহির উদ্দিন স্বপন, সদস্যসচিব শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, সদস্য ব্যারিস্টার মীর মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিন ও শায়রুল কবির খান।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।