রাশিয়া-তুরস্ক সমর্থিত অস্ত্রবিরতি কার্যকর

326

46916_naz-2

বিশ্ব ডেস্ক: সিরিয়াজুড়ে অস্ত্রবিরতি কার্যকর হয়েছে। রাশিয়া ও তুরস্কের মধ্যস্থতায় সম্পাদিত চুক্তিটি সিরিয়ার সরকার ও কিছু সশস্ত্র বিরোধী গোষ্ঠী মেনে নিয়েছে। বৃস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া এই অস্ত্রবিরতি স্থানীয় সময় বেলা ১২টায় শুরু হয়েছে। এটি পরিকল্পনা মোতাবেক টিকে থাকলে কাজাখস্থানের রাজধানী আস্তানায় এক মাসের মধ্যে শুরু হবে শান্তি আলোচনা। এ খবর দিয়েছে আল জাজিরা। খবরে বলা হয়, তুরস্ক ও রাশিয়া যথাক্রমে বিরোধী ও সরকার পক্ষের দায় নিয়েছে। সিরিয়ার গৃহযুদ্ধ অবসানে পূর্ববর্তী জাতিসংঘ সমর্থিত প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে। প্রায়ই যুদ্ধবিরতির মধ্যেই দেখা গেছে তীব্র লড়াই। তবে এই যুদ্ধবিরতির আওতার বাইরে রাখা হয়েছে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) ও জাবাত ফাতেহ আল-শাম গোষ্ঠীকে (সাবেক আল নুসরা ফ্রন্ট)। আল জাজিরার চার্লস স্ট্রাটফোর্ড বলেন, অনেক আশা আছে যে এবার হয়তো কাজ হবে। কিন্তু ব্যপক সমস্যাও রয়ে গেছে। সবচেয়ে বড়টি বোধ হয়  জাবাত ফাতেহ আল-শাম। ধারণা করা হচ্ছে, জাবাত ফাতেহ আল শামকে টার্গেট করে বিমান হামলা চালানো হলে, চুক্তি স্বাক্ষরকারী কয়েকটি গোষ্ঠীও ক্ষতিগ্রস্থ হবে। কারণ, অতীতে এমন বেশ কয়েকটি গোষ্ঠীর সঙ্গে একত্রে কাজ করেছে জাবাত আল-ফাতেহ। বৃস্পতিবার দিনের শুরুতে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ¬াদিমির পুতিন ঘোষণা দেন, সিরিয়াজুড়ে অস্ত্রবিরতির লক্ষ্যে একটি চুক্তিতে উপনীত হয়েছে বিবদমান পক্ষগুলো। তবে দেশজুড়ে অস্ত্রবিরতি কার্যকরের কথা বলা হলেও, আইএস ও চুক্তির বাইরে থাকা গোষ্ঠীর নিয়ন্ত্রনাধীন এলাকাগুলোতে লড়াই চলতে থাকবে। যেমন, উত্তর পশ্চিমাঞ্চলীয় ইদলিব ও দামেস্কের শহরতলী এর মধ্যে অন্যতম।