চুয়াডাঙ্গা রবিবার , ১ নভেম্বর ২০২০
আজকের সর্বশেষ সবখবর

যেখানে রাজকুমার-রাজকুমারীরাও খেটে খায়

সমীকরণ প্রতিবেদন
নভেম্বর ১, ২০২০ ১০:০৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

Girl in a jacket

বিস্ময় প্রতিবেদন:
রাজপ্রাসাদ নেই, মসনদও নেই, কিন্তু সিঙ্গাপুরে রাজকুমার, রাজকুমারীরা আছেন। দেখে চেনা যায় না তাদের। যাদের নামের সঙ্গে ‘টেঙ্কু’ আছে, বুঝতে হবে তারাই রাজকুমার বা রাজকুমারী। কোন বংশের রাকজুমার বা রাজকুমারী? কেন সুলতান হুসেইন শাহর কথা মনে নেই? তার সঙ্গে চুক্তি করেই তো সিঙ্গাপুরে উপনিবেশিক শাসন শুরু করেছিল ব্রিটেন। গত শতকের শেষ দিকেও জরাজীর্ন এক রাজপ্রাসাদে গাদাগাদি করে থাকতেন তারা। তখন রাজপ্রাসাদে অবশ্য সুলতানের ৭৯জন বংশধরের মধ্যে মাত্র ১৪জন ছিলেন। মাসোহারার আশ্বাস দিয়ে তাদের রাজপ্রাসাদ ছেড়ে অন্য কোথাও চলে যাওয়ার নির্দেশ দেয় সরকার। সেই রাজপ্রাসাদ এখন জাদুঘর। রাজবংশের হয়েও টেংকু শওল, টেংকু আজান, টেংকু ইন্দ্র, টেংকু ফজল বা প্রিন্সেস পুতেরিকে এখন সেখানে যেতে হয় বেড়াতে। তারা যে এখন সাধারণ মানুষ! টেংকু ইন্দ্র কনসালট্যান্ট, তার ছেলে টেংকৃ আজান ব্যবসায়ী, প্রাসাদচ্যুত হওয়ার পর কিছুদিন পরিচ্ছন্নতাকর্মীর কাজ করা টেংকু ফয়জল ট্যাক্সিচালক আর টেংকু পুতেরি এখন বায়োটেক ফার্মের কর্মী। টেংকু ইন্দ্র বলছিলেন, ‘আপনি রাজপরিবারের কিনা তা আর এখন গুরুত্বপূর্ণ নয়। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো পারিবারিক সূত্রে পাওয়া কোনো পরিচয় দিয়ে নয়, এখন জীবিকা নির্বাহ করতে হয় মেধা দিয়ে।’ সূত্র : ডয়চে ভেলে।

Girl in a jacket

দৈনিক সময়ের সমীকরণ সংবিধান, আইন ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো মন্তব্য না করার জন্য পাঠকদের বিশেষভাবে অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য অপসারণ করার ক্ষমতা রাখে।