যে ৬ কাজে হালাল রিজিকের দরজা খোলে

109

ধর্ম প্রতিবেদন:
বান্দার জন্য মহান আল্লাহর সবচেয়ে বড় অনুগ্রহ হালাল রিজিক। তিনিই বান্দাকে বিভিন্ন উপায়ে রিজিক দিয়ে থাকেন। হালাল রিজিক লাভে কুরআন-সুন্নায় ৬ টি উপায় ওঠে এসেছে। যারা এ ছয়টি কাজ যথাযথভাবে মেনে চলে, আল্লাহ তাআলা তাদের জন্য হালাল রিজিকের দরজা খুলে দেন। হালাল রিজিক লাভ ও তাতে বরকত লাভে কুরআন-সুন্নায় সুস্পষ্ট ঘোষণা এসেছে। তাহলো-
তাক্বওয়া বা আল্লাহকে ভয় করা: আল্লাহকে যে যতবেশি ভয় করবে আল্লাহ তাআলা ওই ব্যক্তির তত সহায় হবেন। এবং কল্পনাতীতভাবে দান করবেন রিজিক। আল্লাহ তাআলা বলেন- ‘আর যে আল্লাহকে ভয় করে, আল্লাহ তার জন্যে নিস্কৃতির পথ করে দেবেন। আর তাকে তার ধারণাতীত জায়গা থেকে রিযিক দেবেন।’ (সুরা তালাক : আয়াত ২-৩)
তাওয়াক্বুল বা আল্লাহর উপর ভরসা করা: আল্লাহর প্রতি একান্তভাবে ভরসা করলে শুধু রিজিকই নয় বরং মহান আল্লাহ ওই বান্দার সবকিছুর ব্যাপারে যথেষ্ট হয়ে যান। আল্লাহ তাআলা বলেন- ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর উপর ভরসা করে তার জন্যে তিনিই যথেষ্ট। আল্লাহ তার কাজ পূর্ণ করবেন। আল্লাহ সবকিছুর জন্যে একটি পরিমাণ স্থির করে রেখেছেন।’ (সুরা তালাক : আয়াত ৩)
করজে হাসানা বা সাদকা করা: যে ব্যক্তি মহান আল্লাহর পথে খরচ করবে, দান-সাদকা করবে কিংবা অন্যকে উত্তম ঋণ দান করবে, তখন আল্লাহ তাআলা ওই বান্দার রিজিক অনেকগুণ বাড়িয়ে দেবেন। আল্লাহ তাআলা বলেন- এমন কে আছে যে, আল্লাহকে করজ দেবে, উত্তম করজ; অতপর আল্লাহ তাকে দ্বিগুণ-বহু গুণ বৃদ্ধি করে দেবেন। আল্লাহই সংকোচিত করেন এবং তিনিই প্রশস্ততা দান করেন এবং তাঁরই কাছে তোমরা সবাই ফিরে যাবে।’ (সুরা বাকারা : আয়াত ২৪৫)
শুকরিয়া বা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা: সুখে-দুঃখে সব সময় আল্লাহর শুকরিয়া বা কৃতজ্ঞতা আদায় করলে বান্দার প্রাপ্তি ও চাহিদাকে আল্লাহ পূরণ করে দেবেন। আল্লাহ তাআলা বলেন- ‘আর যখন তোমাদের রব ঘোষণা দিলেন, ‘যদি তোমরা শুকরিয়া আদায় কর, তবে আমি অবশ্যই তোমাদের আরও বাড়িয়ে দেব। আর যদি তোমরা অকৃতজ্ঞ হও, নিশ্চয় আমার আজাব বড়ই কঠিন।’ (সুরা ইবরাহিম : আয়াত ৭)
ইসতেগফার তথা ক্ষমা প্রার্থনা করা: আল্লাহ ক্ষমাশীল। তিনি ক্ষমাকারীকে ভালোবাসেন। আর ক্ষমা প্রার্থনায় যেসব নেয়ামত লাভ হয়, এরমধ্যে রিজিকের প্রাধান্যই বেশি। আল্লাহ তাআলা হজরত নুহ আলাইহিস সালামকে দেয়া নসিহতে তাই বলেছেন-‘অতপর (আমি নুহকে) বলেছি, তোমরা তোমাদের পালন কর্তার ক্ষমা প্রার্থনা কর। তিনি অত্যন্ত ক্ষমাশীল। তিনি তোমাদের উপর অজস্র (রিজিক উৎপাদনে) বৃষ্টিধারা ছেড়ে দিবেন, তোমাদের ধন-সম্পদ ও সন্তান-সন্ততি বাড়িয়ে দেবেন, তোমাদের জন্য উদ্যান স্থাপন করবেন এবং তোমাদের জন্য নদী-নালা প্রবাহিত করবেন।’ (সুরা নুহ : আয়াত ১০-১২)
আত্মীয় সম্পর্ক ঠিক রাখা: আত্মীয়তার সম্পর্ক ঠিক রাখা মহান আল্লাহর অন্যতম ইবাদত। এ ইবাদতে শুধু রিজিক বাড়ে এমন নয়, বরং হায়াতও বাড়ে বলে উল্লেখ করেছেন বিশ্বনবি। হাদিসে এসেছে- রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যে কামনা করে যে তার রিজিক বেড়ে যাক এবং হায়াত (জীবন) দীর্ঘায়িত হোক; সে যেন আত্মীয়তার বন্ধন রক্ষা করে।’ (বুখারি) মুমিন মুসলমানের উচিত, কুরআন-সুন্নায় ঘোষিত উল্লেখিত নসিহতগুলো মোতাবেক জীবন পরিচালনা করা। হালাল ও উত্তম রিজিক লাভে আল্লাহর কাছে তার সেখানো পদ্ধতিতে চেষ্টা করা। আল্লাহ তাআলা সবাইকে উত্তম রিজিক লাভের তাওফিক দান করুন। কুরআন-সুন্নাহর নসিহত মেনে চলার তাওফিক দান করুন। আমিন।