যেকোনো পরিস্থিতিতে কাজ করার জন্য নিজেদের শক্ত করতে হবে

216

চুয়াডাঙ্গায় সহকারী কমিশনারদের সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে বিভাগীয় কমিশনার ড. আনোয়ার হোসেন
নিজস্ব প্রতিবেদক:
চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে শিক্ষানবিশ সহকারী কমিশনারদের কর্মকালীন প্রশিক্ষণ (on the no training) কর্মসূচি সমাপনী উপলক্ষে সনদপত্র বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল রোববার সকাল ১০টায় চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে এ সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠান হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার। জুম অ্যাপসের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যুক্ত ছিলেন খুলনা বিভাগীয় কমিশনার ড. মুহম্মাদ আনোয়ার হোসেন হাওলাদার।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে খুলনা বিভাগীয় কমিশনার ড. মুহম্মাদ আনোয়ার হোসেন হাওলাদার বলেন, করোনাভাইরাসের সংকটকালীন সময়েও জেলা প্রশাসনে থেকে মাঠ পর্যায়ে কাজ করতে হচ্ছে সহকারী কমিশনারদের। মাঠপর্যায়ে কাজ করতে যেয়ে চুয়াডাঙ্গার কয়েকজন সহকারী কমিশনার করোনাভাইরাসেও আক্রান্ত হয়েছিলেন। তাঁরা সুস্থ হয়ে আবার কর্মস্থলে যোগ দিয়েছেন। হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিতকরণ, জনসমাবেশ বন্ধ করা, বাজার মনিটরিং এবং সামাজিক ও শারীরিক দূরুত্ব বজায় রাখাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করাসহ নানাবিধ কাজ করতে হচ্ছে তাঁদেরই। তিনি আরও বলেন, যেকোনো পরিস্থিতিতে কাজ করার জন্য নিজেদেরকে শক্ত করতে হবে। প্রশাসন এখন জনবান্ধব।
সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার বলেন, চুয়াডাঙ্গা ছোট জেলা হলেও এ জেলার আয়তন ও জনসংখ্যার তুলনায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা অনেক বেশি। কাজ করতে যেয়ে সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা অক্লান্ত পরিশ্রম করছেন। এ জেলায় কয়েকজন আক্রান্তও হয়েছিলেন। এখন তাঁরা সুস্থ হয়ে পুনরায় কাজে যোগদান করেছেন। তাই এসব কিছু মাথায় রেখে জেলা প্রশাসনে প্রশাসনিক কার্যক্রম পরিচালনায় সহকারী কমিশনারদের ভূমিকা অনেক।
অনুষ্ঠানে জুম অ্যাপসের মাধ্যমে বিশেষ অতিথি হিসেবে যুক্ত ছিলেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের (জেলা ও মাঠ প্রশাসন) যুগ্ম সচিব ড. মুশফিকুর রহমান। জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ ইয়াহ্ ইয়া খান ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মনিরা পারভীন। পরে জেলা প্রশাসক নজরুল ইসলাম সরকার প্রশিক্ষণ সমাপনকৃত সহকারী কমিশনার সিব্বির আহমেদ, পপি খাতুন, শিবানি সরকার ও খায়রুল ইসলামের হাতে সনদপত্র তুলে দেন।