চুয়াডাঙ্গা শনিবার , ২০ আগস্ট ২০১৬
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে ভারতে অ্যামনেস্টি বন্ধ

সমীকরণ প্রতিবেদন
আগস্ট ২০, ২০১৬ ২:৪৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বিশ্ব ডেস্ক: যুক্তরাজ্যভিত্তিক আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল ভারতে তাদের কার্যক্রম চালাতে গিয়ে তাপের মুখে পড়েছে। অ্যামনেস্টির বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের, অভিযোগ এনে সোমবার মামলা করেছে অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ (এবিভিপি) নামের একটি হিন্দুত্ববাদী সংগঠন। মামলা দায়েরের পর এবিভিপির মঙ্গলবার ও বুধবারের বিক্ষোভের মুখে অ্যামনেস্টি ইন্ডিয়ার দিল্লি, পুনে ও চেন্নাইয়ের অফিস সাময়িকভাবে বন্ধ করে দিয়েছে। সেই সঙ্গে ভারতে এ মানবাধিকার সংগঠনের সব অনুষ্ঠান সাময়িকভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে বলে বুধবার তাদের মুখপাত্র জানান। অ্যামনেস্টি ইন্ডিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ, কাশ্মীরের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে শনিবার তাদের এক সেমিনারে ভারতবিরোধী বক্তব্য ও স্লোগান দের্ওয়া হয়েছে। কাশ্মীরে ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনীর ক্ষমতার অপব্যবহার, নিয়ে বেঙ্গালুরুতে ওই সেমিনার করে অ্যামনেস্টি ইন্ডিয়া। অখিল ভারত বিদ্যার্থী পরিষদ বিজেপি ঘনিষ্ঠ ছাত্রসংগঠন। অ্যামনেস্টির বিরুদ্ধে বেআইনিভাবে লোক জড়ো করে দাঙ্গা বাধানোর চেষ্টার অভিযোগও এনেছে তারা। তবে অ্যামনেস্টি ইন্ডিয়া তাদের বিরুদ্ধে আনা রাষ্ট্রদ্রোহের, অভিযোগ অস্বীকার করেছে। তাদের ভাষ্য, উন্মুক্ত ওই অনুষ্ঠানে আসা ব্যক্তিদের কেউ কেউ কাশ্মীরের স্বাধীনতা চেয়ে স্লোগান দিলেও তাতে তাদের কর্মকর্তা-কর্মচারীরার জড়িত ছিলেন না। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল ইন্ডিয়ার মুখপাত্র হিমানশি মাতা বলেন, ওই অভিযোগে আমাদের জড়ানোর কোনো যুক্তি থাকতে পারে না। সেমিনারটি সবার জন্য উন্মুক্ত ছিল। সারাক্ষণই মানুষ এসেছে, চলেও গেছে। কেউ কেউ ওরকম করতেও পারে, কিন্তু কোনো কর্মচারী এতে জড়িত ছিল না।
তিনি আরো বলেন, জম্মু ও কাশ্মীরে মানবাধিকার লঙ্ঘনের শিকার হয়েছে এমন পরিবারের সদস্যদের কথা শুনতে আমাদের বাধা দিচ্ছে বিক্ষোভকারীরা। পাশাপাশি সমাজকর্মী, যারা এ ধরনের ঘটনার পর সাংবিধানিক অধিকার নিয়ে কাজ করতে আগ্রহী, তাদেরও বাঁধা দেওয়া হচ্ছে। কাশ্মীরে নির্যাতনের শিকার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ওই সেমিনারের আয়োজন করা হয় বলে অ্যামনেস্টি ইন্ডিয়ার মুখপাত্র জানান। উল্লেখ্য, ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু ও কাশ্মীরের পরিস্থিতি গত ছয় বছরের মধ্যে বর্তমানে সবচেয়ে বেশি নাজুক। কাশ্মীরের বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলনের তরুণ নেতা বোরহান ওয়ানি গত মাসে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে নিহত হওয়ার পর থেকে সেখানে ধারাবাহিকভাবে বিক্ষোভ ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে। গত দেড় মাসে সংঘর্ষে সেখানে অন্তত ৬৪ জন নিহত হয়েছে। ওই রাজ্যে এখনো কারফিউ চলছে।

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।